বিশ্বনাথে হঠাৎ থেমে গেল নির্বাচনী আমেজ!

প্রকাশিত: ১:১০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৮

বিশ্বনাথে হঠাৎ থেমে গেল নির্বাচনী আমেজ!

মোঃ আবুল কাশেম : সিলেটের বিশ্বনাথে হঠাৎ থেমে গেল নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনার আমেজ।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেট-২ আসনের ২০দলীয় জোটের প্রার্থী বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্ঠা ইলিয়াসপত্নী তাহসিনা রুশদীর লুনা মনোনয়ন স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। এমন খবরে বিএনপি নেতাকর্মীর মধ্যে হতাশ বিরাজ করে। এরপর থেকে ২০দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনায় অংশ নেয়া উৎসবের বিপরীতে তাদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছিল।
বৃহস্পতিবার সকাল থেকে এ আসনের ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী তাহসিনা রুশদীর লুনা সিলেটের বিশ্বনাথের বিভিন্ন গ্রামে ধানের শীষ প্রতিকের সর্মথনে উঠান বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। হঠাৎ দুপুরে খবর আসে তাঁর প্রার্থীতা হাইকোর্ট স্থগিত করেছেন। তাহসিনা রুশদীর লুনা সকাল থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঘুরে ভোট প্রার্থনায় ব্যস্ত ছিলেন। কয়েকটি উঠান বৈঠকে বক্তব্য দেন তিনি। কিন্তু হঠাৎ করে তার মনোনয়ন স্থগিতের বিষয়টি শুনে অন্য অনুষ্ঠানগুলো নেতাকর্মীদের করার নির্দেশ দিয়ে চলে যান তিনি। এমন খবরে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। অনেকেই এমন খবরে হতাশ হয়ে পড়েন। এমন খবর মেনে নিতে নারাজ দলীয় নেতাকর্মীরা। তারপরও তারা প্রচার-প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

জানা গেছে, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তফসিল ঘোষনার পর প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দেন। গত ২ ডিসেম্বর সিলেট জেলা রির্টানিং অফিসার কার্যালয়ে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে এ আসনে ১২জন প্রার্থীর মধ্যে ৩জন স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষনা করা হয়। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ আসনে (বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর) মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন দুইজন প্রার্থী। এরপর উচ্চ আদালতে আপিল করে প্রার্থীতা ফিরে পান দুই স্বতন্ত্র প্রার্থী। তবে এই আসনটি জাতীয় পার্টিকে এবারো ছাড় দেওয়ায় আওয়ামী লীগ কোন প্রার্থী দেয়নি। মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিন ছিল ২৮ নভেম্বর। ঐদিন সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত জেলা রির্টানিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে সিলেট জেলা রির্টানিং কর্মকর্তা জেলা প্রশাসক কাজী এমদাদুল ইসলাম ও উপজেলা সহকারি রির্টানিং অফিসারের কাছে একে একে আনন্দ মুখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন প্রার্থীরা। গত ১০ ডিসেম্বর প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ দেয়া হয়। প্রতিক পাওয়ার পরপরই প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনায় কোমর বেধে মাঠে নামেন। প্রতিদিন প্রার্থীরা প্রত্যন্ত অঞ্চলে চষে বেড়ান। প্রার্থীরা নির্বাচনের প্রতিক পাওয়ার পর মাঠে ছিল তাদের সরব উপস্থিতি। প্রতিদিন ভোটাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়ান। প্রার্থীদের মধ্যে ছিল খুবই আন্তরিকতা। নির্বাচন প্রচার-প্রচারনাকালে কোনো প্রার্থী কেউ কারো বিরুদ্ধে কোনো বক্তব্য দেননি বলে এলাকাবাসী জানান।
কিন্তু গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে হঠাৎ ২০দলীয় জোটের প্রার্থী তাহসিনা রুশদীর লুনার প্রার্থীতা স্থগিত করার খবর আসে। মূহুর্তের মধ্যে খবরটি সিলেট-২ আসনের প্রতিটি এলাকায় জড়িয়ে পড়ে। এতে দলীয় নেতাকর্মীর পাশাপাশি সাধারণ ভোটাররাও হতাশ হয়ে পড়েন।

প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ (বিশ্বনাথ ও ওসমানীনগর) আসনে ২০ দলীয় জোটের মনোনীত প্রার্থী, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও নিখোঁজ এম ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা’র প্রার্থীতা স্থগিত করেছেন হাই কোর্ট। বৃহস্পতিবার দুপুরে বিচারপতি জেবিএম হাসানের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ তাহসিনা রুশদীর লুনার প্রার্থীতা স্থগিতের আদেশ দেন। একই আসনে মহাজোটের প্রার্থী (জাপা) ইয়াহইয়া চৌধুরীর করা এক রিট পিটিশনের শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে এই আদেশ দেন বিচারপতি জেবিএম হাসানের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চ।