খালেদা, তারেক ও ফখরুল করোনায় আক্রান্তের খবর গুজব

প্রকাশিত: ৮:১২ অপরাহ্ণ, জুন ৭, ২০২০

খালেদা, তারেক ও ফখরুল করোনায় আক্রান্তের খবর গুজব

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে নিয়ে কয়েকটি অনলাইন প্রকাশনায় মিথ্যে ও বানোয়াট তথ্য প্রচার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। দলটির একাধিক দায়িত্বশীল জানান, ইতোমধ্যে গত কয়েকমাস ধরে ক্রমাগত বিভিন্ন রকম মিথ্যা খবর প্রচার করা হচ্ছে, যার আদৌ কোনও বাস্তবতা নেই। এরমধ্যে গত কয়েকদিনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান করোনা আক্রান্ত এবং স্থায়ী কমিটির বৈঠকের বিষয়টি উল্লেখযোগ্য বলে জানান দলটির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান।

রবিবার (৭ জুন) বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেন, ‘সম্প্রতি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার পরিবারের সদস্যরা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন— এই সম্পর্কে মনগড়া অসত্য তথ্য প্রকাশিত হচ্ছে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে ও সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে। পরিবেশিত তথ্যগুলো মিথ্যা ও বানোয়াট এবং বিভ্রান্তিমূলক।’

রিজভী অভিযোগ করেন, কিছু ব্যক্তি বা গোষ্ঠী হীন স্বার্থ চরিতার্থ করতে এ ধরনের মনগড়া মিথ্যা তথ্য ছড়াচ্ছে।

বিএনপি নেতা বলেন, আল্লাহতালার অশেষ রহমতে তারেক রহমান ও তার পরিবারের সদস্যরা সুস্থ ও সুরক্ষিত আছেন। তারা যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাস রোধকল্পে প্রবর্তিত সব আইন মেনে চলছেন।

রিজভী বলেন, বিভিন্ন সময়ে জিয়া পরিবার নিয়ে মনগড়া তথ্য পরিবেশন করা হয়েছিল। এখন করোনার দুর্যোগের মধ্যেও তা  অব্যাহত রয়েছে।

বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান  জানান, শুক্রবার (৫ জুন) ‘তিন বছর পর বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক করেছেন খালেদা জিয়া’,এমন একটি গুজব ছড়ানো হয় একটি অনলাইন প্রকাশনা থেকে। অথচ ম্যাডাম বাসায় অসুস্থ ও চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন। তিনি স্থায়ী কমিটির বৈঠক করলে, তা নিয়মিত স্বাভাবিকভাবে সংবাদ মাধ্যমে জানানো হবে। এর আগে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নামে ফেসবুকে অনেক অ্যাকাউন্ট করা হয়, যার একটির সঙ্গেও দলের কোনও সম্পর্ক নেই। ইতোমধ্যে গুলশান থানায় এ বিষয়ে সাধারণ ডায়েরিও করা হয়েছে।

শায়রুর কবির খান বলেন, আমরা চাই, দেশের যেকোনও নাগরিককে নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রদান, বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করা অন্যায়। রাষ্ট্রের উচিত এসব জালিয়াতচক্রকে চিহ্নিত করে গুজব রটানো বন্ধ করা।  বিশেষত, গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বশীলদের নিয়ে মিথ্যা গুজব রটনাকারীদের আইনের আওতায় আনা দরকার। না হলে সাধারণ মানুষের মনেও নানা প্রশ্নের উদ্রেক সৃষ্টি করবে।

এর আগে, রবিবার (৭ জুন) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ বলেন, ‘আমরা সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ বিষয়ে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। একইসঙ্গে তারেক রহমান এবং তার পরিবার সম্পর্কে ভিত্তিহীন ও কাল্পনিক তথ্য প্রচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

রবিবার বিকালে বিএনপির একজন আইনজীবী এ প্রসঙ্গে জানান, দু-একটি অনলাইনের বিষয়ে তারা চেষ্টা করছেন তথ্য নিতে। বিশেষ করে নিউজ পোর্টালের নামে কারা এ কাজটি করছে, এ সম্পর্কে একটি ধারণাগত অবস্থানে পৌঁছেছেন তারা। সেক্ষেত্রে পরের কাজগুলো কী হবে, তা ঠিক এখনই বলা সম্ভব নয়, বলে দাবি করেন এই নেতা।

উল্লেখ্য, বিগত কয়েক মাসে বিএনপির পক্ষ থেকে একাধিকবার সংবাদ সম্মেলনে ও প্রেস বিবৃতিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খালেদা জিয়া, তারেক রহমান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নামে কোনও পেজ অফিসিয়ালি পরিচালনা করা হয় না বলে জানানো হয়েছে।


  •