রায়হানকে হত্যা : আরও তিন পুলিশ কর্মকর্তা প্রত্যাহার

প্রকাশিত: ৬:৩৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৫, ২০২০

রায়হানকে হত্যা : আরও তিন পুলিশ কর্মকর্তা প্রত্যাহার

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে রায়হানের মৃত্যুর ঘটনায় আরও তিন পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এ তিনজন হলেন- এসএমপির কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) সৌমেন মিত্র, উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল বাতেন এবং বন্দর বাজার ফাঁড়ির এএসআই কুতুব আলী।

বুধবার সন্ধ্যায় সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিটি সার্ভিস) বি এম আশরাফ উল্যাহ তাহের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ‘পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে এক আদেশে এ তিনজনকে সাময়িক বরখাস্ত (সাসপেন্ড) করা হয়। এর মধ্যে বাতেন এ মামলার প্রথম তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন। আর এএসআই কুতুবকে আগেই প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে রাখা হয়েছিল।’

উল্লেখ্য, গত ১১ অক্টোবর রাতে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে পুলিশের নির্যাতনের শিকার হন রায়হান আহমদ। পরদিন সকালে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে তিনি মারা যান।

এদিন রাতেই কোতোয়ালি মডেল থানায় অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন নিহতের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার। এ ঘটনার পরদিনই বন্দরবাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই আকবরসহ চারজনকে সাময়িক বরখাস্ত ও তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়।

এছাড়া ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে ফাঁড়ি হতে পালাতে সহায়তা করা ও তথ্য গোপনের অপরাধে ওই ফাঁড়ির টু-আইসি উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাসান উদ্দিনকে গত ২১ অক্টোবর সাময়িকভাবে চাকুরি হতে বরখাস্ত করা হয়। মামলাটি বর্তমানে পিবিআই তদন্ত করেছে।

এখন পর্যন্ত এসআই আকবরসহ ৪ জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তারা সকলেই কারাগারে রয়েছেন।


 

  •  

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট