খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশী বাকশালী অপরাজনীতির বহিঃপ্রকাশ : কাহের শামীম

প্রকাশিত: ১০:০২ অপরাহ্ণ, মে ২১, ২০১৭

খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশী বাকশালী অপরাজনীতির বহিঃপ্রকাশ : কাহের শামীম

সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে পুলিশী বাধা

২১ মে ২০১৭, রবিবার ।। বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট জেলা সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম বলেছেন- দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ভিশন-২০৩০ স্বৈরাচারী আওয়ামী সরকারকে ভীত সন্ত্রস্থ করে তুলেছে। তারা আদর্শিক মোকাবেলায় ব্যর্থ হয়েই রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যাবহার করে জাতীয়তাবাদী শক্তিকে হেয় করছে। দেশ পরিচালনায় সর্বতোভাবে ব্যর্থ অবৈধ সরকার তাদের পাহারসম ব্যর্থতা ঢাকতেই তিনবারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশী ও ভাংচুর করা হয়েছে। এটা সরকারের বাকশালী ও প্রতিহিংসামুলক অপরাজনীতির বহিপ্রকাশ। এজন্য সরকারকে কঠোর মুল্য দিতে হবে।
তিনি রবিবার বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশী ও ভাংচুরের প্রতিবাদে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপি আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন। সিলেট বিএনপির পুর্বঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসুচী উপলক্ষে রেজিষ্টারী মাঠে খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে শতশত নেতাকর্মী জমায়েত হন। বিপুল সংখ্যক পুলিশ তখন গেইট বন্ধ করে দেয়। পুলিশী বাধা উপেক্ষা করে নেতাকর্মীরা রেজিষ্টারী মাঠে প্রবেশ করলেও পুলিশী সমাবেশে মাইক ব্যাবহারে বাধা দেয়। শেষ পর্যন্ত মাইক ছাড়াই বক্তব্য দিয়ে সমাবেশ সমাপ্ত করেন উপস্থিত নেতৃবৃন্দ। সমাবেশ শেষে মিছিল বের করতে চাইলে পুলিশী বাধার কারনে তা সম্ভব হয়নি।
সিলেট মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম ও জেলা সাধারন সম্পাদক আলী আহমদ-এর যৌথ পরিচালনায় সিলেট রেজিষ্টারী মাঠে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন- আওয়ামীলীগের একদলীয়, স্বৈরাচারী, বাকশালী অপশাসনের রাজনীতির বিপরীতে বেগম খালেদা খালেদা জিয়ার গনতান্ত্রিক উন্নয়নমুখী রাজনীতি দেখে তারা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়েই তিন বারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশী ও ভাংচুর চালানো হয়েছে। এসব অপরাজনীতির জন্য অবশ্যই কঠোর মুল্য দিতে হবে।
সিলেট মহানগর বিএনপি সভাপতি নাসিম হোসাইন বলেন- আওয়ামীলীগ আদর্শিক রাজনীতিতে বিশ্বাস করেনা। তারা গায়ের জোরে দেশ পরিচালনা করছে। তিনবারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশীর নামে হামলা ভাংচুর কোন সভ্য সরকারের কাজ হতে পারেনা। এজন্য জনতার আদালতে ক্ষমতাসীন অবৈধ সরকারের কর্তাব্যাক্তিদের জবাবদিহী করতে হবে।
ওলামা দল নেতা মাওলানা মাসুদ আহমদের পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে সুচীত সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-ক্ষুদ্র ঋন বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন- জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এডভোকেট আব্দুল গাফফার, মহানগর সহ-সভাপতি এডভোকেট ফয়জুর রহমান জাহেদ, সহ-সভাপতি এডভোকেট হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-সভাপতি সালেহ আহমদ খসরু, সহ-সভাপতি কাউন্সিলার ফরহাদ চৌধুরী শামীম, জেলা উপদেষ্ঠা প্রকৌশলী আশফাক আহমদ আসু, বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য এডভোকেট হাদিয়া চৌধুরী মুন্নি, জেলা সহ-সভাপতি হাজী শাহাব উদ্দিন, মহানগর সহ-সভাপতি জিয়াউল গনি আরেফিন জিল্লুর, জেলা সহ-সভাপতি জালাল উদ্দিন চেয়ারম্যান, আজির উদ্দিন চেয়ারম্যান, উপদেষ্ঠা আব্দুস সালাম বাচ্ছু, মহানগর সহ-সভাপতি আব্দুস সাত্তার, সহ-সভাপতি অধ্যাপিকা সামিয়া বেগম চৌধুরী, জেলা উপদেষ্ঠা আহমেদুর রহমান চৌধুরী মিলু, উপদেষ্ঠা ইলিয়াস আলী মেম্বার, কছির উদ্দিন চেয়ারম্যান, মহানগর সহ-সভাপতি ফাত্তাহ বকশী, আমির হোসেন, সৈয়দ বাবুল হোসেন, কয়সর রশিদ চৌধুরী, জেলা যুগ্ম-সম্পাদক মাহবুবুর রব চৌধুরী ফয়সল, মহানগর যুগ্ম-সম্পাদক এমদাদ হোসেন চৌধুরী, এডভোকেট আতিকুর রহমান সাবু, হাজী মিলাদ আহমদ, হুমায়ুন আহমদ মাসুক, জেলা কোষাধ্যাক্ষ ডাঃ আরিফ আহমেদ মোমতাজ রিফা, জেলা সাংগঠনিক আবুল কাশেম, শামীম আহমদ, মহানগর সাংগঠনিক মুকুল মোর্শেদ, মহানগর দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ রেজাউল করিম আলো, জেলা দপ্তর সম্পাদক এডভোকেট মোঃ ফখরুল হক, জেলা প্রচার সম্পাদক নিজাম উদ্দিন জায়গীরদার, মহানগর প্রচার সম্পাদক শামীম মজুমদার, শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুরমান আলী, মহানগর শ্রমিক দলের সাধারন সম্পাদক ইউনূছ মিয়া, মহানগর প্রকাশনা সম্পাদক জাকির হোসেন মজুমদার, জেলা প্রকাশনা সম্পাদক এডভোকেট আল আসলাম মুমিন, মহানগর আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট রোকশানা বেগম শাহনাজ, জেলা যুব বিষয়ক সম্পাদক লুৎফুর রহমান, মহানগর যুব বিষয়ক সম্পাদক মির্জা বেলায়েত হোসেন লিটন, মহানগর স্বেচ্চাসেবক বিষয়ক সম্পাদক হাবিব আহমদ চৌধুরী শিলু, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ আশরাফ আলী, পরিবার কল্যান সম্পাদক লল্লিক আহমদ চৌধুরী, জেলা তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক জুবায়ের আহমদ খান, মহানগর তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সুহাদ রব চৌধুরী, জেলা মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা কাউন্সিলার সালেহা কবির শেপি, জেলা ধর্ম সম্পাদক আল মামুন খান, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক আক্তার হোসেন মিন্টু, মহানগর সমবায় বিষয়ক সম্পাদক মামুনুর রহমান মামুন, জেলা ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন মানিক, মহানগর মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক মুফতী নেহাল উদ্দিন, আপ্যায়ন সম্পাদক আফজাল উদ্দিন,  বিএনপি নেতা আব্দুল জব্বার তুতু, জাকির হোসেন তালুকদার, আব্দুস সাত্তার মামুন, নুরুল আলম, আব্দুল হাকিম, বজলুর রহমান ফয়েজ, হাবিবুর রহমান হাবিব, জেবুল হোসেন ফাহিম, মুরাদ হোসেন, খয়রুজ্জামান, শেখ মু. ইলিয়াস আলী, লোকমান আহমদ, আব্দুল মালেক, বোরহান উদ্দিন, আব্দুল লতিফ খান, এডভোকেট খালেদ জুবায়ের, শাহ মাহমুদ আলী, আছমা বেগম রুমি, কুহিনুর ইয়াসমিন ঝর্না, এনামুল হক মাক্কু, শাহজাহান সেলিম বুলবুল, উজ্জল রঞ্জন চন্দ, সিরাজুল ইসলাম, শরিফ উদ্দিন মেহেদী, কয়েস আহমদ সাগর, মুফতি সাদিকুর রহমান, দিদার ইবনে তাহের লস্কর, আব্দুল মালেক, এডভোকেট ইসরাফিল আলী, দেলোয়ার হোসেন জয়, আমিন উদ্দিন, আব্দুর রহিম,আব্দুস সোবহান, ময়নুল ইসলাম মঞ্জু, যুবদল নেতা সাহেদ আহমদ, শরীফ উদ্দিন মেহেদী, শফিক নুর,  মকসুদুল করিম নুহেল, সালাউদ্দিন, খোকন ইসলাম, মঈন উদ্দিন মঞ্জু, আশরাফ বাহার, নজরুল ইসলাম, লিটন আহমদ, রুমেল শাহ, কাজী মেরাজ ও আব্দুল কুদ্দুছ প্রমূখ।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট