দুর্গাপূজা শেষ হচ্ছে আজ, বেলা ৩টা থেকে প্রতিমা বিসর্জন

প্রকাশিত: ৮:৩৩ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০২১

দুর্গাপূজা শেষ হচ্ছে আজ, বেলা ৩টা থেকে প্রতিমা বিসর্জন

আজই মর্ত্য ছাড়বেন দুর্গতিনাশিনী, ফিরবেন স্বামী গৃহ কৈলাশে। বছরের আশ্বিন মাসের শুক্ল পক্ষের পঞ্চমী তিথি থেকে দশমী তিথিতে জগজ্জননী ঊমা দেবী পিতৃগৃহ থেকে বেরিয়ে যান। মহাষষ্ঠীর দিন অকাল বোধনে স্বামীর ঘর কৈলাশ থেকে দেবীর অধিষ্ঠান হয়েছিল ঠাকুরঘরে বা পূজামÐপে। ষষ্ঠী থেকে দশমীর বিদায়ের সময় একদিকে আনন্দের জোয়ার, আবার অন্যদিকে বিষাদের সুর বাজে। আজ বিজয়া দশমী। সকালে দশমী পূজার পর দর্পণ বিসর্জন করা হবে।

শরতের শুক্লপক্ষে ভক্তের অকাল বোধনে মা-দুর্গা – দেবী ল²ী, দেবী সরস্বতী, কার্তিক, গণেশ, কলা বৌ এবং মাথার উপর শিবকে নিয়ে সপরিবারে আসেন ধরাধামে বা মÐপে। সাথে থাকেন অসুর, দুর্গার বাহন সিংহ, ল²ীর বাহন পেঁচা, সরস্বতীর বাহন শ্বেতহংস, কার্তিকের বাহন ময়ূর, গণেশের বাহন ইঁদুর। বিদায় বেলায় সকলকে নিয়ে মা উমা ফিরবেন কৈলাশে।

আদ্যাশক্তি মহামায়া মর্ত্যে আসেন সকল অশুভ শক্তি বিনাশ করে শান্তি প্রতিষ্ঠা এবং অধর্ম নির্মূল করে ধর্ম সংস্থাপন করতে। দেবী মহামায়া অসুরী শক্তির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে বিজয়ী হয়ে মর্ত্যে শান্তি প্রতিষ্ঠা করেন।

বৃহস্পতিবার ছিল মহানবমী। নবমী পূজা শেষে যজ্ঞাদি অনুষ্ঠিত হয়। যজ্ঞ নবমী পূজার মধ্য দিয়ে ভক্তরা দুর্গতিনাশিনী, মহিষাসুর মর্দিনীর আরাধনা করেন। মহানবমীর রাতেও নগরীর পূজামন্ডপগুলোতে ভক্ত, পুণ্যার্থী ও দর্শনার্থীদের ভিড় ছিল লক্ষ্যণীয়।

নগরীর দাড়িয়াপাড়ার চৈতালী সংঘ, দাড়িয়াপাড়ার ঝুমকা সংঘ, শ্রীশ্রী রক্ষাকালি বাড়ি, সনাতন যুব ফোরাম, মির্জাজাঙ্গালের দত্ত কুঠির, জল্লারপাড়ের সত্যম শিবম সুন্দরম, লামাবাজারের তিন মন্দির, মাছুদিঘিরপাড়ের ত্রিনয়নী, মাছিমপুর মণিপুরীপাড়ার শ্রীশ্রী গোপীনাথ জিউর মন্দির ও মাছিমপুর কুরি পাড়া, চালিবন্দর, কাস্টঘর, যতরপুর, তোপখানা, শেখঘাট, রায়নগর, ঝেরঝেরিপাড়া, শিবগঞ্জ, গোপালটিলা, বালুচর, দুর্গাবাড়ি, আম্বরখানা, করেরপাড়া, আখালিয়া কালিবাড়ি, গোটাটিকর, জৈনপুর ও শিববাড়ি পূজামÐপে মানুষের ভিড় দেখা যায় ।

এদিকে, আজ শুক্রবার বিকাল ৩টা থেকে নগরীর সুরমা নদীর চাঁদনীঘাটে শারদীয় দুর্গাপূজার প্রতিমা বিসর্জন কার্যক্রম শুরু হয়ে দ্রæততম সময়ের মধ্যে শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে। এছাড়া, অনুষ্ঠানটি ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য্যের সাথে পরিচালনা করার জন্য প্রতিটি প‚জা কমিটির প্রতি আহŸান জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ প‚জা উদযাপন পরিষদ, সিলেট জেলা ও মহানগর শাখার মনিটরিং সেলের এক জরুরি সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। গতকাল সন্ধ্যায় নগরীর ব্রহ্ম মন্দিরে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সিলেট জেলা প‚জা উদযাপন পরিষদের সভাপতি গোপিকা শ্যাম পুরকায়স্থ চয়নের সভাপতিত্বে ও সিলেট মহানগর প‚জা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্তের পরিচালনায় মনিটরিং সেলের জরুরি সভায় শারদীয় দুর্গাপ‚জার প্রস্তুতি পর্ব থেকে শুরু হওয়া প্রতিমা ভাংচুর, মহা অষ্ঠমীর দিনে কুমিল্লা, চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, গাজীপুর, কক্সজার, বান্দরবান, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় প্রতিমা ভাঙচুর, মন্দিরে অগ্নিসংযোগ, বাড়ি ঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রতিটি ঘটনার দৃষ্টান্তম‚লক শাস্তির দাবী জানানো হয়। মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনার বিষয়টি বিভাগীয় তদন্ত করে দোষীদের দৃষ্ঠান্তম‚লক শাস্তির দাবি করেন।

মনিটরিং সেলের জরুরি সভায় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ প‚জা উদযাপন পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মৃত্যুঞ্জয় ধর ভোলা, সিলেট জেলা ঐক্য পরিষদের সভাপতি এডভোকেট প্রদীপ কুমার ভট্টাচার্য্য, মহানগর সভাপতি সুব্রত দেব, সিলেট জেলা ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কৃপেশ পাল, এডভোকেট বিজয় বিশ্বাস, জেলা প‚জা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট রঞ্জন ঘোষ, সদর উপজেলা প‚জা পরিষদের সভাপতি নীলেন্দ্র ভ‚ষণ দে অনুপ, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা প‚জা পরিষদের সভাপতি অখিল বিশ্বাস, দক্ষিণ সুরমা প‚জা পরিষদের সভাপতি মনমোহন দেবনাথ প্রমুখ।

সভায় আরো জানানো হয়, প্রতিমা বিসর্জনের সকল প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। প্রতিমা বিসর্জনের সময় শোভাযাত্রা বর্জন করা হয়েছে। বিসর্জনকালে শিশু-মহিলা ও বৃদ্ধ-বৃদ্ধা (বয়স্ক ব্যক্তিদের) সাথে না রাখার অনুরোধ জানানো হয়েছে। এছাড়া, প্রতিমা বহনকালে রাস্তায় মাইক ও সাউন্ড সিস্টেম না বাজানোর জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে।


 

  •