গজলে গজলে চলছে ওরসের আমেজ

প্রকাশিত: ১:২১ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৩, ২০১৭

গজলে গজলে চলছে ওরসের আমেজ

মেঘলা আকাশ ও মাঝেমধ্যে হালকা গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি আবার হঠাৎ মুষলধারে বৃষ্টি এমন আবহাওয়ার মধ্যে চলছে হযরত শাহজালাল র. ৬৯৮তম ওরস মোবারকের প্রথম দিন। গজল ও ঢোলের তালে গান পরিবেশন করে চলছে ওরসের আমেজ। সঙ্গে আশেকান ও দর্শনার্থীরাও সেই তালে দেহ দোলাচ্ছেন।

শনিবার পুরো মাজার প্রাঙ্গন ঘুরে দেখা যায়, প্রায় অর্ধশতাধিকের চেয়েও বেশী আসর তৈরী করা হয়েছে মাজারের উত্তর ও পশ্চিম অংশে। এরই মধ্যে বেশীর ভাগ আসর ইতোমধ্যে জুড়ে রয়েছেন গান পরিবেশনকারী আশেকান দল। এছাড়া শাহজালাল দরগাহ জামের মসজিদের সম্মুখভাগে বসানো হয়েছে গজলের আসর।

দাওয়াতে ইসলাম বাংলাদেশ ও কুমিল্লা শাহপুর দরবার শরীফের ব্যানারে গজলের আসরে একের পর এক গজল পরিবেশন করা হচ্ছে। গজলের আসরের সামনে কিছু স্টল নিয়ে বসেছে ছোট্ট বইয়ের মেলা। মাজারের উঠান পাড়ি দিয়ে হিফজ বিভাগের ছাত্রাবাস ঘেষে শাহজালাল কবরস্থানের উত্তর অংশে গানের আসর জমে উঠেছে। সেখানে গানের সঙ্গে নৃত্য ও দেহ দোলাতে নারী ও পুরুষ এবং শিশুরাও । এছাড়াও প্রচুর দর্শনার্থীদের ঢল রয়েছে এসব আসরে।

দিনের শুরুতে বৃষ্টি উপেক্ষা করে কাকভেঁজা দেহ নিয়ে মাজার প্রাঙ্গনে হাজির হাজারো ভক্ত ও আশেকান। দুপুরে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হলেও দিন গড়াতেই আবারও বৃষ্টি শুরু হয়। বিকেলের দিকে বৃষ্টি কিছুটা থামছে বলে দর্শনার্থীদের ভীড় বেড়েই চলেছে।

ঢাকার গুলশান থেকে আসা নজরুল শেখ বলেন, পবিত্র ওরস মোবারক বছরে একবার হয়। এই পবিত্র ওরসে আসতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। ভাল লাগছে এমন আউলিয়ার ওরসে আসতে পেরে।

আরেক আশেকান বৃদ্ধ আসলাম শেখ বলেন, বয়স অনেক হয়েছে কিন্তু মাজারের ওরসে আসতে মন খুব টানে। তাই বৃদ্ধ বয়সেও গিলাফ দিতে সিলেটে আসলাম।

এর আগে সকাল ৯ টার দিকে গিলাফ প্রদানের মাধ্যমে ওরসের কার্যক্রম শুরু হয়। ‘লালে লাল, বাবা শাহজালাল’ শ্লোগানে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ও ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে লাল ও সবুজ এবং কলিজি রংয়ের বাহারি গিলাফ ঢাক-ঢোল পিটিয়ে মাজারে নিয়ে যাওয়া হয়। এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে সিলেট্ জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা একটি গিলাফও প্রদান করেন। বিকেল পর্যন্ত গিলাফ প্রদান কার্যক্রম চলে।

এছাড়াও ওরসকে ঘিরে দরগাহের আশেপাশে চিড়া-মুড়ি ও বাহারি নিমকির পসরা সাজিয়ে বসে আসেন ব্যবসায়ীরা। ওরসের শিরণী উপলক্ষে সকালে প্রায় অর্ধ শতাধিক গরুও জবাই করা হয় ।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট