স্বপ্নের দেশ ইতালি যাওয়া হলো না ভৈরবের ৮ যুবকের

প্রকাশিত: ১১:২৭ পূর্বাহ্ণ, মে ৩০, ২০২০

স্বপ্নের দেশ ইতালি যাওয়া হলো না ভৈরবের ৮ যুবকের

স্বপ্নের দেশ ইতালি যাওয়ার স্বপ্ন পূরণ হলো না কিশোরগঞ্জের ভৈরবের ৯ যুবকের। লিবিয়ায় গত মঙ্গলবার ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ জনকে গুলি করে হত্যা করেছে মানব পাচারকারীরা। নির্মম এই হত্যাকাণ্ডের পর থেকে ভৈরব উপজেলার ৮ জন যুবকের সন্ধান মিলছে না। এরমধ্যে ৫ জন গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে প্রাণ হারিয়েছে বলে জানা গেছে। আর বাকী ৩ জন যুবক আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে সন্তান হারা পরিবারের সদস্যরা। (৩০ মে)শনিবার সকালে এই তথ্য নিশ্চিত করে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজান।

নিহতরা হলেন, উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের মেহের আলীর ছেলে সাদ্দাম হোসেন আকাশ, শ্রীনগর ইউনিয়নের বাচ্চু মিলিটারির ছেলে শাকিব ও শিবপুর ইউনিয়নের শম্ভুপর গ্রামের মুখলেস মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ আলী এবং ভৈরববাজারের অধির চন্দ্র ঋষির রাজন চন্দ্র ঋষি। আর নিহত শাকিলের এখনও সঠিক নাম-ঠিকানা পাওয়া যায়নি।

আহতারা হলেন, সাদেরকপুর ইউনিয়নের মোটুপী গ্রামের আব্দুল আলীর ছেলে সৌরভ আহমেদ সোহাগ, শিবপুর ইউনিয়নের শম্ভুপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তারে ছেলে জানু মিয়া ও পৌর শহরের জগনাথপুরের শফর আলীর ছেলে সজল মিয়া।

নিহত সোহাগের বাবা আব্দুল আলী জানান, প্রায় এক বছর আগে স্বপ্নের দেশ ইতালির যেতে লিবিয়ায় পাড়ি দেন তার সন্তান। সেখানে কয়েক মাস থাকার পর উপজেলার শ্রীনগর গ্রামের পূর্ব পাড়ার সোনা মিয়া ছেলে তানজীরের মাধ্যমে ইতালি যাওয়ার জন্য তিন লাখ টাকার মাধ্যমে চুক্তি হয়। ইতালিতে পৌঁছানোর পর তাকে টাকা পরিশোধ করতে হবে। এরপর থেকে তার সন্তান সোহাগের আর খোঁজ মিলছে না। তিনি আরও জানান, দেশের কিছু অসাধু দালালের খপ্পরে পড়ে ইতালিতে যাওয়ার জন্য জীবন বাজি রেখে টাঙ্গি দিয়ে পাড়ি দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু পরে তাদের জিম্মি করে দেশে পরিবারের কাছে মোটা অংকের টাকা দাবি দালাল চক্রটি। একই সঙ্গে একটি কক্ষে জিম্মি করে বেধড়ক মারপিট করে তারা। দালাল চক্রের কথা টাকা দিতে না পারায় আমার সন্তানকে হারালাম।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে একটি দালাল চক্র মিথ্যে প্রলোভন দেখিয়ে লিবিয়ায় থেকে স্বপ্নের দেশ ইতালির যেতে আগ্রহী করে। পরে তাদের জিম্মি করে দালালরা ইচ্ছে মতো টাকা আদায় করে। আর তাদের কথা মতো টাকা না দিলে বেধড়ক মারপিট করা হয়। শুধু তাই নয়, দিনের পর দিন খাবার না দিয়ে আটকে রেখে বাড়ি থেকে টাকা দিতে চাপ প্রয়োগ করে তারা। ফলে কেউ কেউ বাধ্য হয়ে বাপ-দাদার ভিটে মাটি বিক্রি করে দালালদের হাতে টাকা তুলে দেয়। এসব ঘটনায় অনেকেই এখন নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কিশোরগঞ্জ পুলিশ সুপার (এসপি) মাশরুকুর রহমান খালেদ মুঠোফোনে জানান, লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি যুবককে গুলি করে হত্যা করেছে মানব পাচারকারীরা। এখন পর্যন্ত শতভাগ নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না ভৈরবের সর্বমোট কতজন নিহত এবং আহত হয়েছে। তবে, সমর্থিত বা অসমর্থিত সূত্র জানা গেছে- ভৈরবের ৪ থেকে ৫জন যুবক নিহত এবং ৩জন আহত হয়েছে। গতকাল থেকে আমরা কাজ করছি আজ দিন শেষে আশা করছি সঠিক তথ্য জানা যাবে।


  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট