নুরু হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ : পল্টনে ছাত্রদলের গাড়ি ভাঙচুর, আটক ২

প্রকাশিত: ৩:৫৪ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২, ২০১৭

নুরু হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ : পল্টনে ছাত্রদলের গাড়ি ভাঙচুর, আটক ২

ছাত্রদলের সহ-সম্পাদক নুরুল আলম নুরু হত্যার প্রতিবাদে রাজধানীর পল্টনে বিক্ষোভ মিছিল করেছে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। মিছিল থেকে গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে দু’জনকে আটক করেছে পুলিশ।

রবিবার দুপুর পৌনে ১টায় এ ঘটনা ঘটে। নুরু হত্যার প্রতিবাদে সকাল ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চট্টগ্রামে অর্ধদিবস হরতাল এবং দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচির ঘোষণা দেয় ছাত্রদল।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পল্টন এলাকায় একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে ছাত্রদল। মিছিল থেকে একটি নোয়াহ গাড়ি ভাঙচুর করা হয় এবং পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়েন। এ সময় পুলিশ লাঠিচার্জ করে এবং মোট পাঁচজনকে আটক করে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (এডিসি) শিবলী নোমান সাংবাদিকদের বলেন, ‘নুরু হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভের নামে ছাত্রদলের কর্মীরা গাড়ি ভাঙচুর করেছে। পুলিশ তাদের প্রতিহত করে। দুইজনকে আটক করা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার দিকে রাউজান উপজেলার বাগোয়ান ইউনিয়নের কোয়েপাড়া গ্রামের খেলাঘাট এলাকায় কর্ণফুলী নদীর তীর থেকে নুরুর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নুরুর বাড়ি রাউজান উপজেলার গুজরা ইউনিয়নের নোয়াপাড়া গ্রামের কমলার দিঘীর পাড় এলাকায়। নুরু উত্তর জেলা ছাত্রদলের সাবেক সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক। তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ সাধারণ সম্পাদক পদে ছিলেন।

বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নুরুকে নগরীর চকবাজার থানার চন্দনপুরা এলাকায় তার বাসা থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরদিন বিকেলে মরদেহ উদ্ধারের পর রাউজান থানার ওসি জানিয়েছিলেন, তার মাথায় গুলির চিহ্ন আছে। সারা শরীরে আঘাতের চিহ্ন আছে। হাত-পা রশি দিয়ে বাঁধা। তার পরণে ছিল লুঙ্গি। শার্ট দিয়ে চোখ বাঁধা। মুখের ভেতর ওড়না ঢোকানো পাওয়া গেছে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও রাউজানের সাবেক সাংসদ গিয়াসউদ্দিন কাদের চৌধুরী অভিযোগ করেন, জেলা পুলিশের একটা সশস্ত্র টিম চকবাজারের কাতালগঞ্জের বাসা থেকে নুরুকে তুলে নিয়ে যায়। টিমের কয়েকজন জেলা পুলিশের ইউনিফর্ম পড়া ছিল। কয়েকজন ছিল সিভিল পোশাকে। রাউজান থানার নোয়াপাড়া ফাঁড়ির এস আই জাবেদ টিমের নেতৃত্ব দেয়।

তবে পুলিশ এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

নুরুর বিরুদ্ধে রাউজান থানায় দুইটি হত্যা, একটি বিস্ফোরকসহ চারটি মামলা আছে।

শুক্রবার নগরীর জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদ মাঠে নুরুর ‍জানাজা শেষে তার মরদেহ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে দ্বিতীয় দফা জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

  •