শেষ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে ঝুলন্ত পার্লামেন্ট!

প্রকাশিত: ২:৩৭ অপরাহ্ণ, জুন ৯, ২০১৭

শেষ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে ঝুলন্ত পার্লামেন্ট!

লন্ডন: বিবিসির জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে’র কনজারভেটিভ পার্টি পাবে ৩১৮টি আসন আর বিরোধী লেবার পার্টি পাবে ২৬২টি। কিন্তু একক সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজন ৩২৬টি আসন।

ফলে যুক্তরাজ্যে ঝুলন্ত পার্লামেন্টের পূর্বাভাস দিয়েছে বিবিসি।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ভোট নেয়া হয়। ভোটার ছিলেন প্রায় ৪ কোটি ৯ লাখ।

বিবিসির পূর্বাভাস বলছে, ক্ষমতাসীন তেরেসা মের কনজারভেটিভ পার্টি পার্লামেন্টে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাচ্ছে না। এরপরও তারা বৃহত্তম দল হবে। এ পরিস্থিতিতে ঝুলন্ত পার্লামেন্ট হতে পারে।

এদিকে বিবিসির আরেক খবরে বলা হয়েছে, উত্তর আয়ারল্যান্ড-ভিত্তিক ডিইউপি- যারা ১০টি আসন পেয়েছে – বলেছে তারা তেরেসা মেকে সরকার গঠন করতে সমর্থন জানাবে।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়, এখন পর্যন্ত ৬৩৪টি আসনের ফল জানা গেছে। প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, কনজারভেটিভ পার্টি পেয়েছে ৩০৯ আসন। লেবার পার্টি পেয়েছে ২৫৮ আসন। এসএনপি ৩৪ আসন। লিব ডেম পেয়েছে ১২ আসন। অন্যান্য দল পেয়েছে ২১ আসন।

রয়টার্স বলছে, কনজারভেটিভ পার্টি সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাতে যাচ্ছে।

কোনো দল এককভাবে ৩২৬টি আসন পেলেই মিলবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা।

ব্রিটিশ পার্লামেন্টের নিম্ন কক্ষ হাউস অব কমনসের মোট ৬৫০ আসনের বিপরীতে এবার মোট ৬৮টি দল ও ১৯১ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ মোট ২ হাজার ৩০৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এর মধ্যে ইংল্যান্ডে ৫৩৩, স্কটল্যান্ডে ৫৯, ওয়েলসে ৪০ এবং নর্দান আয়ারল্যান্ডে ১৮টি আসন রয়েছে। সব আসনে একযোগে ভোট নেয়া হয়।

২০১৫ সালে ডেভিড ক্যামেরনের নেতৃত্বে কনজারভেটিভ পার্টি ৩৩০টি আসন পেয়ে এককভাবে ক্ষমতায় ফেরে। আর বিরোধী দল লেবার পার্টি পায় ২২৯টি আসন।

২০১৬ সালের জুনে ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) যুক্তরাজ্যের থাকা না-থাকা নিয়ে গণভোট হয়। এতে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ইইউতে থাকার পক্ষে ছিলেন। জনগণ বিচ্ছেদের পক্ষে রায় দিলে ক্যামেরন পরাজয় মেনে পদত্যাগ করেন। পরে তেরেসা মে প্রধানমন্ত্রী হন।

  •