শাবিপ্রবিতে ভর্তি ফি বাড়ানোর প্রতিবাদে বিক্ষোভ

প্রকাশিত: ১১:০০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০২৩

শাবিপ্রবিতে ভর্তি ফি বাড়ানোর প্রতিবাদে বিক্ষোভ

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষ ২০২১-২২-এর সেশনে ভর্তি ফি বাড়ানোর প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ-সমাবেশ করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। রোববার (২২ জানুয়ারি) দুপুরে এ বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

মিছিলটি ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে গোলচত্বরে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়। শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন প্রতিবাদী প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে বিক্ষোভে মিছিলে অংশ নেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০২১-২২ সেশনের প্রথম বর্ষে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক ভর্তি নিশ্চিত করতে গুচ্ছের মাধ্যমে পাঁচ হাজার টাকা করে পরিশোধ করতে হয়েছে। এরপর সরাসরি ভর্তি হতে শিক্ষার্থীদের আরো ১০ হাজার টাকা করে জমা দিতে হবে। তবে এ ভর্তি ফি কোন খাতে কত টাকা করে নেয়া হচ্ছে, তা নিয়ে তথ্য দিতে গড়িমসি করছে ভর্তি কমিটি ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

ভর্তি ফি নির্ধারণের বিষয়ে একাধিক একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য, ভর্তি কমিটি ও প্রশাসনের কাছে জানতে চাইলে তারা সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য দিতে পারেননি। তবে ১৫ হাজার টাকা ভর্তি ফি অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল নির্ধারণ করেছে বলে জানিয়েছেন ভর্তি কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো: রাশেদ তালুকদার।

তিনি বলেন, সোমবার (২৩ জানুয়ারি) থেকে ২০২১-২২ সেশনে প্রথম সেমিস্টারে চূড়ান্ত ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে। এতে ভর্তি ফি বাবদ সর্বমোট ১৫ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। গুচ্ছের মাধ্যমে আগে পাঁচ হাজার টাকা নেয়া হয়েছে, সরাসরি ভর্তির সময় শিক্ষার্থীদের আরো ১০ হাজার টাকা দিতে হবে। অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ ফি নির্ধারণ করা হয়।

ভর্তি ফি-র খাত বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে মিটিং ডাকা হয়েছে। এরপর কোন খাতে কত টাকা নেয়া হবে, তা জানাতে পারব।

ভর্তি ফি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের মো: ফজলুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, এ মুহূর্তে আমার কাছে ভর্তি ফি-র রশিদ নেই। আমাকে দুয়েক দিন সময় দিলে খুঁজে বের করে দিতে পারব।

প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা বলেন, অগণতান্ত্রিক ও অযৌক্তিকভাবে ভর্তি ফি বাড়িয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গত বছর ভর্তি ফি ছিল সাড়ে আট হাজার টাকা। আর এই বছর তা এক লাফে বাড়িয়ে ১৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। যা একজন মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত শিক্ষার্থীর জন্য বোঝা। এমন সিদ্ধান্ত শিক্ষাকে বেসরকারিকরণ ও বাণিজ্যিকীকরণের দিকে ধাবিত করছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে সমাজের একাংশ শিক্ষার্থীর উচ্চ শিক্ষা বন্ধ হয়ে যাবে, যা অগণতান্ত্রিক।

সমাবেশে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী তানভীর রহমানের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী ওসমান গণি, গণিতের সজিব আহমেদ তাহসিন ও পদার্থবিজ্ঞানের সজীব আহমেদ জয়।

সমাবেশে বক্তরা বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশির ভাগ শিক্ষার্থী কৃষক-শ্রমিক পরিবারের। তাদের ভর্তির টাকা জোগাড় করতে অনেক কষ্ট করতে হয়। শিক্ষা কোনো পণ্য নয়, শিক্ষা মানুষের অধিকার। শাবিপ্রবি প্রশাসন ভর্তি ফি পূর্বের তুলনায় দ্বিগুণ করে শিক্ষার্থীদের উপর এক ধরনের চাপ সৃষ্টি করছে। অগণতান্ত্রিক ও স্বৈরাচারী সিদ্ধান্ত নেয়ায় আমরা ছাত্রসমাজ এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। এ সময় বক্তারা অবিলম্বে ভর্তি ফি কমিয়ে শিক্ষার্থীদের ব্যয়ভারের চাপ লাঘব করার আহ্বান জানান।

ভর্তি কমিটি সূত্রে জানা যায়, আজ সোমবার থেকে শাবিপ্রবিতে ২০২১-২২ সেশনে সরাসরি ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে, আগামী বুধবার পর্যন্ত চলবে। সোমবার বিজ্ঞান অনুষদে এক থেকে এক হাজার ৬৫০ পর্যন্ত, মঙ্গলবার সকালে এক হাজার ৬৫১ থেকে আট হাজার পর্যন্ত, বিকালে স্থাপত্য বিভাগে এক থেকে ৩৪ পর্যন্ত ডাকা হয়েছে।

সর্বশেষ বুধবার সকালে মানবিক শাখায় এক থেকে এক হাজার ৩১৯ পর্যন্ত এবং বিকালে বাণিজ্য শাখায় এক থেকে ৫৫৯ পর্যন্ত ভর্তির জন্য ডাকা হয়েছে।

এর আগে ২০২০-২১ সেশনে শিক্ষার্থীরা ভর্তি বাবদ খাতওয়ারি ভর্তি ফি ৭০০ টাকা, বেতন ৪৫০ টাকা, রেজিস্ট্রেশন ফি ৪৩০ টাকা, পরিবহন ফি ৫৫০ টাকা, ইউনিয়ন ফি ১০০ টাকা, ছাত্র/ছাত্রী কল্যাণ ফি ৩০০ টাকা, লাইব্রেরি ফি ১৭৫ টাকা, কম্পিউটার ফি ৩০০ টাকা, রোভার স্কাউট ফি ২৫ টাকা, বিএনসিসি ফি ২৫ টাকা, ইনস্যুরেন্স ফি (জীবন বীমা+স্বাস্থ্য বীমা) ২০০ টাকা।

এছাড়া অন্যান্য ফি-র মধ্যে রয়েছে পাঠবহির্ভূত কার্যক্রম ১৫০ টাকা, চিকিৎসা ফি ১২০ টাকা, উৎসব ফি ১০০ টাকা, পরিচয়পত্র ফি ১৭৫ টাকা, সিলেবাস ফি ৪০০ টাকা, শিক্ষাপঞ্জী ফি ১০০ টাকা, মাদকাসক্তি ফি ৪০০ টাকা। মোট ৪৭০০ টাকা।

এছাড়া বিভাগীয় ফি তিন হাজার টাকা ও হল সংযুক্তি ফি ৪০০ টাকা। সর্বমোট আট হাজার ১০০ টাকা নেয়া হয়েছিল।


সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট