কেন্দ্রীয় নেতারা ছুটছেন তৃণমূলে, বিএনপির সদস্য সংগ্রহ অভিযানে ব্যাপক সাড়া

প্রকাশিত: ৩:২৮ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৩, ২০১৭

কেন্দ্রীয় নেতারা ছুটছেন তৃণমূলে, বিএনপির সদস্য সংগ্রহ অভিযানে ব্যাপক সাড়া

এক দশকের বেশি সময় ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকা বিরোধী দল বিএনপি এখন প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহে ব্যস্ত। চলছে দুই মাসব্যাপী প্রাথমিক সদস্য নবায়ন ও সংগ্রহ অভিযান। কেন্দ্রের সিনিয়র ও দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা ছুটছেন তৃণমূলে। দলটির টার্গেট দুই মাসে এক কোটি নতুন সদস্য সংগ্রহ করা। দীর্ঘ দিন পর বিএনপির এই কর্মসূচি ইতোমধ্যে জনগণের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে বলে দলটির একাধিক নেতা জানিয়েছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দায়িত্বপ্রাপ্ত এক সিনিয়র নেতা জানান, এখন পর্যন্ত কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে প্রায় আট লাখ ফরম সরবরাহ করা হয়েছে। প্রতি দিনই বিএনপির নয়া পল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নতুন সদস্য হতে আগ্রহীরা হাজির হচ্ছেন। জেলা ও মহানগরীর নেতারা আসছেন ফরম কিনতে। অনেকে প্রাথমিক সদস্য পদ নবায়ন করতে আসছেন।
এ দিকে সদস্য সংগ্রহ অভিযান সুন্দরভাবে সফল করতে গতকাল মঙ্গলবার দলের যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিক এবং সহসাংগঠনিক সম্পাদকদের সাথে বৈঠক করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিএনপির নয়া পল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী এই বৈঠকে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে সাংগঠনিক এবং সহসাংগঠনিক সম্পাদকদের তৃণমূল পর্যায়ে সদস্য সংগ্রহ অভিযান সফল করতে কার্যক্রম জোরদারের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একই সাথে সারা দেশে বিএনপির ৭৫টি সাংগঠনিক জেলায় কেন্দ্রীয় নেতাদের সফর করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সারোয়ার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, হারুন অর রশিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু, আসাদুল হাবিব দুলু, মাহবুবের রহমান শামীম, এমরান সালেহ প্রিন্স, বিলকিস জাহান শিরিন, অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, শহীদুল ইসলাম বাবুল, হারুনুর রশিদ হারুন, শাহিন শওকত, অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, জয়ন্ত কুমার কুণ্ড, মাহবুবুল হক নান্নু, আবদুল আউয়াল খান, সেলিমুজ্জামান সেলিম, জালাল উদ্দিন মজুমদার।
বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন এমন কয়েকজন নেতার সাথে কথা বলে জানা যায়, দুই মাসব্যাপী প্রাথমিক সদস্য নবায়ন ও সংগ্রহ অভিযান তৃণমূল পর্যায়ে সফল করতে সংশ্লিষ্ট নেতাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি বিএনপির ৭৫টি সাংগঠনিক জেলা কেন্দ্রীয় নেতাদের সফর করে এই কর্মসূচি উদ্বোধন করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। জেলা পর্যায়ে দলের সিনিয়র নেতারা কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন। বিভাগীয় সাংগঠনিক এবং সহসাংগঠনিক সম্পাদকেরা তা মনিটরিং করবেন। এ ছাড়া নির্বাচন কমিশন সংসদীয় আসন পুনর্নির্ধারণের যে ঘোষণা দিয়েছে সেখানে যাতে কোনো অনিয়ম না হয় এবং ভোটার তালিকা হালনাগাদকালে যাতে কোনো কারসাজি না হয় সেদিকে নেতাদের সতর্ক দৃষ্টি রাখতেও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
প্রসঙ্গত, গত ১ জুলাই রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের ঘোষিত ‘প্রাথমিক সদস্য নবায়ন ও নতুন সদস্য সংগ্রহ’ অভিযানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এ সময় তিনি জানান, গতবার সদস্য সংগ্রহের ল্যমাত্রা ছিল ৫০ লাখ। এবার টার্গেট এক কোটি। এ সময় তিনি সবাইকে বিএনপির সদস্যপদ গ্রহণে এবং দলের জন্য কাজ করার আহ্বান জানান।
আগামী ১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সারা দেশে এই কর্মসূচি চলবে। সর্বশেষ ২০০৯ সালে বিএনপির সদস্য সংগ্রহ অভিযান হয়েছিল। কিন্তু তা শেষ হয়নি। এরপর ২০১২ সালে তা আবারো শুরু হয়। বিএনপি নেতারা জানান, আন্দোলনের কারণে পরে এই সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচি করা যায়নি।
এ দিকে গত শনিবার ঠাকুরগাঁওয়ের রায়পুর ঈদগাহ ময়দানে ইউনিয়ন বিএনপি আয়োজিত সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। একই দিনে খুলনায় প্রাথমিক সদস্য নবায়ন ও সংগ্রহ অভিযান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। ইতোমধ্যে ঢাকা মহানগর উত্তর, দক্ষিণ এবং বিভিন্ন ওয়ার্ড ও থানা পর্যায়েও এই কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নয়া দিগন্তকে বলেন, এখন পর্যন্ত আমাদের দলের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচি খুব ভালোভাবে চলছে। এই কর্মসূচি জনগণের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। গত ৫ জুলাই ঢাকা মহানগরীর বাড্ডায় তৃণমূল পর্যায়ে প্রাথমিক সদস্য নবায়ন ও সংগ্রহ অভিযান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল তিনি নয়া দিগন্তকে জানান, আমাদের সদস্য সংগ্রহ অভিযান সারা দেশে চলছে। টার্গেট পূরণের লক্ষ্যে আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত আছে। তা মানুষের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। আমরা একটি ডিজিটাল ডাটাবেইজ তৈরির চেষ্টা করছি। বিএনপি তার টার্গেট পূরণে সক্ষম হবে বলে মন্তব্য করেন বিএনপির এই সিনিয়র নেতা।
জানা গেছে, বর্তমানে বিএনপির প্রাথমিক সদস্য আছে প্রায় ৫০ লাখ। গত সোমবার ঢাকার ৮ ও ৯ নং সংসদীয় আসনে প্রাথমিক সদস্য নবায়ন ও সংগ্রহ অভিযান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। এ সময় তিনি বলেছেন, জনগণের মধ্যে এই কর্মসূচিতে বিপুল সাড়া দেখে আমি অভিভূত। আমার রাজনৈতিক জীবনে জনগণের মধ্যে এত সাড়া আর কখনো দেখিনি। যেখানে নিপীড়ন-নির্যাতন চলছে, গুম-খুন চলছে ওই সময়ে সাধারণ মানুষ ঝাঁকে ঝাঁকে বিএনপির সদস্য হতে এগিয়ে আসছেন। আমি মনে করি এটা শেখ হাসিনার ফ্যাসিস্ট শাসনের বিরুদ্ধে একটি প্রতিবাদ। আমার বিশ্বাস কর্মসূচি বিএনপিকে আরো শক্তিশালী করবে। এই সরকারের পতন ত্বরান্বিত করবে ইনশা আল্লাহ।

  •