বিশ্বনাথে সবার প্রিয় তজম্মুল স্যার আর নেই

প্রকাশিত: ৮:৫২ অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০১৭

বিশ্বনাথে সবার প্রিয় তজম্মুল স্যার আর নেই

না ফেরার দেশে চলে গেলেন সবার প্রিয় আলহাজ্ব তজম্মুল আলী স্যার। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১টার দিকে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তিনি ছিলেন সিলেটের বিশ্বনাথে উপজেলা সদরস্থ শতবর্ষী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রামসুন্দর অগ্রগামী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক। বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী তজম্মুল আলী জীবনের প্রায় ৪৮ বছর শিক্ষকতা পেশার সাথে জড়িত ছিলেন।

তজম্মুল আলীর মৃত্যুতে বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ৩ দিনের শোক ঘোষণা করেছেন প্রতিষ্ঠানের বর্তমান প্রধান শিক্ষক আবদুল আজিজ। মরহুমের মরদেহে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক স্থানীয় সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ, বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষক রনজিৎ চন্দ্র দাশ।

বুধবার বিকেল আড়াইটায় মরহুমের প্রথম জানাযার নামাজ তাঁর প্রিয় প্রতিষ্ঠান রামসুন্দর অগ্রগামী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়। এরপর বাদ আসর মরহুমের গ্রামে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় ও শেষ জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর মরদেহ দাফন করা হয়। প্রথম জানাযার নামাজে ইমামতি করেন মরহুমের দীর্ঘদিনের সহকর্মী মাওলানা মহসিন আহমদ।

জানাযার নামাজ : দাদা-বাবা-ছেলের শিক্ষক সবার প্রিয় শিক্ষক আলহাজ্ব তজম্মুল আলীর জানাযার নামাজে ছিল বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের ঢল। তাঁকে শেষ বারের মতো দেখতে ও শেষ বিদায় জানাতে বিদ্যালয় মাঠে ছুঠে আসেন বিভিন্ন ধর্ম-বর্ণের মানুষ। পুরনো দিনের অনেক সহকর্মী তাঁর মৃত্যুর সংবাদ শুনে ছুটে আসেন তাকে একনজর দেখে জানাযার নামাজে শরিক হতে।

বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আলতাব হোসেনের পরিচালনায় জানাযার নামাজ পূর্ব আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য আ.ন.ম শফিকুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট শাহ ফরিদ আহমদ, জেলা বিএনপির সহ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সুহেল আহমদ চৌধুরী, ব্রিটেনের টাওয়ার হ্যামলেটস’র ডেপুটি মেয়র আয়াছ মিয়া, বিশ্বনাথ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অমিতাভ পরাগ তালুকদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খান, সাবেক সভাপতি মজম্মিল আলী, উপজেলা বিএনপির সহ সভাপতি আবুল কালাম কছির, সাধারণ সম্পাদক লিলু মিয়া, বিশ্বনাথ সদর ইউপির চেয়ারম্যান ছয়ফুল হক, দৌলতপুর ইউপির চেয়ারম্যান আমির আলী, বিশ্বনাথ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ সিরাজুল হক, উত্তর বিশ্বনাথ আমজদ উল্লাহ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ নেছার আহমদ, সিলেট টিচার্স ট্রেনিং কলেজের অধ্যক্ষ ড. হাসমত উল্লাহ, সৎপুর কামিল মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা শফিকুর রহমান, যুক্তরাজ্য বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি তৈমুছ আলী, চিকিৎসক ডা. নুরুল আফসার বদরুল, ব্যাংকার তাজ উদ্দিন, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মকদ্দছ আলী।

মরহুমের জানাযার নামাজে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল হক, লামাকাজী ইউপি চেয়ারম্যান কবির হোসেন ধলা মিয়া, খাজাঞ্চী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন সিদ্দিকী, রামপাশা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ার খান, কেন্দ্রীয় খেলাফত মজলিসের সাংগঠনিক সম্পাদক মুনতাসির আলী, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এসএম নুনু মিয়া, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ময়নুল হক, সদস্য জসিম উদ্দিন জুনেদ, জেলা খেলাফত মজলিসের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আবদুল ওয়াদুদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমদ, শাহ ফয়েজ আহমদ সেবুল, সাবেক সহ প্রচার সম্পাদক বশির আহমদ, উপজেলা খেলাফত মজলিসের সাধারণ সম্পাদক সায়েফ আহমদ সায়েক, উপজেলা জাতীয় পার্টির সাবেক যুগ্ম আহবায়ক জয়নাল আবেদীন, বিশ্বনাথ ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক এনামুল হক, মাহমুদুল হাসান মানিক, আবদুশ শহিদ, প্রভাষক অ্যাডভোকেট আলী আহমদ, কামাল বাজার আলীম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা একেএম মনোওর আলী, দেওকলস দ্বি-পাক্ষিক স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল মুকিদ, একলিমিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফখর উদ্দিন, রাগীব-রাবেয়া স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ছিফত আলী, রামসুন্দর অগ্রগামী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য সাহাবুদ্দিন, সহকারী প্রধান শিক্ষক আবদুল বারী, প্রাক্তন শিক্ষক মহিউদ্দিন আহমদ, প্রবাসী সুনু মিয়া, ওয়াহিদ মিয়া, ব্যাংকার মতিউর রহমান রাসেল, ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রভাষক ডা. শামছুল ইসলাম, মোহাম্মদিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক আবদুল কাইয়ুম, ইউপি মেম্বার ফজর আলী, জহুর আলী, শাহ নেওয়াজ চৌধুরী সেলিম, হেলাল আহমদ, আবদুল মুমিন মামুন, শফিক আহমদ, ব্যবসায়ী মফিজ আলী, শেখ মনির মিয়া, নুরুল ইসলাম, বীমাকর্মী আবদুল মতিন, চিকিৎসক জহির উদ্দিন, বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা সিতার মিয়া, বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী মুহাম্মদ জামাল উদ্দিন, সহ সভাপতি তজম্মুল আলী রাজু, যুগ্ম সম্পাদক এমদাদুর রহমান মিলাদ, বিশ্বনাথ নতুন বাজার বণিক কল্যাণ সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাজী মঈনুর রহমান, বর্তমান কোষাধ্যক্ষ নবীন সুহেল, কমিশনার নাঈম আহমদ, উপজেলা সেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক কাওছার খান, মহানগর ছাত্রদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক তানমুল ইসলাম, সদস্য সামছুল ইসলাম, বিশ্বনাথ ক্রিকেট এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি ছাদ উদ্দিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান’সহ কয়েক হাজার মানুষ।

এক নজরে তজম্মুল আলী : ১৯৪২ সালের ২৯ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন বিশ্বনাথ উপজেলার সদর ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রামের ছিপত আলী পন্ডিত ও মোছাম্মৎ সায়রা বানু দম্পত্তির পুত্র আলহাজ্ব তজম্মুল আলী। ধর্মদা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করে লালাবাজার হাই স্কুলে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। ১৯৫৬ সালে রামসুন্দর অগ্রগামী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মেট্রিকুলেশন পাশ করেন। সিলেট এমসি কলেজ থেকে ১৯৫৮ সালে আই.কম ও ১৯৬০ সালে বিএ পাশ করেন। এরপর ১৯৬৫ সালে টিচার্স ট্রেনিং কলেজ থেকে বিএড এবং ১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সস্টিটিউট হতে এমএড ডিগ্রি লাভ করেন।

১৯৬০ সালে তিনি রামসুন্দর অগ্রগামী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক পদে যোগদান করেন। এরপর সহকারী প্রধান শিক্ষক হন। ১৯৬৩ সাল থেকে শুরু করে ২০০৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করে অবসর গ্রহণ। এরপর মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। স্ত্রী ওয়াহীদা খাতুনকে নিয়ে ছিল তাঁর সুখের সংসার। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ২ কন্যা ও ১ পুত্র সন্তানের জনক ছিলেন।

  •  

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট