মোমেনের বাসায় বিএনপির শফি চৌধুরী, তোলপাড়

সিলেট বিভাগ

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক এমপি শফি আহমদ চৌধুরী নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তিনি জাতীয় একাদশ নির্বাচনে সিলেট-৩ আসন থেকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত বিএনপির প্রার্থী ছিলেন।

মঙ্গলবার (১৫ জানুয়ারী) রাত সাড়ে দশটার দিকে নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেনের সাথে দেখা করতে তার সিলেটস্থ বাসভবনে যান বিএনপি নেতা শফি চৌধুরী। এসময় তিনি মোমেনকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

এদিকে মঙ্গলবার রাতেই মোমেনকে ফুল দিয়ে অভিনন্দনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। শফি আহমদ চৌধুরীও কি ইনাম আহমদ চৌধুরীর পদাঙ্ক অনুসরন করছেন? এমন প্রশ্ন এখন সিলেটের জনসাধারণের মুখে মুখে।

অপরদিকে বিষয়টি নিয়ে সিলেটের রাজনৈতিক অঙ্গনে তোলপাড় শুরু হয়েছে। অনেকে বিষয়টিকে ইনাম চৌধুরীর ঘটনার সাথে মেলাতে চাইছেন আবার অনেকে নিচ্ছেন স্বাভাবিক ঘটনা হিসেবে।

বিষয়টি নিয়ে সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ বলেন- ‘ঘটনাটি আমিও জেনেছি। এরপর শফি সাহেবের সাথে আমার ফোনে কথা হয়েছে এবং বুধবার সকালে দেখাও হয়েছে। তিনি আমাকে বলেছেন যে- মোমেন সাহেবের ভাইয়ের সাথে তাঁর ভাল সম্পর্ক। সেই সম্পর্কের কারণেই দেখা করতে গিয়েছেন। আর কি কথা হলো তা বলেননি।’

এতে বিএনপির সাংগঠনিক ক্ষতি হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে আলী আহমদ বলেন- ‘মূলত সৌজন্যতাবশত সাক্ষাৎ। এখন বিষয়টিকে কে কিভাবে নেবে তা বুঝতে পারছি না।’

এদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের সাথে দেখা করার ব্যাখ্যা দিয়েছেন সিলেট-৩ আসনে (দক্ষিণ সুরমা-ফেঞ্চুগঞ্জ) বিএনপির পরাজিত প্রার্থী ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য শফি আহমদ চৌধুরী।

বুধবার (১৬ জানুয়ারি) বিকালে সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তিনি জানান, তাঁর নির্বাচনী এলাকার বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দের উপর দায়েরকৃত রাজনৈতিক মামলা সমূহ প্রত্যাহার করতে এবং সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ও চাঁদাবাজি বন্ধ করতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। মঙ্গলবার রাতে মন্ত্রীর সিলেটস্থ বাসায় সৌজন্য সাক্ষাত করে তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রীকে এই অনুরোধ জানান।

বিবৃতিতে শফি চৌধুরী আরো বলেন, বিগত নির্বাচনী কার্যক্রম চলাকালে তার নির্বাচনী এলাকা দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জের অসংখ্য বিএনপি নেতাকর্মীদের উপর রাজনৈতিক ভাবে প্রায় ২০টিরও বেশি মামলা করা হয়েছে। এসব মামলায় নেতাকর্মীরা এখন চরম হয়রানীতে আছেন। তিনি এসব মামলা প্রত্যাহার করতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চান। এছাড়াও শহরতলীর বাদাঘাট এলাকায় তার ক্রয়কৃত সম্পত্তিতে অবৈধভাবে মাটি ভরাটকারী কতিপয় লোকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

এ বিবৃতিতে মোমেনের সঙ্গে তাঁর পারিবারিক সম্পর্কের বিষয় উল্লেখ করে শফি চৌধুরী বলেন, সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত তার বড় ভাই নাসির এ চৌধুরীর বাল্যবন্ধু। এছাড়া বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সহোদর ড. একে আব্দুল মোমেনও তার ছোট বেলার বন্ধু। এই সুবাদে রাজনৈতিক মতাদর্শের ঊর্ধ্বে উঠে তিনি তার ব্যক্তিগত প্রয়োজনে মন্ত্রীর বাসভবনে যান এবং এসব বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। বিষয়টি নিয়ে কোন প্রকার বিভ্রান্তির অবকাশ নেই বলে জানান শফি চৌধুরী। তিনি বলেন, রাজনীতিতে মতবিরোধ থাকতে পারে, তাই বলে ব্যক্তিগত প্রয়োজন এবং সম্প্রিতীবোধ কখনো লোভ হতে পারে না।

প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কয়েকদিন আগে সিলেট-১ আসনে বিএনপি থেকে প্রাথমিকভাবে মনোনয়ন পাওয়া ইনাম আহমদ চৌধুরীও তৎকালীন অর্থমন্ত্রী আব্দুল মুহিত ও ড. একে আব্দুল মোমেনের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে গিয়েছিলেন। পরবর্তীতে চূড়ান্ত মনোনয়ন না পেয়ে তিনি আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার হাতে ফুল দিয়ে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন।

এবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের সাথে দেখা করে তাঁকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান সিলেট-৩ আসনে (দক্ষিণ সুরমা-ফেঞ্চুগঞ্জ) বিএনপির পরাজিত প্রার্থী ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য শফি আহমদ চৌধুরী। ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানোর এ ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে শুরো হয় আলোচনা-সমালোচনা। ইনাম চৌধুরীর মতো তিনিও কি দলবদলের পথ খুঁজছেন এমন প্রশ্নও উঁকি দিচ্ছে সিলেটের রাজনৈতিক অঙ্গনে।

Leave a Reply