সিলেটে ৩দিনব্যাপী মোবাইল জার্নালিজম প্রশিক্ষণ সম্পন্ন

প্রকাশিত: ১০:২০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৫, ২০২১

সিলেটে ৩দিনব্যাপী মোবাইল জার্নালিজম প্রশিক্ষণ সম্পন্ন

সিলেটের সাংবাদিকদের জন্য প্রেস ইনিস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) আয়োজিত তিনদিনব্যাপি মোবাইল জার্নালিজম প্রশিক্ষণ ও সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়েছে।

শনিবার (২৫ ডিসেম্বর) সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থা হল রুমে প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারী সাংবাদিকদের সনদপত্র বিতরণ ও প্রশিক্ষণ সমাপনি অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

সনদপত্র বিতরণ ও প্রশিক্ষণ সমাপনি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম বলেন, সাংবাদিকতা আগের চেয়ে বর্তমানে অনেক প্রতিযোগীতামূলক। তবে এ পেশায় এখন অনেক আগাছা তৈরী হয়েছে। নাম সর্বস্ব অনলাইন, ফেইসবুকে লাইভ দিয়ে অনেকে সাংবাদিক বনে যাচ্ছে। নাম সর্বস্ব অনিয়মিত পত্রিকা ছাপা করে যেনোতেনো হেডলাইন দিয়ে জনগণের মাঝে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করা হচ্ছে। তাই এসব আগাছাগুলো সরিয়ে ফেলার সময় এসেছে। সে জায়গাটি নিয়ন্ত্রণ করা উচিত। এদের নিয়ে রাষ্ট্রীয়ভাবে চিন্তা করা দরকার। যাচাই-বাছাইক্রমে বিষয়টি নিয়ে তথ্য মন্ত্রণালয় কাজ করবে বলেও আশাবাদ ব্যাক্ত করেন তিনি।

পিআইবি’র প্রশিক্ষণ সহকারী বারেক কায়সারের পরিচালনায় সভায় সভা প্রধান ছিলেন পিআইবি মহাপরিচালক ও একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক জাফর ওয়াজেদ।

সভা প্রধান তার বক্তব্যে বলেন, তথ্য ও প্রযুক্তি দিয়ে বর্তমান বিশ্ব এগিয়ে যাচ্ছে। পিছিয়ে নেই বাংলাদেশ। তাই সাংবাদিককের তথ্য ও প্রযুক্তিতে দক্ষতা বাড়াতে এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশের সংবাদ মাধ্যম ও সাংবাদিকদের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পিআইবি দেশের সকল জেলা ও উপজেলয়া আয়োজন করছে নানা ধরণের প্রশিক্ষণ। এর একটি হচ্ছে মোবাইল জার্নালিজম প্রশিক্ষণ। মোবাইল জার্নালিজম প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সাংবাদিকরা তাদের কাজের ধরণ ও দক্ষতা আরো বাড়িয়ে নিবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

তিনদিনব্যাপি মোবাইল জার্নালিজম প্রশিক্ষণ ও সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- পিআইবির পরিচালক (প্রশাসন, অধ্যয়ন ও প্রশিক্ষণ) মোহাম্মদ আফরাজুর রহমান, পিআইবির উপ-পরিচালক মো. জাকির হোসেন, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আল-আজাদ। অনুষ্ঠান শেষে প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারি সিলেটের ৩৫ জন সাংবাদিককে সনদপত্র প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, গত ২৩ ডিসেম্বর থেকে ২৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত পিআইবি আয়োজিত মোবাইল জার্নালিজম প্রশিক্ষণে প্রশিক্ষক হিসেবে ছিলেন ড. কাবিল খান জামিল।


 

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট