আদালত নয়, সরকারের হাতেই খালেদা জিয়ার মুক্তি : মোশাররফ

প্রকাশিত: ৫:২৮ অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০১৮

আদালত নয়, সরকারের হাতেই খালেদা জিয়ার মুক্তি : মোশাররফ

‘আদালতের হাতে নয়, সরকারের হাতেই খালেদা জিয়ার মুক্তি নির্ভর করছে। যতই জামিন নেওয়া হোক না কেন সরকার না চাইলে তার মুক্তি হবে না’বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় খন্দকার মোশাররফ হোসেন এসব কথা বলেন।

আগামী নির্বাচন নিয়ে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘আবারও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি মার্কা ভোট করতে চায় সরকার। তারা চাইছে বিএনপি ও খালেদা জিয়াকে বাহিরে রেখে একদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গায়ের জোরে আরেকটি বাকশালী সরকার প্রতিষ্ঠা করতে। কিন্তু এ দেশের মানুষ আওয়ামী লীগকে আর একদলীয় ভোট করতে দিবে না। স্বৈরাচারী সরকারের পতন ঘটাতে হলে জনগণকে নিয়ে রাস্তায় নামতে হবে। খালেদা জিয়াকে ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হবে না।’

নিত্যপণ্যের মূল্য বৃদ্ধির কথা উল্লেখ করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, বর্তমান সরকার রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়েছে। রোজা শুরুর আগে থেকেই বাজারে নিত্যপণ্যের দাম দ্বিগুণ হয়ে যায় অথচ এসব নিয়ে সরকারের কোনো মাথাব্যথা নেই। কারণ বাজারে দাম বাড়ানোর পেছনে যে সিন্ডিকেট কাজ করে তাদের ওপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ নেই।

চলমান মাদকবিরোধী অভিযান নিয়েও কথা বলেন বিএনপির শীর্ষ এ নেতা। তিনি বলেন, ‘ক্ষমতাসীন দলের লোকেরা মাদক ব্যবসা করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে। অথচ বড় বড় মাদক সম্রাটদের না ধরে খুচরা বিক্রেতাদের ধরে বিনাবিচারে হত্যা করা হচ্ছে। দেশে তো আইন আছে, তাহলে মাদকবিরোধী অভিযানে আটকদের কেন আইনের আওতায় না এনে ক্রসফায়ারে হত্য করা হচ্ছে। যাদের মারা হচ্ছে, তারা তো আসল হোতা না, আসল গডফাদাররা ধরাছোঁয়ার বাহিরে থেকে যাচ্ছে।’

খন্দকার মোশাররফ আরও বলেন, মাদকের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড চালানো হচ্ছে সারা দেশে। মূলত মাদকের গডফাদারদের আড়াল করতেই সাধারণ মানুষের ওপর বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড চালানো হচ্ছে। সরকারের এমপি-মন্ত্রীরাই মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। তাঁদের বিচারের আওতায় আনা উচিত।

  •  

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট