হেরেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল, জিতেও বাদ ক্যামেরুন

প্রকাশিত: ৩:৪৩ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৩, ২০২২

হেরেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল, জিতেও বাদ ক্যামেরুন

বল দখল, আধিপত্য, আক্রমণ- সব দিকেই ঢের এগিয়ে ছিল ব্রাজিল। তবে গোলের খেলা ফুটবলে সেই কাঙ্ক্ষিত গোলেরই দেখা পেল না দলটি। বরং অতিরিক্ত সময়ে এসে বেদনাবিধূর হারটাকেই নিতে হয়েছে আপন করে। ১-০ গোলে হেরে গেছে ক্যামেরুনের কাছে।

কাতার বিশ্বকাপের এ ম্যাচটা শুধুই নিয়ম রক্ষার হলেও অনুপ্রেরণা যোগাত বটে, তা আর হলো কোথায় তবে! দলটা যদিও দ্বিতীয় সারির, তবুও নামটা ব্রাজিল তো বটে। এই হারে রেকর্ডে ভাঙন ধরলো ব্রাজিলের, গত ১৯৯৮ সালের পর এই প্রথম গ্রুপ পর্বে কোনো ম্যাচ হারলো সেলেকাওরা। ৬ আসর আর ২০ ম্যাচ পর গ্রুপ পর্বে হারের তেঁতো স্বাদ পেল ব্রাজিল।

এদিকে আজকের এ ম্যাচে জয় পেয়েও শেষ ষোলতে যাওয়া হলো না ক্যামেরুনের। তবে জয় নিয়েই দেশে ফিরতে পারছে তারা। এই জয়ের ফলে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েও বেশ আনন্দিত ক্যামেরুনের ফুটবলাররা। বিশেষ করে গোলদাতা আবু বকর অতিরিক্ত সময়ে গোল করার পর জার্সি খুলে উদযাপন করায় ম্যাচে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড খেয়ে উঠে যান মাঠ থেকে।

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লক্ষ্যে আজ ক্যামেরুনের বিপক্ষে মাঠে নামে ব্রাজিল। তবে পুরো ম্যাচে আধিপত্য ধরে রেখেও কাতারের লুসাইল স্টেডিয়াম থেকে পরাজয়ের তিক্ত স্বাদ নিতে হয়েছে ব্রাজিলকে। ভিনসেন্ট আবু বকরের একমাত্র গোলে ব্রাজিলকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়েছে ক্যামেরুন।

অবশ্য ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই লিড নেয়ার সুযোগ পেয়েছিল ব্রাজিল। ব্রাজিলের এন্টনি বল রদ্রিগোর দিকে এগিয়ে দিলেও বল ডি বক্সে যাওয়ার আগেই ক্যামেরুনের ডিফেন্ডাররা বল ক্লিয়ার করতে সক্ষম হন। তবে প্রথমার্ধ জুড়ে ব্রাজিল শুধু এটাকই করেছে প্রতিপক্ষের রক্ষণে। কিন্তু গোলের দেখা পায়নি। ম্যাচের ১৪ মিনিটে ব্রাজিলের ফ্রেড মার্টিনেল্লির উদ্দেশে ক্রস করে বল এগিয়ে দেন, মার্টিনেল্লিও হেডারে গোল করার চেষ্টা করেন, তবে তাকে ব্যর্থ করেন ক্যামেরুনের গোলকিপার এপাসি।

ম্যাচের ২০ মিনিটে সুযোগ পায় ক্যামেরুনও। দলের চৌপো মোটিং ব্রাজিলের ৩ ডিফেন্ডারকে অতিক্রম করে গোলের চেষ্টা করেন তাকে আটকে দেন ব্রাজিলের এডের মিলিটাও। ক্যামেরুন এই একটিমাত্র শট ছাড়া প্রথমার্ধে আর কোনো শট নিতে পারেনি।

প্রথমার্ধে গোলের সবচেয়ে বড় সুযোগ মিস করেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। তার পরিবর্তে ফ্রেড ভলি থেকে গোল করতে চাইলেও তা বার ক্রস করে চলে যায়।

এরপর গ্যাব্রিয়েল মার্টিনেল্লি গোল করার জন্য বেশ কিছু প্রচেষ্টা চালালেও ভাগ্য সহায় হয়নি ব্রাজিলের। প্রথমার্ধ তাই শেষ হয় গোলশূন্য অবস্থায়।

ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে গোলের দারুণ এক সুযোগ পেয়েছিল ক্যামেরুন। ম্যাচের ৫১ মিনিটে এংগুইসার ক্রস থেকে বল পান আবু বকর, কিন্তু তার নেয়া শটটি গোল পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায়। ম্যাচের ৫৬ মিনিটে ব্রাজিলের গ্যাব্রিয়েল মার্টিনেল্লি দুর্দান্ত শট নিলেও তা অবিশ্বাস্যভাবে রুখে দেন ক্যামেরুনের গোলকিপার এপাসি। পরের মিনিটে কর্নার পায় ব্রাজিল। ব্রাজিলের কর্নার থেকে নেয়া শটটিও সেভ করেন এপাসি।

তারপর ব্রাজিল বলের দখল রেখে খেলা নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করে। বেশ কিছু ফ্রি কিক পেলেও গোলের দেখা পায়নি পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল।

এদিকে ম্যাচের ৭৮ মিনিটে আবারো সুযোগ পায় ক্যামেরুন। কিন্তু ব্রাজিলের গোলকিপার এডারসনের কল্যাণে গোল হজম করেনি ব্রাজিল।

তবে ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে ব্রাজিল রক্ষণদূর্গ ভাঙতে সক্ষম হয় ক্যামেরুন। গোল করে দলকে লিড এনে দেন ভিনসেন্ট আবু বকর। কিন্তু গোল উদযাপন করার সময় শার্ট খুলে ফেললে রেফারি হলুদ কার্ড দেখান তাকে। এর আগেও ম্যাচে হলুদ কার্ড দেখায় লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয় ভিনসেন্টকে।

এদিকে গোল খেয়ে যেন মরিয়া হয়ে ওঠে ব্রাজিল। মাঠে ২০টির অধিক শট নিলেও গোলের দেখা পায়নি সেলেকাওরা। শেষমুহূর্তে ব্রুনো গুইমারেস লক্ষ্যভ্রষ্ট করলে আক্ষেপ আরো বাড়ে। ফলে ১-০ ব্যবধানের হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় তিতের দলকে।

তবে ম্যাচ হেরেও জি গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ব্রাজিল। অপর ম্যাচে সার্বিয়াকে ৩-২ ব্যবধানে হারিয়ে পরের রাউন্ডে ব্রাজিলের সঙ্গী হয়েছে সুইজারল্যান্ড।

নকআউট পর্বে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ কোরিয়া। অন্যদিকে সুইজারল্যান্ডের প্রতিপক্ষ পর্তুগাল।


সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট