বিএনপি-জামায়াত ও তাদের দোসররা কুমিল্লার ঘটনা ঘটিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত: ৬:০০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০২১

বিএনপি-জামায়াত ও তাদের দোসররা কুমিল্লার ঘটনা ঘটিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী

বিএনপি-জামায়াত ও তাদের দোসররা কুমিল্লার ঘটনা ঘটিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড.হাছান মাহমুদ। তিনি বলেছেন,বিভিন্ন রাজনৈতিক বক্তব্য দিয়ে মানুষের কাছাকাছি তারা (বিএনপি) পৌঁছাতে পারেনি। তাই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করছে। রাজনৈতিক ফায়দা লুটার স্বার্থে সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে রাজনীতি করা বিএনপি জামায়াত এবং তাদের দোসর সাম্প্রদায়িক উগ্রগোষ্ঠীর সাথে মিলে কুমিল্লার ঘটনা ঘটিয়েছে।

রোববার দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ে সমসাময়িক ইস্যুতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন,কুমিল্লার ঘটনা ভিডিও করেছে। ভিডিও করে সেটি আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছে।এগুলো কী উদ্দেশ্যে করা হয়েছে? উদ্দেশ্য খুবই স্পষ্ট।দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা স্থিতিশীল আছে,দেশ করোনা মহামারীর মধ্যেও এগিয়ে যাচ্ছে,মহামারিও নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

`সরকার দেশের নানারকম সমস্যাকে পাশ কাটানোর জন্য এ কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছে এবং বিরোধী বা অন্য দলের উপর দোষ চাপাচ্ছে’- বিএনপির এমন অভিযোগের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন,আরো অনেকেই বলেছেন। তাদের কাছে জানতে চাই,দেশে আর কী কী বড় সমস্যা আছে? করোনা নিয়ে তো অনেক কথা বলেছেন। করোনা নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে। শনিবার সংক্রমণের হার ছিল দুই শতাংশের নিচে। টিকাও ব্যাপক সংখ্যক জনগোষ্ঠীকে দেয়া হয়েছে। স্কুল-কলেজও খুলে গেছে। অথচ করোনা নিয়ে অনেক সমালোচনা হয়েছে, টিকা নিয়েও অনেক সমালোচনা হয়েছে।

হাছান মাহমুদ বলেন,সরকার সবসময় চায় দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা স্থিতিশীল থাকুক, দেশের অগ্রগতির জন্য। যে কোনো সরকার, এটা যদি বিএনপিও ক্ষমতায় থাকে, তারাও সাধারণত চাওয়ার কথা। পৃথিবীর সব দেশের সরকারই সাধারণভাবে চায়, দেশে শৃঙ্খলা স্থিতিশীল থাকুক। বিএনপি কি চায় অবশ্য জানি না। তারা ক্ষমতায় থাকতে তো অনেক কিছুই করেছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপির মধ্যে অনেক নেতা আছে, যারা এ দেশটা চায় না। যারা সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করে তারাই এ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার লক্ষ্যে কুমিল্লায় এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এটি নিশ্চয়ই বের হবে ,কারা ওখানে কোরআন শরীফ রেখে গিয়েছিল। বের হওয়ার পর সবকিছু দিবালোকের মতো স্পষ্ট হবে।

তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব পাগল না দেশের মানুষ পাগল? উনার বক্তব্যে মনে হয় রাস্তায় যে পাগল ঘুরে বেড়ায় সে মনে করে সবাই পাগল ও ভালো। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবের বক্তব্যটাও সেরকম।

মন্ত্রী বলেন, এই সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে কারা রাজনীতি করে? সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী নিয়ে কারা রাজনীতি করে? যারা দেশটাকে তালেবানি রাষ্ট্র বানাতে চায়,তারা তো বিএনপি জোটের মধ্যেই আছে।


সূত্র : ইউএনবি


 

  •