সিলেটে সিনোফার্মের টিকা প্রয়োগ শুরু

প্রকাশিত: ৩:১৫ অপরাহ্ণ, জুন ১৯, ২০২১

সিলেটে সিনোফার্মের টিকা প্রয়োগ শুরু

দীর্ঘ বিরতির পর সিলেটে আবারও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে টিকা প্রয়োগ শুরু হয়েছে। চীন সরকারের উপহার দেওয়া সিনোফার্মের টিকার প্রথম ডোজ প্রয়োগ শুরু হয়েছে আজ (শনিবার) সকালে।

সকাল নয়টা থেকে ওসমানী মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের টিকা প্রয়োগের মাধ্যমে দ্বিতীয় ধাপের এ টিকা কর্মসূচি শুরু হয়। সিনোফার্ম কোভিড-১৯ টিকা কেন্দ্র পরির্দশন করেন সিলেট সিটি কর্পোরেশেনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম সুমন জানান, ‘প্রথমদিন ওসমানী মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া হয়েছে। শুক্রবার ও সরকারি ছুটির দিন ছাড়া টিকাকেন্দ্রগুলো প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।’

প্রত্যেকটি বুথে ২জন করে ভ্যাক্সিনেটর ও ৩ জন স্বেচ্ছাসেবক দায়িত্ব পালন করবে। কেন্দ্রে একটি মেডিকেল টিম থাকবে, সার্বক্ষনিক কেন্দ্রের ফোকাল পয়েন্ট টিকাদান কার্যক্রম তদারকি করবেন।

টিকা  কর্মসূচীর নির্দেশনায় বলা হয়েছে, প্রথম ডোজ নেয়ার ২৮ দিন পর ২য় ডোজ প্রদান করতে হবে। কেন্দ্র পরিবর্তন করে ভ্যাকসিন প্রদান করা যাবে না। এব্ং পূর্বে অন্য কোন কোভিড ভ্যাকসিন গ্রহন করেছেন এমন কাউকে এই ভ্যাকসিন প্রদান করা যাবে না এবং অনিবন্ধিত কোন ব্যক্তি এই ভ্যাকসিন নিতে পারবেন না।

এছাড়া অন্য কোন দেশ থেকে টিকার ১ম ডোজ নিয়ে আসা কোন ব্যক্তিকে ২য় ডোজ দেয়া যাবে না।

যারা ২য় ধাপের এই ভ্যাকসিন কর্মসূচীতে টিকা নিতে পারবেন তারা হলেন- কোভিড-১৭ ভ্যাকসিনের জন্য উল্লেখিত নির্ধারিত কেন্দ্রে ইতিমধ্যে যেসকল ব্যক্তি রেজিস্ট্রেশন করেছেন কিন্তু এখনো পর্য্ন্ত কোন ভ্যাকসিন পাননি তাদেরকে এই ভ্যাকসিন দেয়া হবে। অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারী স্বাস্থ্যকর্মী ও পুলিশ সদস্যবৃন্দ যারা আগে ভ্যাকসিন গ্রহন করেননি, অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত বিদেশগামী বাংলাদেশি অভিবাসিকর্মী যারা জনশক্তি উন্নয়ন ব্যুরো কতৃক অনুমোদিত, সরকারী ও বেসরকারী মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের শিক্ষার্থীগণ, সরকারী নার্সিং ও মিডওয়াইফারি, সরকারী ম্যাটস এবং আইএইচটি এর শিক্ষার্থীগণ, সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলের শিক্ষার্থীগণ, বিডা- এর আওতাধিন ও অন্যান্য জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়নমূলক সরকরী প্রকল্প কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত কর্মকর্তা কর্মচারীগণ, মরদেহ সৎকার কাজে নিয়োজিত কর্মী যারা পূর্বে কোন ভ্যাকসিন গ্রহন করেননি এবং বাংলাদেশে বসবাসরত চীনা নাগরিকবৃন্দকে এই টিকা দেয়া হবে।

যারা ২য় ধাপের এই ভ্যাকসিন কর্মসূচীতে টিকা নিতে পারবে না তারা হলেন- অনুর্ধ্ব ১৮ বছর বয়সী জনগোষ্ঠি, গর্ভবতি ও স্তন্যদানকারী মায়েরা, ভ্যাকসিন গ্রহনের সময় জ্বর আক্রান্ত বা অসুস্থ্ কোন ব্যক্তি, যাদের ভ্যাকসিনজনিত এলার্জির ইতিহাস রয়েছে, ১ম ডোজ টিকা গ্রহনের পর মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলে তাদেরকে এই ভ্যাকসিন প্রদান করা যাবে না। এছাড়া অনিয়ন্ত্রিত দীর্ঘ মেয়াদী রোগ যেমন- ডায়বেটিস, উচ্চরক্তচাপ, হৃদরোগ, স্ট্রোক, যক্ষা, এজমা/শ্বাস কষ্ট, কিডনী রোগ, ক্যান্সার আক্রান্ত, ডায়ালাইসিস নিচ্ছেন এমন ব্যক্তি এবং স্বল্প রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জনগোষ্টির ক্ষেত্রে সাইনোফার্মা ভ্যাকসিন প্রদানে রেজিস্ট্রার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিতে সরকারী নির্দেশনায় বলা হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার (১৭ জুন) চীনের তৈরি সিনোফার্মের ৩৭ হাজার ২০০ ডোজ টিকা সিলেটে এসে পৌঁছেছে । টিকাগুলো সিভিল সার্জন অফিসের ইপিআই কোল্ড স্টোরে রাখা হয়েছে।


 

  •