স্টকহোমে সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানালেন খালেদা জিয়া

প্রকাশিত: ১:৩৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৮, ২০১৭

স্টকহোমে সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানালেন খালেদা জিয়া

সুইডেনের স্টকহোমে সন্ত্রাসী হামলায় সাধারণ মানুষ হতাহতের ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ এবং নিহতদের আত্মার শান্তি ও আহতদের সুস্থতা কামনা করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া।

তিনি বলেছেন, বিশ্বব্যাপী সব ধরনের সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বিশ্বের শান্তিকামী মানুষের সঙ্গে একযোগে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে বিএনপি দৃঢ় অঙ্গীকারাবদ্ধ। বিবৃতিতে এই দুঃসময়ে বাংলাদেশের মানুষ, বিএনপি ও আমি সুইডেনবাসীর পাশে রয়েছেন বলেও জানান বিএনপির চেয়ারপারসন।

শুক্রবার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি একথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, স্টকহোমে ভিড়ের মধ্যে লরি চালিয়ে দোকানে ঢুকে বেশকিছু সাধারণ মানুষকে হতাহতের ঘটনা নিঃসন্দেহে নিষ্ঠুর বর্বরতা এবং এটি কাপুরুষোচিত।

তিনি বলেন, বিএনপি জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব সম্প্রদায়ের সম্প্রীতিতে বিশ্বাসী। বিএনপি বিভিন্ন জাতি ও ধর্মীয় গোষ্ঠীর মধ্যে হানাহানি, রক্তারক্তি ও অন্তর্ঘাতমূলক সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডবিরোধী। বিশ্বব্যাপী সব ধরনের সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বিশ্বের শান্তিকামী মানুষের সঙ্গে একযোগে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে বিএনপি দৃঢ় অঙ্গীকারাবদ্ধ।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, বিশ্ব জনসমাজে শান্তি বিনষ্টকারী খুনোখুনির হোতা হিংস্র সন্ত্রাসীদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের জন্য বিশ্বসম্প্রদায়কে একযোগে কাজ করার আহবান জানাচ্ছি। তা না হলে বিশ্বের দেশে দেশে শোকমিছিল চলতেই থাকবে।

তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসের যে নেটওয়ার্ক গড়ে উঠেছে সেটিকে এই মুহূর্তে নির্মূল করতে না পারলে বিশ্বসভ্যতা আদিম অন্ধকারে ডুবে যাবে। পৃথিবীর দেশে দেশে সন্ত্রাসীদের এহেন রক্তাক্ত আক্রমণ মানুষের স্বাভাবিক জীবনপ্রবাহ রুদ্ধ করে দেয়ার মতো অভিঘাত। এরা মানবজাতির নিরাপত্তার হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানুষের শঙ্কা এবং উদ্বেগ প্রতিদিন গভীর থেকে গভীরতর হচ্ছে। উগ্রবাদী জঙ্গি-সন্ত্রাসীরা মানব সভ্যতার অগ্রগতিতে থমকে দেয়ার জন্য বিশ্বব্যাপী তাদের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে দেশে দেশে নারকীয় তাণ্ডবে মেতে উঠেছে।

তিনি আরো বলেন, পাশবিক বল প্রয়োগ করে কোনো রাজনৈতিক লক্ষ্য অর্জন অসম্ভব। রক্তাক্ত ও সহিংস সন্ত্রাসের দ্বারা মানুষ হত্যা করে জনসমাজে আতঙ্ক সৃষ্টি করা যায়, কিন্তু তাতে স্থায়ী ফললাভ সম্ভব নয়। বরং একটি হিংসাত্মক কার্যকলাপ আরও অনেক নতুন হিংসার জন্ম দেয়।

  •