পুলিশ অ্যাসল্ট মামলায় সিলেট বিএনপি ও অঙ্গ-সংগঠনের ২৯ নেতার জামিন

প্রকাশিত: ৫:৩৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯

পুলিশ অ্যাসল্ট মামলায় সিলেট বিএনপি ও অঙ্গ-সংগঠনের ২৯ নেতার জামিন

১০ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার : সিলেটে বিএনপি ও অঙ্গ-সংগঠনের ২৯ নেতাকর্মীকে জামিন দিয়েছেন আদালত। তারা সকলেই উচ্চ আদালত থেকে জামিন প্রাপ্ত ছিলেন। জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়াতে মঙ্গলবার সিলেট মূখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির হয়ে ফের জামিন আবেদন করেন।

শুনানী শেষে আদালতের বিচারক আব্দুল কাসেম তাদের স্থায়ী জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন বলে জানিয়েছেন জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য মাহবুবুল হক চৌধুরী। এর আগে গত ১২ নভেম্বর উচ্চ আদালত থেকে চার সপ্তাহের জামিন নিয়েছিলেন তারা।

গত ৯ নভেম্বর দুপুরে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সিলেটে বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিরাবাজার থেকে মিছিল বের করেন। নাইওরপুল এলাকায় আসা মাত্রই পুলিশের বাধায় ছত্রভঙ্গ হয়ে যান মিছিলকারীরা। এসময় পুলিশের সাথে তাদের ধাওয়া পালটা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় রাতে ৩০ জনের নাম উল্লেখ’সহ শতাধিক নেতাকমীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন এসএমপির কোতোয়ালী থানার সোবহানীঘাট পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ অনুপ কুমার চৌধুরী। পুলিশ অ্যাসল্টের এ মামলায় উচ্চ আদালত থেকে চার সপ্তাহের জামিনে ছিলেন তারা।

জামিনপ্রাপ্তরা হলেন- সিলেট জেলা যুবদলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইকবাল বাহার চৌধুরী, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাদিকুর রহমান সাদিক, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যাপক আজমল হোসেন রায়হান, জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য ও সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহসভাপতি মাহবুবুল হক চৌধুরী, বিএনপি নেতা মিফতাউল কবীর মিফতা, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক মওদুদুল হক মওদুদ, জেলা বিএনপির সাবেক তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মতিউল বারী খোরশেদ, জেলা বিএনপির সাবেক স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল হক বেলাল, যুবদল নেতা কুহিনুর আহমদ, রুজেল আহমদ চৌধুরী, রিনুক আহমদ, বিএনপি নেতা আব্দুস সামাদ, মহানগর বিএনপির সহ স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক খালেদুর রশীদ ঝলক, মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আজিজুল ইসলাম আজিজ, মহানগর বিএনপির ক্ষুদ্র ঋন বিষয়ক সহ সম্পাদক মোস্তফা কামাল ফরহাদ, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সহ সভাপতি তছির আলী, এমসি কলেজ ছাত্রদলের সাবেক আহবায়ক বদরুল আজাদ রানা, জেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খালিক মিল্টন, ছাত্রদলের সদস্য শাহজাহান চৌধুরী মাহি, শাহপরাণ থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক লাহিন চৌধুরী, জালালাবাদ থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক গোলাম মোস্তফা মামুন, এমসি কলেজ ছাত্রদলের সদস্য সচিব দেলোয়ার হোসেন, জেলা ছাত্রদলের সহ সম্পাদক এম. রাসেল আহমদ, শাহপরাণ থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক শহীদুল কবির কাদির, যুবদল নেতা মোবারক হোসেন ফাত্তাহ, সদর উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক এম এ দেলোয়ার, যুবদল নেতা ফয়জুর রহমান পীর, যুবদল নেতা দেলোয়ার হোসেন দিলু, মদন মোহন কলেজ ছাত্রদল নেতা আফজল হোসেন ও ৬নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক আব্দুল হান্নান।

আসামীদের পক্ষের আইনজীবী ছিলেন- সিনিয়র এডভোকেট আশিক উদ্দিন, সিনিয়র এডভোকেট আব্দুল গফ্ফার, সিনিয়র এডভোকেট এমাদ উল্লাহ শাহীন, এডভোকেট সামিউল ইসলাম, এডভোকেট আতিকুর রহমান সাবু, এডভোকেট শহীদুল ইসলাম, এডভোকেট শফিউল আলম, এডভোকেট আব্দুর রহমান আফজাল, এডভোকেট এমরান আহমদ চৌধুরী।

জামিন শুনানির সময় আদালত প্রাঙ্গনে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির অন্যতম সদস্য, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী -সহ বিএনপি ও অঙ্গ-সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্হিত ছিলেন।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট