করোনায় আরো ২৪১ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত: ৬:১৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৮, ২০২১

করোনায় আরো ২৪১ জনের মৃত্যু

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে আরো ২৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় শনাক্ত হয়েছে আরো ১০ হাজার ২৯৯ জন।

রোববার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, নতুন মৃত্যুসহ দেশে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২২ হাজার ৬৫২ জনে। এ পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ লাখ ৫৩ হাজার ৬৯৫ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ৪২ হাজার ৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এই সময় শনাক্তের হার শতকরা ২৪.৫২ শতাংশ। মৃত্যুর হার ১.৬৭ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে ১৬ হাজার ৬২৭ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ১২ লাখ ৫ হাজার ৪৪৭ জন। সুস্থতার হার ৮৯. ০৫ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা বিভাগে ১০৫ জন, খুলনা বিভাগে ৩০ জন, চট্টগ্রামে ৫৯ জন, রংপুরে ১০ জন, বরিশালে ১২ জন, সিলেটে ৭ জন, রাজশাহীতে ১২ জন এবং ময়মনসিংহে ৬ জন মারা গেছেন।

বিশ্ব পরিস্থিতি

বিশ্বে মহামারী করোনাভাইরাসের নতুন ডেল্টা ধরনের কারণে প্রতিদিনই বাড়ছে রোগী ও আক্রান্তদের মৃত্যু সংখ্যা। যুক্তরাষ্ট্রের জনস্ হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, রবিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা ৪২ লাখ ৮৫ হাজার ৫৯৫ জন এবং মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২০ কোটি ২২ লাখ ১১ হাজার ৪৩৮ জনে দাঁড়িয়েছে।

এ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে মোট ৪৩৭ কোটি ৬৮ লাখ ৮ হাজার ৯৯৭ ডোজ করোনার টিকা প্রদান করা হয়েছে।

করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ আমেরিকায় এখন পর্যন্ত মোট শনাক্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৫৭ লাখ ৩৮ হাজার ৭০০ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছে ৬ লাখ ১৬ হাজার ৭১৩ জন।

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ভারতে মোট ৩ কোটি ১৮ লাখ ৯৫ হাজার ৩৮৫ জনের সংক্রমণ নিয়ে বিশ্বে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংক্রমণের স্থানে অবস্থান করছে। একই সময়ে মৃত্যু সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ২৭ হাজার ৩৭১ জনে।

অপরদিকে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৬২ হাজার ৭৫২ জনে। দেশটিতে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২ কোটি ১ লাখ ৫১ হাজার ৭৭৯ জন। মৃত্যুর দিক দিয়ে দেশটির অবস্থান দ্বিতীয়।
সূত্র : ইউএনবি

বুধবার থেকে চলবে গণপরিবহন, প্রজ্ঞাপন জারি

বিধিনিষেধ শিথিল করে প্রজ্ঞাপন জারি, কার্যকর ১১ আগস্ট থেকে। এর ফলে আগামী বুধবার থেকে সব অফিস খোলা থাকবে, চলবে গণপরিবহন।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ রোববার এই আদেশ জারি করেছে। এতে বলা হয়েছে, শপিংমল ও বাজার সকাল ১০টা থেকে শুরু করে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, গত ৩ আগস্ট অনুষ্ঠিত কোভিড-১৯ সংক্রমণের পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার সিদ্ধান্ত দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থা, অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সচল রাখা এবং সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনায় বিধি-নিষেধের অনুবৃত্তিক্রমে কিছু শর্ত সংযুক্ত করে সার্বিক কার্যাবলী/চলাচলে বিধি-নিষেধ আরোপ করা হলো।

শর্তগুলো হলো-

১. সকল সরকারি/আধাসরকারি/স্বায়ত্তশাসিত/বেসরকারি অফিস, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণপূর্বক খোলা থাকবে।

২. বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট আদালতসমূহের বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করবে।

৩. সড়ক, রেল ও নৌ-পথে আসন সংখ্যার সমপরিমাণ যাত্রী নিয়ে গণপরিবহন/যানবাহন চলাচল করতে পারবে। সড়ক পথে গণপরিবহন চলাচলের ক্ষেত্রে স্থানীয় প্রশাসন (সিটি করপোরেশন এলাকায় বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা পর্যায়ে জেলা প্রশাসক) নিজ নিজ অধিক্ষেত্রের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সংশ্লিষ্ট দপ্তর/সংস্থা, মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের সাথে আলোচনা করে প্রতিদিন মোট পরিবহন সংখ্যার অর্ধেক চালু করতে পারবে।

৪. শপিংমল/মার্কেট/দোকানপাট সমূহ সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণপূর্বক খোলা রাখা যাবে।

৫. সকল প্রকার শিল্প-কলকারখানা চালু থাকবে।

৬. খাবারের দোকান, হোটেল-রেস্তোরাঁয় অর্ধেক আসন খালি রেখে সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে।

৭. সকল ক্ষেত্রে মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করতে হবে এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তৃক প্রণীত স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে।

৮. গণপরিবহন, বিভিন্ন দফতর, মার্কেট ও বাজারসহ যেকোনো প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে অবহেলা পরিলক্ষিত হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দায়িত্ব বহন করবে এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লিখিত বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করেছে মন্ত্রীপরিষদ বিভাগ।


 

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট