সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক ৬ লেনের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ৩:১৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০২০

সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক ৬ লেনের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক ৬ লেনে রূপান্তর প্রকল্পে সিলেটের লালাবাজার-চন্ডিপুল-হুমায়ুন রশীদ চত্বর পর্যন্ত একইসাথে টেন্ডারভূক্ত করার দাবিতে সদর দক্ষিনের ১০টি ইউনিয়ন ও সিসিকের ২৫, ২৬ ও ২৭ নং ওয়ার্ডের সর্বস্থরের জনসাধারণ’সহ পরিবহণের বিভিন্ন সংগঠপনা নেতৃবৃন্দ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন।

বুধবার সকাল ১১টায় সদর দক্ষিণ নাগরিক কমিটির ডাকে বিভিন্ন এলাকাবাসী ও সামাজিক সংগঠন নিজেদের ব্যানার-ফ্যাষ্টুন নিয়ে দক্ষিণ সুরমার কিনব্রিজ এলাকায় উক্ত মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।

‘সদর দক্ষিণ নাগরিক কমিটি সিলেট’র সভাপতি ও মোল্লারগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ মো. মকন মিয়ার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক, সিটি কাউন্সিলর মো. আজম খানের পরিচালনায় মানববন্ধন বক্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার দেশের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। ঢাকা-সিলেট মহাসড়ককে ৬ লেনে অর্ন্তভূক্ত করায় সর্বস্থরের মানুষের কাছে বর্তমান সরকার প্রশংসীত। যা সিলেটবাসীর দীর্ঘ দিনের স্বপ্ন ও উন্নয়নকে আরো তরান্নিত করবে। কিন্তু ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ৬ লেনের প্রকল্পটি লালাবাজার এসে আটকে যাওয়ার সংবাদ শুনে হতবাক হয়ে পড়েছেন সদর দক্ষিণ তথা পুরো সিলেটবাসী।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, একটি অসাধু চক্র নিজেদের ফায়দা হাসিলের জন্য বৃহত্তর সিলেটে সরকারে উন্নয়ন ও সিলেটবাসীর আশা-আকাংখাকে জ্বলাংজলি দিয়ে লালাবাজার পর্যন্ত ৬ লেন সড়ক আটকে দিয়েছে। যা অত্যান্ত দুঃখজনক। তাই আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন এবং পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের কাছে লালাবাজার-চন্ডিপুল-হুমায়ুন রশীদ চত্বর পর্যন্ত সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক ৬ লেন প্রকল্পে একই সাথে টেন্ডারভূক্ত করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। পাশাপাশি লালাবাজার থেকে পারাইচক পর্যন্ত এশিয়ান হাইওয়ে সড়ক নির্মানের জন্য জোড় দাবি জানাচ্ছি।

সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন- সংগঠনের সহ-সাধারণ সম্পাদক, সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি ও মানববন্ধন কর্মসূচি প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক গোলাম হাদী ছয়ফুল।

কর্মসূচিতে নাগরিক কমিটির সিনিয়র নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- গোলাম হাফিজ লোহিত, মো. আমির উদ্দিন, ফারুক আহমদ, চঞ্চল মাহমুদ ফুলর, মো. আব্দুল আহাদ, আবদুল মালেক তালুকদার, মো. ফরিদুর রহমান, মো. জাহাঙ্গীর খান, শেখ মোঃ লায়েক মিয়া, দিলওয়ার হোসেন রানা, মোঃ ছয়েফ খান, ডা. মিফতাহুল হোসেন সুইট, মোঃ গোলজার আহমদ, আব্দুল হাই আজাদ বাবলা, আক্কাছ উদ্দিন আক্কাই, ইমাদ উদ্দিন নাসিরী, অরিন্দম দাস হাবলু, হোসেন মোহাম্মদ মিনহাজ, বাবুল হোসেন, খলিল মিয়া, শাহ এখলাছ মিয়া, জুনেদুর রহমান চৌধুরী, খন্দকার মহসিন কামরান, আকবর আলী মেম্বার, আব্বাস উদ্দিন জালালী, এ্যাডভোকেট মামুন হোসেন, সোহেল রানা, আব্দুল হান্নান জুয়েল, শামীম আহমদ, রকি আহসান ফরিদ, সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সাংগঠনিক সম্পাদক শাব্বীর আহমদ ফয়েজ, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রাজ্জিক লিটু, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক সোহরাব হোসেন, নির্বাহী সদস্য আকমাম আব্দুল্লাহ, সিলেট জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যকরি সভাপতি রুনু মিয়া, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মুহিম, যুগ্ম সম্পাদক মঈনুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ সামছুল হক মানিক, মিতালী বাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ আহমদ, সিলেট জেলা অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়ন (৭০৭) সভাপতি মোহাম্মদ জাকারিয়া ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ আজাদ মিয়া, সিলেট বিভাগীয় ট্যাংক লরি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মনির হোসেন ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সোহেল আহমদ, সিলেট ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন দক্ষিণ সুরমা আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি মোঃ কাউছার আহমদ, সাধারণ সম্পাদক মারুফ আহমদ, বন্ধন সমাজ উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি আব্দুল মালেক তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক জমির আলী বেপারী প্রমুখ।

সকাল ১০টা থেকে বিভিন্ন এলাকাবাসী ও সামাজিক সংগঠন ব্যানার-ফ্যাষ্টুন ও প্লে-কার্ড নিয়ে মিছিল সহকারে মানববন্ধনে অংশ গ্রহণ ও একাত্মতা পোষণ করেন।

সংগঠনগুলো মধ্যে হচ্ছে, সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপ, সিলেট জেলা বাস মিনিবাস, কোচ, মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন, সিলেট জেলা সিএনজি চালিত অটো রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়ন, সিলেট বিভাগীয় ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়ন, সিলেট জেলা রড-সিমেন্ট-ডেউটিন গ্রুপ, বৃহত্তর চন্ডিপুল ব্যবসায়ী ঐক্য কমিটি, দক্ষিণ সুরমা যুব কল্যাণ পরিষদ, লাউয়াই স্পোটিং ক্লাব, জালালাবাদ সূর্যমুখী যুব সংঘ ঝালোপাড়া চাঁদনিঘাট, বন্ধন সমাজ উন্নয়ন সংস্থা, বরইকান্দি ইয়াং ফ্লাওয়ার ক্লাব, প্রজন্ম স্পোর্টস এন্ড কালচারাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন ধরাধরপুর, পাঠানপাড়া সোনালী সংঘ, শাহ স্পোটিং ক্লাব দক্ষিণ সুরমা, আব্দুল মতিন স্পোটিং ক্লাব পিরিজপুর ও মরহুম আব্দুল জব্বার স্মৃতি পাঠাগার।

কর্মসূচির অন্য দাবিগুলোর মধ্যে ছিল- সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের লালাবাজার-সিলাম-পারাইরচক পর্যন্ত নতুন ৬ লেন বাইপাস সড়ক নির্মাণকাজ অবিলম্বে শুরু, চন্ডিপুল-বঙ্গবীর রোড-স্টেশন রোড-কিনব্রিজ দক্ষিণ প্রান্ত পর্যন্ত সড়ক রোড ডিভাইডারসহ ৪ লেনে রূপান্তর, দক্ষিণ সুরমা উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের ঘরে ঘরে গ্যাস সংযোগ প্রদান, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি)’র আওতাধীন দক্ষিণ সুরমা উপজেলার ১০টি ইউনিয়নকে সিলেট সিটি কর্পোরেশনে অন্তভূক্ত, কিনব্রিজের নীচে থাকা ধাঙ্গড় কলোনি অবিলম্বে স্থানান্তর, কিনব্রিজের নিচসহ দক্ষিণ সুরমা এলাকায় অব্যাহত অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধ এবং সিলেটসহ সারাদেশে ন্যাক্কারজনক ধর্ষণ ঘটনায় জড়িত দূর্বৃত্তদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি প্রদান।

মানববন্ধন ও সভায় সিলেটের সর্বস্তরের জনসাধারণকে দল-মত নির্বিশেষে শান্তিপূর্ণ ভাবে দাবী আদায়ের জন্য এগিয়ে আসার আহবান জানানো হয়।


  •