এলইউ’র শহীদ মিনারে ‘এক স্থাপত্যে সব মা’

প্রকাশিত: ৩:৫৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১১, ২০১৯

এলইউ’র শহীদ মিনারে ‘এক স্থাপত্যে সব মা’

সিলেটের প্রথম বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটিতে ‘এক স্থাপনায় সব মা’ খচিত শহীদ মিনারে বিভিন্ন ভাষায় ‘মা’ শব্দ স্থাপনের কাজ উদ্বোধন করা হয়েছে। সিলেট শহরের উপকন্ঠে প্রকৃতির ছায়াঘেরা অপার সৌন্দর্যে ভরপুর রাগীব নগরে অবস্থিত লিডিং ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাসে শহীদ মিনারে বুধবার সকালে নানা ভাষা আর বর্ণমালায় মায়ের নাম বসানোর কাজ উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান দানবীর ড. সৈয়দ রাগীব আলী।

পৃথিবীর নানা ভাষায় ডাকা মা শব্দটি সংগ্রহ করে শহীদ মিনারজুড়ে শুধু মা কথার আচ্ছাদনে তৈরি হচ্ছে অন্য রকম এক আকর্ষণ। বাংলা ভাষা, বিভিন্ন নৃ-দোষ্ঠী ও আঞ্চলিক উচ্চারণে মা এর পাশাপাশি ইংরেজি থেকে শুরু করে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ভাষায় মায়ের নাম যেন ‘এক স্থাপত্যে সব মা’।

লিডিং ইউনিভার্সিটির স্থাপত্য বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক স্থপতি রাজন দাসের নকশায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব অর্থায়নে প্রায় এক কোটি টাকা ব্যয়ে ১৫ শতক জায়গায় এই শহীদ মিনারের কাজ শেষ পর্যায়ে। সব ভাষায় ‘মা’ শব্দ শহীদ মিনারে বসিয়ে ‘মা’ ও মাতৃভাষাকে সবার উপরে রেখে মায়ের ভাষাকে সম্মান প্রদর্শন করাই এ স্থাপত্য কর্মের লক্ষ্য বলে জানান স্থপতি রাজন দাস।

উদ্বোধনী অনষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান দানবীর ড. সৈয়দ রাগীব আলী বলেন, ‘শহীদ মুক্তিযোদ্ধা এবং ভাষা শহীদদের রক্তের ঋণ আমরা কোনদিন শোধ করতে পারব না। তাঁদের আতœত্যাগের বিনিময়েই আজ আমরা স্বাধীন দেশে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারছি এবং মায়ের ভাষায় কথা বলতে পারছি। তাই সমগ্র জাতির সাথে লিডিং ইউনিভার্সিটি পরিবার প্রতিবছর ভাষা শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধাদেরকে শ্রদ্ধাভরে স্বরণ করে। স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস, বাংলার কৃষ্টি, কালচার ও ঐতিহ্যকে ভবিষ্যত সমাজ ব্যবস্থার দিক নির্দেশনা হিসেবে নিতে এবং বর্তমান তরুণ সমাজকে বিপদগামীতা থেকে রক্ষা করতে হলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় তাদেরকে উদ্ভূদ্ধ করতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘লিডিং ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাসে সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের পদচারনা এই এলাকার বাসিন্দাদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিবে। এটি হবে সিলেটের আধুনিক শিক্ষানগরী।’

মা শব্দগুলো উত্তোলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরী, ট্রেজারার বনমালী ভৌমিক, বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য সৈয়দ আব্দুল হাই, জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. আবেদ হোসেন, রেজিস্ট্রার মেজর (অব) মো. শাহ আলম, পিএসসি, স্থাপত্য বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক স্থপতি রাজন দাস, নির্মাণ প্রতিষ্ঠান হোমল্যান্ড এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আক্তারোজ্জামান, দৈনিক সিলেটের ডাকের নির্বাহী সম্পাদক আবদুল হামিদ মানিক, লিডিং ইউনিভার্সিটির ডেপুটি ডিরেক্টর (অর্থ ও হিসাব) রজতকান্তি চক্রবর্তী, সহকারী রেজিস্ট্রার (জনসংযোগ) মোহাম্মদ আলমগীর হোসাইন প্রমুখ।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট