সিলেটের দুই ল্যাবে আরও ৮৫ জনের করোনা শনাক্ত

প্রকাশিত: ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ, জুন ৯, ২০২০

সিলেটের দুই ল্যাবে আরও ৮৫ জনের করোনা শনাক্ত

সিলেটের দুই ল্যাবে আরও ৮৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সোমবার (৮ জুন) ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ৬০ জন ও শাবি’র ল্যাবে ২৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এরমধ্যে ৬০ জন সিলেট জেলার ও ২৫ জন সুনামগঞ্জ জেলার বাসিন্দা।

ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ পরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় বলেন, আজ ওসমানীর ল্যাবে ১৮৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে ৬০টি পজেটিভ আসে। তারা সকলেই সিলেট জেলার বাসিন্দা।

আক্রান্তদের মধ্যে কানাইঘাট উপজেলার ৩৪ জন, ফেঞ্চুগঞ্জের তিনজন, বালাগঞ্জের একজন, বিশ্বনাথের একজন, গোলাপগঞ্জের চারজন, গোয়াইনঘাটের একজন, জকিগঞ্জের একজন, সদর উপজেলায় ১২ জন এবং বিয়ানীবাজারের একজন। এছাড়া শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে ভর্তি ছাতকের একজন ও মৌলভীবাজারের একজনের রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

নতুন ৬০ জনসহ সিলেট জেলায় এ পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ৯৪২ জনের।

এদিকে সোমবার শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নমুনা পরীক্ষায় আরও ২৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়। তারা সকলেই সুনামগঞ্জের বাসিন্দা।

এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক সহকারি অধ্যাপক জিয়াউল ফারুক জয়। তিনি জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবে ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ২৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়।

এই ২৫ জন নিয়ে সুনামগঞ্জে এ পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩২৯ জনের।

সব মিলিয়ে সিলেট বিভাগে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ১৬৩১ জন। এরমধ্যে সিলেট জেলায় ৯৪২ জন, সুনামগঞ্জে ৩২৯ জন, হগিঞ্জে ২০৮ জন ও মৌলভীবাজারে আক্রান্তের সংখ্যা ১৫২ জন।

আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত ৩৮৭ জন সুস্থ হয়েছেন। এর মধ্যে সিলেটে ১১৫ জন, সুনামগঞ্জে ৮১ জন, হবিগঞ্জে ১২৯ জন এবং মৌলভীবাজারে ৬২ জন রয়েছেন।

আক্রান্তের পাশাপাশি এ বিভাগে করোনায় মৃতের সংখ্যাও বাড়ছে। বিভাগে মোট মারা গেছেন ৩৫ জন। তার মধ্যে সিলেট জেলায় ২৬ জন, মৌলভীবাজারে চার জন, হবিগঞ্জে দুইজন ও সুনামগঞ্জে তিনজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে এ বিভাগে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ১৭৬ জন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৫৫ জন, সুনামগঞ্জে ৯৩ জন, হবিগঞ্জে ২৩ জন এবং মৌলভীবাজারে ৫ জন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

স্বাস্থ্য বিভাগ সিলেট-এর সহকারী পরিচালক ডা: আনিসুর রহমান জানান, করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে ডাক্তার-স্বাস্থ্যকর্মী, ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, র‌্যাব, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি ও ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে বিভিন্ন পেশার লোকজন রয়েছেন। এ পরিস্থিতিতে তিনি সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেন।

গত বছরের ৩১ ডিসেম্বরে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস বাংলাদেশে ধরা পরে গত ৮ মার্চ। আর সিলেট বিভাগে সর্বপ্রথম করোনাভাইরাস ধরা পড়ে গত ৫ এপ্রিল।


  •