নিরীহ নেতাকর্মীদের নৃশংস হত্যার উৎসবে মেতে উঠেছে সরকার : সিলেট বিএনপি

প্রকাশিত: ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৯, ২০১৮

নিরীহ নেতাকর্মীদের নৃশংস হত্যার উৎসবে মেতে উঠেছে সরকার : সিলেট বিএনপি

বিএনপির কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসুচীর অংশ হিসেবে ছাত্রদল ঢাকা মহানগর উত্তরের সহ-সভাপতি জাকির হোসেন মিলনকে পুলিশ কর্র্তৃক গ্রেফতারে পর রিমান্ডের নামে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে হত্যার প্রতিবাদে বুকে কালো ব্যাজ ধারণ করে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপি। রবিবার বিকেলে নগরীর রেজিষ্ঠারী মাঠে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপি অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের সকল পর্যায়ের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

সমাবেশে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপি নেতৃবৃন্দ বলেন- ফ্যাসিস্ট বাকশালী সরকার অবৈধ পথে ক্ষমতা দখলের ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে ষড়যন্ত্রমুলক মামলার ফরমায়েসী রায়ে সাজা প্রদান করে গণতন্ত্রের মা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে কারাগারে আটকে রেখে ক্ষান্ত হয়নি। এখন তারা নিরপরাধ নিরীহ নেতাকর্মীদের নৃশংস হত্যার উৎসবে মেতে উঠেছে। রাজপথের আন্দোলন থেকে ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রদলের সহ-সভাপতি জাকির হোসেন মিলনকে পুলিশ কর্তৃক গ্রেফতার করে রিমান্ডের নামে নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

জনগণের টাকায় জনগণের নিরাপত্তার জন্য পরিচালিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীকে আওয়ামীলীগ তাদের দলীয় লাঠিয়াল বাহিনী হিসেবে ব্যবহার করে বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের নিশ্চিহ্ন করার ষড়যন্ত্র করছে। পুলিশ বাহিনীকে দিয়ে তারা বিরোধী নেতাকর্মীদের কিলিং মিশন বাস্থবায়ন করে চলেছে। এর পরিনতি ভাল হবেনা। রিমান্ডের নামে ছাত্রদল নেতা জাকির হোসেন মিলনের হাত ও পায়ের ২০টি আঙ্গুলের নখ তুলে ফেলা হয়েছে। সারা শরীর তেতলে দেয়া হয়েছে। অথচ হত্যার পর ময়নাতদন্ত রিপোর্টে বলা হয়েছে শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন নেই। এমন জঘন্য মিথ্যাচার আওয়ামী অপশক্তির দ্বারাতেই সম্ভব। হত্যা, খুন, গুম, নিপীড়ন নির্যাতন চালিয়ে শহীদ জিয়ার সৈনিকদের দমিয়ে রাখা যাবেনা। গণতন্ত্রের মা আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত জনতার সংগ্রাম চলবেই।

সিলেট মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী’র সভাপতিত্বে ও জেলা সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সিলেট বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি দিলদার হোসেন সেলিম, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ডা: শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী, মহানগর সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, জেলার সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল কাহির চৌধুরী, মহানগর সহ-সভাপতি হুমায়ুন কবির শাহীন, সহ-সভাপতি সালেহ আহমদ খসরু, সহ-সভাপতি ও সিটি কাউন্সিলার ফরহাদ চৌধুরী শামীম, সহ-সভাপতি জিয়াউল গণি আরেফিন জিল্লুর, সহ-সভাপতি ও সিসিক প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, জেলা সহ-সভাপতি কানাইঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরী, সহ-সভাপতি শাহজামাল নুরুল হুদা, সহ-সভাপতি জকিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল আহমদ, জেলা সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রব চৌধুরী ফয়সল, মহানগর সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজমল বখত চৌধুরী সাদেক, মহানগর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আতিকুর রহমান সাবু, জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইশতিয়াক আহমদ সিদ্দিকী, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কাশেম ও শামীম আহমদ, মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক মুকুল মোর্শেদ, বিএনপি নেতা নজিবুর রহমান নজিব, মহানগর দফতর সম্পাদক সৈয়দ রেজাউল করিম আলো, জেলা দফতর সম্পাদক এডভোকেট মো: ফখরুল হক, জেলা প্রচার সম্পাদক নিজাম উদ্দিন জায়গীরদার, মহানগর প্রচার সম্পাদক শামীম মজুমদার ও জেলা বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট মুজিবুর রহমান মুজিব। শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মহানগর বিএনপির স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ আশরাফ আলী।

সভাপতির বক্তব্যে আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী বলেন- নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ক্ষমতায় আসতে পারবেনা জেনেই বাকশালী আওয়ামীলীগ নানান ষড়যন্ত্রের জাল বিস্তার করছে। বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মাইনাস করে নির্বাচন করতেই ষড়যন্ত্রমুলক মামলার ফরমায়েসী রায় দিয়ে কারান্তরীণ করে রেখেছে। তিন বারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে বিএনপির চলমান আন্দোলন দমিয়ে রাখতেই নিরীহ নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও রিমান্ডের নামে অকথ্য নির্যাতন চালাচ্ছে। এজন্য বাকশালীদের চরম মূল্য দিতে হবে। এই সরকার শেষ সরকার নয়। সরকারের লাঠিয়াল বাহিনী হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর প্রতি জনগণের আস্থা হৃাস পেয়েছে। বিরোধী নেতাকর্মীদের অন্যায়ভাবে হত্যার সাথে জড়িতদের জাতি কখনো ক্ষমা করবেনা। জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হলে প্রতিটি খুন, গুম, হত্যা, নিপীড়ন ও নির্যাতনের সুষ্ঠু বিচার হবে।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট