ভিসির তদন্ত কমিটি, চিঠিই পাননি কমিটি প্রধান

প্রকাশিত: ১২:০০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০২২

ভিসির তদন্ত কমিটি, চিঠিই পাননি কমিটি প্রধান

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবি) আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনায় গত সোমবার একটি তদন্ত কমিটি গঠনের কথা জানিয়েছিলেন উপাচার্য। তবে ছয় দিন পেরিয়ে যাওয়ার পরও শনিবার সকাল পর্যন্ত এই তদন্ত কমিটি কোনো কার্যক্রম শুরু করেনি। এমনকি এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে আনুষ্ঠাানিক কোনো চিঠি পাননি বলেও জানিয়েছেন তদন্ত কমিটির প্রধান গণিত বিভাগের জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক রাশেদ তালুকদার।

বেগম সিরাজুন্নেসা হলের প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে গত ১৩ জানুয়ারি থেকে আন্দোলনে নামেন ওই হলের ছাত্রীরা। ১৬ জানুয়ারি তারা উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিনকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। ওই দিন সন্ধ্যায় ছাত্রদের লাঠিপেটা করে উপাচার্যকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে পুলিশ। এ সময় পুলিশের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ হয়। এতে শিক্ষক-শিক্ষার্থী-পুলিশসহ অন্তত ৫০ জন আহত হন।

এ ঘটনায় রাতেই জরুরি সিন্ডিকেট সভা করে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা ও পরদিন দুপুর ১২টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেন উপাচার্য। এই সিদ্ধান্ত আসার রাতেই উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। বুধবার থেকে তারা শুরু করেন অনশন। শিক্ষার্থীদের এই আমরণ অনশন চলছে।

১৩ জানুয়ারির হামলা-সংঘর্ষসহ সব ঘটনা তদন্ত করতে ১৭ জানুয়ারি আট সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠনের কথা জানান উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। কমিটির প্রধান করা হয় অধ্যাপক রাশেদ তালুকদারকে। এ ছাড়া পাঁচ অনুষদের ডিন, প্রক্টর ও ছাত্রকল্যাণ উপদেষ্টাকে রাখা হয় কমিটিতে।

তদন্ত কমিটির কার্যক্রম সম্পর্কে ওই দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য জহির বিন আলম বলেছিলেন, ‘ঘটনার সূত্রপাত কীভাবে, কারা দোষী এটা আমরা খুঁজে বের করব। বিশ্ববিদ্যালয় শান্ত ছিল, হঠাৎ কেন এমন অশান্ত হলো তা বের করা হবে।’

তদন্ত কমিটিকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছিলেন তিনি।

তবে শুক্রবার সন্ধ্যায় অধ্যাপক রাশেদ তালুকদার জানান, ‘একটি তদন্ত কমিটি গঠনের কথা শুনেছি। তবে এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক কোনো চিঠি এখনও পাইনি। ফলে কমিটির কার্যক্রমও শুরু হয়নি।’

ছয় দিনেও তদন্ত কমিটি চিঠি না পাওয়া প্রসঙ্গে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ আহমদের কোনো বক্তব্য জানা যায়নি। শুক্রবার মোবাইল ফোনে তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

তবে রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রয়েছে। প্রশাসনিক ভবনেও তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। ফলে প্রশাসনিক কার্যক্রম চালানো যাচ্ছে না। এ কারণে তদন্ত কমিটির সদস্যদের এখনও আনুষ্ঠানিক চিঠি দেয়া সম্ভব হয়নি। প্রশাসনিক কার্যক্রম শুরু হলেই চিঠি প্রেরণ করা হবে।’

উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে টানা চার দিন ধরে অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন ২৩ শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে অন্তত ১৩ জন অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

আন্দোলন শুরুর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ শিক্ষকরা একাধিকবার আলোচনার জন্য শিক্ষার্থীদের কাছে আসেন। তারা শিক্ষার্থীদের বলেন, তদন্ত করে এই ঘটনায় যাদেরই দোষ পাওয়া যাবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এমনকি উপাচার্য ফরিদ উদ্দিনও গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সরকার তদন্ত কমিটি করে যদি আমার দোষ পায় তাহলে যে ব্যবস্থা নেবে তা মেনে নেব।’

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা অবশ্য কমিটি নিয়ে ভাবছেন না। এদের একজন সাব্বির আহমদ বলেন, ‘আমরা কোনো তদন্ত কমিটি চাই না। উপাচার্যের পদত্যাগ চাই। তবু শিক্ষকরা তদন্তের কথা বলছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন এটি করেছে। কিন্তু এই কমিটি এখনও কার্যক্রম শুরু না করাই প্রমাণ করে তদন্ত কমিটির নামে আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিতের চেষ্টা করা হচ্ছে।’

এদিকে, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম নাদেলের মাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রী দিপুমনি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনার জন্যে ঢাকায় ডেকে পাঠান। কিন্তু অসুস্থ ও মুমূর্ষু শিক্ষার্থীদের শাবিতে রেখে অনশনরত শিক্ষার্থীরা ঢাকায় যেতে রাজি হয়নি। তারা শিক্ষামন্ত্রীর কাছে প্রস্তাব করে ভিডিওকলের মাধ্যমে আলোচনার অথবা শিক্ষামন্ত্রী তাদের অবস্থা দেখতে সিলেটে আসার। শিক্ষামন্ত্রী তাদের এই প্রস্তাব গ্রহণ না করে তাদেরকে ফের ঢাকায় যাওয়ার প্রস্তাব করেন।

এদিকে, শাবির বর্তমান পরিস্থিতি জানাতে পাঁচ সদস্যের এক শিক্ষক প্রতিনিধি দল শনিবার ঢাকায় গেছেন। শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. তুলসী কুমার দাসের নেতৃত্বে এই কমিটিতে আছেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মোহাম্মদ মুহিবুল আলম, ফিজিক্যাল সায়েন্সেস অনুষদেন ডিন ড. মো. রাশেদ তালুকদার, অ্যাপ্লায়েড সায়েন্সেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আরিফুল ইসলাম, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. খায়রুল ইসলাম রুবেল। তারা আজ শনিবার শিক্ষামন্ত্রীর সাক্ষাৎ করবেন বলে জানা গেছে।


 

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট