অ্যাম্বুলেন্স জলাশয়ে ডুবে মামা-ভাগিনা নিহত

প্রকাশিত: ১০:০৬ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৩০, ২০২১

অ্যাম্বুলেন্স জলাশয়ে ডুবে মামা-ভাগিনা নিহত

মো. নাহিদুল ইসলাম হৃদয়, মানিকগঞ্জ


হেমায়েতপুর-মানিকগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের মিতরা এলাকার কালীবাড়ি মোড় নামক স্থানে একটি যাত্রীবাহী অ্যাম্বুলেন্স নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের জলাশয়ে ডুবে মামা ও ভাগিনা নিহত হয়েছেন।

শনিবার (৩০ অক্টোবর) রাতে গাবতলি বাস টার্মিনাল থেকে ৫ জন যাত্রী নিয়ে ফরিদপুরের উদ্দেশ্যে ছেরে আসা অ্যাম্বুলেন্সটি রাত ২টার দিকে মিতরা এলাকার কালীবাড়ি মোড়ে আসা মাত্র নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের জলাশয়ে ডুবে যায়।

দুর্ঘটনার সময় গাড়ীটিতে চালক ও হেলপারসহ মোট ৭জন আরোহী ছিল। এদের মধ্যে ৫জন তৎক্ষণাৎ বেড়িয়ে আসতে পারলেও পেছনের সিটে থাকা দুই যাত্রী গাড়ীর ভিতরে আটকা পড়ে পানিতে ডুবে মারা যায়।

দুর্ঘটনার সাথে সাথে রাস্তার পাশের বাড়ীর থেকে স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সকে খবরটি জানালে উদ্ধারকারী একটি দল তৎক্ষণাৎ ঘটনা স্থলে পৌঁছে পানির নিচে ডুবে থাকা গাড়ীর ভিতর থেকে আটকে পড়া দুই যাত্রীকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে।

দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া অ্যাম্বুলেন্সের একজন যাত্রী বলেন, গাড়ির মধ্যে আমরা ড্রাইভার হেলপাড় সহ মোট ৭ জন ছিলাম। গাড়িটি হঠাৎ রাস্তা থেকে পানির মধ্যে পড়ে যায় সাথে সাথে ড্রাইভার আর হেলপাড় বেড়িয়ে যায়।আমরা বাকি যে তিনজন বেঁচে গেছি আমাদের সবার বাড়ি একই এলাকায়। রাত ১টার দিকে আমাদের গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরে যাবার জন্য গাবতলি টার্মিনালে গাড়ির অপেক্ষা করছিলাম। কোনো যানবাহন পাচ্ছিলাম না তখন একজন দালালের মাধ্যমে এই এ্যাম্বুলেন্সটিতে বাড়ি ফেরার জন্য উঠেপড়ে। আমরা তিনজন অ্যাম্বুলেন্সটিতে উঠার আগেই মারা যাওয়া এই দুইজন ছিল। দুর্ঘটনার সময় আমাদের সিটের পাশের জানালা খোলাছিল বিধায় আমরা তিনজন গাড়ি ডুবে যাওয়ার আগেই বেড়িয়ে আসতে সক্ষম হই। যে দুইজন মারা গেছে উনাদের সিট বেল্ট বাধছিল তাই উনারা চেষ্টা করেও বের হতে পারে নাই। এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে তৎক্ষণাৎ মানিকগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মো. শরিফুল ইসলাম ও সিনিয়র স্টেশন অফিসার খান এ আলম খানের নেতৃত্বে একটি উদ্ধারকারী দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে পানির নিচ থেকে গাড়ীর ভিতর আটকে থাকা দুই যাত্রীকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করেন।

এ ব্যপারে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মো. শরিফুল ইসলাম বলেন, রাত ২ টা ৩৫ মিনিটে আমাদের স্টেশনে খবর আসে মিতরা বাজারের পাশে একটি হায়েস অ্যাম্বুলেন্স রাস্তার পাশে খাদে পড়ে গেছে। তখন আমাদের স্টেশন থেকে একটি রাটাউট ও একটি অ্যাম্বুলেন্সটি ঘটনাস্থলে আসার পড়ে পানির নিচ থেকে দুইটা ডেড বডি উদ্ধার করা হয়েছে।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত মানিকগঞ্জ সদর থানার এস আই লুৎফর রহমান মৃত যাত্রীদের সাথে থাকা মোবাইল ফোন থেকে পরিচিত নম্বরে যোগাযোগ করে প্রাথমিক ভাবে তাদের পরিচয় নিশ্চিত করেন। তিনি জানান মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে একজনের নাম শাহিন প্রামাণিক (৪৫) পিতা জয়নাল প্রামানিক অপরজন রফিক খান (৩০) এদের দুইজনের বাড়ি ফরিদপুর জেলার চরভদ্রাসন উপজেলার পিলারচর গ্রামে। এরা দুইজন সর্ম্পকে মামা ভাগিনা। এদের বিদেশগামী কোন এক নিকট আত্মীয়কে এয়ারপোর্ট থেকে বিদায় দিয়ে ফরিদপুরের উদ্দেশ্যে ফেরার জন্য এই অ্যাম্বুলেন্সটিতে ভাড়ার উঠেন।

এরপর গাড়ীটি দূর্ঘনার শিকার হয়ে রাস্তার পাশের জলাশয়ে পড়ে তলিয়ে গেলে তারা দুইজন গাড়ির ভিতর আটকে পড়ে মারা যায়। লাশ দুটি এখন সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হবে।নিহতদের পরিবারের সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে তারা আসলে পরিচয় নিশ্চিত করে লাশ হস্তান্তরের ব্যবস্থা করা হবে।

মানিকগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার খানে আলম খান জানান, আমাদের ডুবুরি দল রাস্তায় আছে তারা আসলে গাড়িটি পানি থেকে উপরে তোলার ব্যবস্থা করা হবে।

তিনি আরও জনান, গাড়িতে আটকে পড়া দুইজনের ই সিট বেল্ট বাধাছিল, উদ্ধার করার সময় তাদের সিট বেল্ট কেটে গাড়ি থেকে বেড় করে উপরে তোলা হয়েছে।


  •