যৌতুকের দাবীতে স্বামীর নির্যাতন ।। স্ত্রী হাসপাতালে

প্রকাশিত: ১২:১০ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ৬, ২০১৮

যৌতুকের দাবীতে স্বামীর নির্যাতন ।। স্ত্রী হাসপাতালে

সিলেট সদর উপজেলার জালালাবাদ থানাধীন মৃত সোনাফর আলীর মেয়ে ছাদিয়া বেগমকে যৌতুকের দাবীতে মারধর করে গুরুতর আহত করেছে তার স্বামী একই থানাধিন সাদিপুর গ্রামের মৃত মটাই মিয়ার ছেলে শামিম আহমদ। ছাদিয়া বেগম বর্তমানে সিলেট এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৪র্থ তলার ৬নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ব্যাপারে ছাদিয়ার বয়ঃবৃদ্ধ মাতা ছায়ারুন নেছা বাদী হয়ে শামিম আহমদের নাম উল্লেখ করে আরো ২/৩ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে জালালাবাদ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিগত ২০০৭ সালে ছাদিয়া বেগমের সাথে শামিম আহমদের বিবাহ হয়। বর্তমানে ছাদিয়া ৩ সন্তানের জননী। বিগত ২/৩ বছর পূর্ব হতে শামিম যৌতুকের দাবীতে ছাদিয়ার উপর চাপ সৃষ্টি সহ শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে। ছাদিয়া বিভিন্ন সময় তার মা ছায়ারুন নেছা কাছ থেকে এ পর্যন্ত সর্বমোট ৬০ (ষাট) হাজার টাকা এনে স্বামীকে দেয়। শামিম উক্ত টাকা নিয়ে নেশা করে খরচ করে ফেলে। আবারও টাকার জন্য শামিম তার স্ত্রী ছাদিয়াকে মারপিট করে। গত ৩ এপ্রিল মঙ্গলবার সন্ধ্যা আনুমানিক ৭টায় যৌতুক বাবদ ৫০ (পঞ্চাশ) হাজার টাকা তার শ^াশুড়ির কাছ থেকে আনার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। এতে ছাদিয়া অপরাগতা প্রকাশ করলে শামিম লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে ছাদিয়ার শরীরের বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য নিলা-ফুলা জখম করে। সংবাদ পেয়ে ছায়ারুন নেছা তার ছেলে এনাম এবং প্রতিবেশী আব্দুস ছত্তার, আব্দুল বাছির, মোঃ আনা মিয়া ও সোহেল মিয়াকে সাথে নিয়ে জামাতা শামিম বাড়িতে যান। এ সময় শামিম তার শ^াশুড়িকে অশ্রাব্য ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং বলে আমার দাবীকৃত ৫০ হাজার টাকা যৌতুক না দিলে সে ছাদিয়ার সাথে সংসার করবে না। এমনকি এ বিষয়ে কোন মামলা মোকদ্দমা করলে সে ছাদিয়াকে খুন করবে বলে প্রকাশ্যে হুমকী প্রদান করে ছায়ারুন নেছা সহ তার সাথে যাওয়া লোকজনকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।
নিরুপায় হয়ে ছায়ারুন নেছা জালালাবাদ থানায় শামিমকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করলে জালালাবাদ থানার এএসআই হারিছ এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ আহত ছাদিয়া বেগমকে তার স্বামী শামিম আহমদের বাড়িতে থেকে উদ্ধার করে সিলেট এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। বর্তমানে ছাদিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। -বিজ্ঞপ্তি

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট