জৈন্তাপুরে একটি পরিবারকে সমাজচ্যুত অতঃপর….

সিলেট বিভাগ

জৈন্তাপুরে সমাজচ্যুত করে রাখা পরিবারের উপর হামলা এবং মসজিদে নামাজ পড়তে বাঁধা প্রদানের অভিযোগে থানায় ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।
জৈন্তাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বণিক বলেন, সমাজচ্যুত করে রাখা আইনগত অপরাধ। এজন্য অভিযোগটি তদন্ত সাপেক্ষে মামলা হিসাবে রেকর্ড করা হয়েছে। তিনি বলেন, আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টাও অব্যাহত রয়েছে।
মামলার বিবরণে জানা যায়, জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আপন দু’ভাইয়ের মধ্যে বিরোধ চলছিল। এনিয়ে গ্রাম্য মাতব্বররা নিরীহ পরিবারকে প্রায় দেড় বছর যাবত সমাজচ্যুত করে রাখে। যার ফলে ঐ পরিবারটি চলাফেরা করতে পারছে না। গত শুক্রবার লক্ষীপ্রসাদ দক্ষিণ জামে মসজিদে জুম্মার নামাজ পড়তে যায় সমাজচ্যুত পরিবারের ২জন সদস্য। নামাজ শেষে গ্রাম্য মাতব্বররা ঐ দুই সদস্যকে মসজিদে নামাজ পড়তে আসার কারণ জানতে চায়। এনিয়ে তর্ক বিতর্ক শুরু হলে প্রভাবশালীরা সমাজচ্যুত পরিবারের ২ সদস্যের উপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে বাড়িতে গিয়ে হামলা ও ভাংচুর করে। এসময় শিশু, মহিলা ও বৃদ্ধাসহ ৫জন আহত হয়।
পরবর্তীতে সমাজচ্যুত পরিবারের সদস্য সুরাইয়া বেগম বাদী হয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানায় ৫ জনের নাম উল্লেখ করে অভিযোগ দায়ের করেন। পুলিশ তদন্ত শেষে অভিযোগটি মামলা হিসাবে রেকর্ড করে (যার নং-১১/২০১, তারিখ ১০-১১-২০১৯ইং)।
অপরদিকে, গত শনিবার দুপুর দু’টায় জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বণিক বিষয়টি সরেজমিন তদন্ত করেন। জিজ্ঞাসাবাদে এলাকাবাসী পুরুষ মহিলা ও শিশুরা জানায়, দুই ভাইয়ের মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়। স্থানীয় মাতব্বররা নিরীহ পরিবারের কাছে আর্থিক ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করে না পেয়ে অন্যায়ভাবে পরিবারটিকে সমাজচ্যুত করে রাখে। পরবর্তীতে গত শুক্রবার জুম্মার নামাজ শেষে মারামারি ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে বলে জানান। তারা অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণেরও দাবী জানান।

Leave a Reply