শিশু মাহার লাশ উদ্ধার, সৎ মা’র বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত: ১১:১৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ৬, ২০১৯

শিশু মাহার লাশ উদ্ধার, সৎ মা’র বিরুদ্ধে মামলা

সিলেট শহরতলীর কুমারগাঁয়ে সুরমা নদীতে সৎ মা কর্তৃক ছুঁড়ে ফেলা মাহা’র (৫) লাশ নদীতে ভেসে উঠেছে। খবর পেয়ে শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে পুলিশ নদী থেকে তার লাশ উদ্ধার করে।

এর আগে শুক্রবার (৫ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কুমারগাঁও সুরমা নদীর উপর সেতু থেকে মাহাকে ফেলে দেন সৎ মা সালমা (২৮)। এরপর নিমিষেই সুরমার প্রখর স্রোতে নদীগর্ভে তলিয়ে যায় শিশুটি। পরে উপস্থিত লোকজন ঘটনাটি পুলিশকে অবহিত করেন। খবর পেয়ে জালালাবাদ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারীকে আটক করে থানায় হেফাজতে নেন।

মাহা সিলেট সদর উপজেলার জালালাবাদ থানা এলাকার ফতেহপুর গ্রামের জিয়াউল হকের মেয়ে।

এ ঘটনায় শুক্রবার ওই শিশুর বাবা জিয়াউল হক বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় একমাত্র আসামি করা হয় শিশু মাহার সৎ মা ও জিয়াউলের দ্বিতীয় স্ত্রী সালমা বেগমকে। শনিবার সালমাকে আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

জানা যায়, সালমার মামাতো বোন রাজনা বেগমের সাথে বিয়ে হয় ফতেহপুর গ্রামের জিয়াউল হকের। বনিবনা না হওয়ায় তাদের ডিভোর্স হয়। ওই দম্পত্তির সন্তান মাহা। রাজনাকে ডিভোর্সের পর সালমাকে বিয়ে করেন জিয়াউল হক। সালমা বেগমও দুই বছর বয়সী এক কন্যা সন্তানের জননী। মাহাও এই দম্পত্তির সাথে থাকতেন।

শুক্রবার নিজের সন্তানকে বাড়িতে রেখে সতীনের সন্তানকে নিয়ে বাবার বাড়ি রওয়ানা দেন সালমা। এরপর সেতুতে উঠে মেয়েটিকে নদীতে ছুড়ে ফেলে দেন।

জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওকিল উদ্দিন বলেন, শিশুটির লাশ নদী থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় তার পিতা বাদি হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন বলেও জানান তিনি।

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট