কোরবানীর জন্য মিয়ানমার থেকে আসছে গরু

প্রকাশিত: ১২:৪৭ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১০, ২০১৭

কোরবানীর জন্য মিয়ানমার থেকে আসছে গরু

কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে মিয়ানমার থেকে ট্রলার বোঝাই করে আনা হচ্ছে হাজার হাজার গরু ও মহিষ। টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের করিডোর দিয়ে প্রতিদিন ঢুকছে কোরবানির এসব পশু।

গরু আসার এই ধারা অব্যাহত থাকলে এই বছর কোরবানিতে পশুর সংকট হবে না বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা। সংকট না হলে গরু মহিষের দামও অনেক কমে আসবে। টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপ করিডোরের ব্যবসায়ীরা আশা করছেন কোরবানির আগে আরও অন্তত ৫০ হাজার গরু-মহিষ মিয়ানমার থেকে আনা সম্ভব হবে।
টেকনাফের শুল্ক বিভাগ সূত্র জানায়, চলতি আগস্ট মাসের ১ থেকে ৭ তারিখ পর্যন্ত ১ হাজার ৪৪৮ টি গরু ও ৩০৭ টি মহিষ এসেছে।

সূত্র জানায়, প্রতিদিন ট্রলারে করে মিয়ানমার থেকে শাহপরীর দ্বীপ করিডোর দিয়ে পশু আসছে। কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে পশু আমদানি করা হচ্ছে অনেক বেশি। কিন্তু টেকনাফ-শাহপরীর দ্বীপ সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় ব্যবসায়ীদের অতিরিক্ত খরচ গুণতে হচ্ছে।

টেকনাফ স্থলবন্দরে কাস্টমস শুল্ক কর্মকর্তা একেএম মোশারফ হোসেন বলেন, গত জুন পর্যন্ত ১ বছরে গবাদিপশু থেকে তিন কোটি ৩৪ লাখ ৫৭ হাজার টাকা রাজস্ব আদায় করা সম্ভব হয়েছে। টেকনাফে করিডোর প্রতিষ্ঠার ১৪ বছরে এটি সর্বোচ্চ রাজস্ব আদায়। কোরবানিকে সামনে রেখে পশু আমদানির এই ধারা এখন আরো বেড়ে গেছে।
করিডোরের পশু ব্যবসায়ী আবু সৈয়দ মেম্বার জানান, প্রতিদিন টেকনাফ থেকে ট্রাকে করে চট্টগ্রাম, ফেণী, হাটহাজারি, চাঁদপুর ও কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলার ব্যবসায়ীরা প্রচুর গরু-মহিষ কিনে নিয়ে যাচ্ছে।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি মো. মাইন উদ্দিন খান বলেন, দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ব্যাপারীরা শাহপরীর দ্বীপ করিডোরে পশু কিনতে আসবে। এখান থেকে পশু সরবরাহের ক্ষেত্রে পথে যেন কোনো রকম চাঁদাবাজি না হয় তাও নজরে রাখা হচ্ছে। এছাড়া গরু ব্যবসায়ীদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা প্রদান করা হচ্ছে।

টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল এসএম আরিফুল ইসলাম বলেন, কোরবানিকে সামনে রেখে মিয়ানমার থেকে গরু-মহিষ আসছে। পশুবাহী ট্রলার যাতে নিরাপদে করিডোরে আসতে পারে সে জন্য বিজিবি সহায়তা দিয়ে থাকে। নাফ নদীতে টহল জোরদার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

  •