এক মাসে স্বেচ্ছায় রক্ত দিয়েছেন এসএমপি’র ৫১ পুলিশ সদস্য

প্রকাশিত: ৮:৪৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১১, ২০২১

এক মাসে স্বেচ্ছায় রক্ত দিয়েছেন এসএমপি’র ৫১ পুলিশ সদস্য

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের ৫১ সদস্য গত এক মাসে স্বেচ্ছায় রক্তদান করেছেন। তাদের প্রত্যেককে পুরস্কারের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানিয়েছেন এসএমপি কমিশনার মো. নিশারুল আরিফ।

সোমবার (১১ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় পুলিশ লাইন্সে সিলেট মহাগর পুলিশ (এসএমপি)-এর মাসিক কল্যাণ সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, প্রতিটি পুলিশ সদস্যকে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালনের সাথে সাথে নিজের স্বাস্থের প্রতি যত্নবান হওয়ার আহ্বান জানান। ভালো কাজের জন্য যেমন পুরস্কার প্রদান করা হয়, তেমনি কোনো পুলিশ সদস্য খারাপ কাজ করলে তাকে অবশ্যই শাস্তি দেয়া হয়।

তিনি সকল পুলিশ সদস্যদের জনগণের পুলিশ হয়ে কাজ করার নির্দেশ প্রদান করে বলেন, পুলিশের যে কোন প্রকার দুর্নীতি ও মাদক সম্পৃক্ততায় জিরো টলারেন্সে কঠোর প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে। পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন, ড্রেসকোড মেনে চলা, শৃঙ্খলা বজায় রেখে আয়নাল ডিউটি করা, সেখানকার অনৈতিক অপ্রীতিকর কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থেকে চাকুরী করার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করেন।

এ কল্যাণ সভায় সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের সকল স্তরের অফিসার ও ফোর্স উপস্থিত ছিলেন।

অপরদিকে, দুপুর সাড়ে ১২টায় সিলেট শাহজালাল উপশহরস্ত এসএমপি’র সদরদপ্তর-এর সভাকক্ষে মাসিক অপরাধ সভা অনুষ্ঠিত হয়। পুলিশ কমিশনারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এসএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সদর ও প্রশাসন) পরিতোষ ঘোষ, উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক)ফয়সল মাহমুদ, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর ও প্রশাসন)ব তোফায়েল আহমদ, উপ-পুলিশ কমিশনার (প্রসিকিউশন) মো. জাবেদুর রহমান, উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মো. সোহেল রেজা পিপিএম, উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) সঞ্জয় সরকার এবং র‌্যাব ৯ এর প্রতিনিধি, পি.বি.আই সিলেটের প্রতিনিধি, হাইওয়ে পুলিশের প্রতিনিধি, ট্যুারিস্ট পুলিশের প্রতিনিধি, রেলওয়ে থানা পুলিশের প্রতিনিধি সহ সকল অতি. উপ-পুলিশ কমিশনার, সহকারী পুলিশ কমিশনার ও সকল থানার অফিসার ইনচার্জগণ উপস্থিত ছিলেন।

এ সভায় সকল থানার অফিসার ইনচার্জগণ তাদের থানা এলাকার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি তুলে ধরেন। তদন্তাধীন মামলাসমূহ দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য এসএমপি’র সকল থানার অফিসার ইনচার্জদের নির্দেশ প্রদান করেন পুলিশ কমিশনার। মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অব্যাহত রাখা উপর গুরুত্ব আরোপ করেন এবং যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের সর্বদা তৎপর থাকার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেন।

এছাড়াও পুলিশের সেবা সমূহ জনগণের দৌড়গোড়ায় পৌছে দেওয়ার জন্য সকলকে নির্দেশনা প্রদান করেন এবং মানবিক কাজে সকলকে সহযোগীতা করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন নিশারুল আরিফ।


 

  •  

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট