চট্টগ্রামে বিএনপি’র জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন

প্রকাশিত: ৯:০১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৭, ২০২০

চট্টগ্রামে বিএনপি’র জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন

নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে বন্দর নগরী চট্টগ্রামে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন করেছে চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা বিএনপি। দিবসটি উপলক্ষে মহানগর বিএনপির উদ্যোগে র‌্যালি, সমাবেশ, বিপ্লব উদ্যানে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও আলোচনা সভার আয়োজন করে।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির র‌্যালি-পরবর্তী সমাবেশে কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম বলেছেন, ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর আধিপত্যবাদী চক্রের ষড়যন্ত্র রুখে দিয়ে স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্র রক্ষার দৃঢ় প্রত্যয়ে সিপাহী-জনতা রাজপথে নেমে এসেছিল। ৩ থেকে ৬ নভেম্বর মধ্যরাত পর্যন্ত দেশে এক শ্বাসরুদ্ধকর অনিশ্চিত অবস্থা বিরাজ করছিল। হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়েছিল আমাদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব। সেদিন সিপাহী জনতার ঐক্যবদ্ধ বিপ্লবের মাধ্যমেই রক্ষা পায় সদ্য অর্জিত বাংলাদেশের স্বাধীনতা।

সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা: শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘জাতীয় জীবনে ৭ নভেম্বর এক ঐতিহাসিক দিন। ১৯৭৫ সালের এ দিনে জাতীয় স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সৈনিক-জনতা ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে নেমে এসেছিলেন সকল ষড়যন্ত্র রুখে দিতে। ৭ নভেম্বরের চেতনা আমাদের জাতীয় জীবনে প্রেরণার উৎস। ওই দিন বিপ্লব ও সংহতি দিবসের চেতনাকে ধারণ করে গণজাগরণ সৃষ্টির মাধ্যমে বর্তমানে অগণতান্ত্রিক সরকারের পদত্যাগের দাবিতে রাজপথে নেমে আসতে হবে।’

সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর, সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান।

মহানগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ইয়াসিন চৌধুরী লিটনের পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মো: মিয়া ভোলা, সামশুল আলম, এস কে খোদা তোতন, নাজিমুর রহমান, হারুন জামান, মাহবুবুল আলম, শফিকুর রহমান স্বপন, ইকবাল চৌধুরী, এস এম আবুল ফয়েজ, জাহিদুল করিম কচি, এস এম সাইফুল আলম, শাহ আলম, আবদুল মান্নান, জাহাঙ্গীর আলম দুলাল, আবুল হাসেম, আনোয়ার হোসেন লিপু, গাজী মো: সিরাজ উল্লাহ, মনজুর আলম চৌধুরী মনজু, মো: কামরুল ইসলাম, খোরশেদ আলম, মো: সালাউদ্দিন, মাহাবুবুল হক, শিহাব উদ্দিন মুবিন, হামিদ হোসেন, ইব্রাহীম বাচ্চু, ফাতেমা বাদশা, মনোয়ারা বেগম মনি, এইচ এম রাশেদ খান, ইয়াকুব চৌধুরী, আবদুল বাতেন, মনজুর রহমান চৌধুরী, মামুনুল ইসলাম হুমায়ুন, মো: সেকান্দর, ডা: নুরুল আবচার, আবদুল্লাহ আল হারুন, এ কে এম পেয়ারু, সালউদ্দিন কায়সার লাবু, মো: ইকবাল হোসেন, রফিকুল ইসলাম, মো: ইদ্রিস আলী প্রমুখ।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি
চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, ‘স্বাধীনতা পরবর্তীকালে বাংলাদেশের রাজনীতি একদলীয় বাকশালী শাসন ব্যবস্থায় রূপ পেয়েছিল। এরই ধারাবাহিকতায় ওই বছরের ৩ নভেম্বর সেনাবাহিনীর একটি অংশ আধিপত্যবাদে প্ররোচিত হয়ে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে সপরিবারে ক্যান্টনমেন্টে বন্দি করে। তিনি ৬ নভেম্বর পর্যন্ত ক্যান্টমেন্টে বন্দি ছিলেন।

৭ নভেম্বর সিপাহী জনতা ঐতিহাসিক বিপ্লবের মাধ্যমে তাকে মুক্ত করে আনেন। তাই ৭ নভেম্বর জাতির জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন। ৭ নভেম্বর সৃষ্টি না হলে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হতো না। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান দেশপ্রেম, বহুদলীয় গণতন্ত্র ও সার্ক-প্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন উন্নয়মুখী কর্মকাণ্ডের কারণে একজন জনপ্রিয় রাষ্ট্রনায়কে পরিণত হয়েছিলেন। একটি মহল জিয়াউর রহমানের সফলতায় ঈর্ষান্বিত হয়ে এখনো জিয়া পরিবার ও বিএনপির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

তিনি শনিবার সকালে বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম নগরীর ২ নম্বর গেইটস্থ বিপ্লব উদ্যানে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির পুষ্পস্তবক অর্পণ-পরবর্তী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব মোস্তাক আহমেদ খানের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা আলী আব্বাস, অধ্যাপক শেখ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, এনামুল হক এনাম, অ্যাডভোকেট ইফতেখার হোসেন চৌধুরী মহসিন, অ্যাডভোকেট এস এম ফোরকান, মন্জুর উদ্দিন চৌধুরী, সিরাজুল ইসলাম সওদাগর, কামরুল ইসলাম হোসাইনী, মোহাম্মদ খোরশেদ আলম, হুমায়ূন কবির আনসার, ভি পি মোজাম্মেল হক, জিয়াউদ্দিন চৌধুরী আশফাক, মো: রফিক, মোহাম্মদ ইসহাক চৌধুরী, জামাল হোসেন, লায়ন হেলাল উদ্দীন, জসিম উদ্দীন, জাহেদ হোসেন চৌধুরী, নুরুল কবির, অ্যাডভোকেট আবু তাহের, আবুল কালাম আবু চেয়ারম্যান, মো: সালাউদ্দিন, আফিল উদ্দিন আহমদ, ইউনুস চেয়ারম্যান প্রমুখ।

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপি
১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর থেকে ৭ নভেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশের জন্য ছিলো এক দুঃস্বপ্নের প্রহর। এই চার দিন দেশে কোনো সরকার ছিলো না। স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার দৃপ্ত শপথে সিপাহী-জনতার ঐতিহাসিক অবিস্মরণীয় গণঅভ্যুত্থান হয়, আর এতে মুক্ত হয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। পথে পথে সিপাহী-জনতা আলিঙ্গন করেছে, হাত মিলিয়েছে, স্লোগান দিয়েছে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, জিয়াউর রহমান জিন্দাবাদ।

শনিবার বিকেল চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপি আয়োজিত জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম ষোলশহর বিপ্লব উদ্যানে পুষ্পমাল্য অর্পণ ও আলোচনা সভায় বক্তারা উপরোক্ত কথা বলেন।

উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি এম এ হালিমের সভাপতিত্বে ও জেলা বিএনপির সাবেকসহ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু তাহের ও জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি কাজী সালাহ উদ্দিনের যৌথ সঞ্চালনায় এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি চাকসু ভিপি নাজিম উদ্দিন, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নুরুল আমিন, নুর মোহাম্মদ, সেকান্দর চৌধুরী, অধ্যাপক জসিম উদ্দিন চৌধুরী, জেলা কৃষক দলের সভাপতি অধ্যাপক আতিকুল ইসলাম লতিফী, সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম বদরু, জেলা শ্রমিকদলের সভাপতি কামাল পাশা, সালাউদ্দিন চেয়ারম্যান, জাকের হোসেন, মনির তালুকদার, রহমত উল্লাহ, এস এম ফারুক, মোস্তাফা আলম মাসুম প্রমুখ।


  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট