মেয়রের আসনে ফিরছেন আরিফ ও বুলবুল, উৎফুল্ল সমর্থকরা

প্রকাশিত: ১:৪৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১, ২০১৭

মেয়রের আসনে ফিরছেন আরিফ ও বুলবুল, উৎফুল্ল সমর্থকরা

দীর্ঘ জটিলতার অবসান ঘটেছে। উচ্চ আদালতের রায়ে মেয়র পদ ফিরে পাওয়ার পর মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকেও চিঠি পেয়েছেন সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী এবং রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।

রবিবারই তারা দুজনে দায়িত্ব নিবেন বলে জানা গেছে। এ নিয়ে আরিফ-বুলবুলের সমর্থকরা উৎফুল্ল।  নতুনভাবে বরণ করে নিতে নানা চলছে নানা প্রস্তুতি।

বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে দায়িত্ব গ্রহণ সংক্রান্ত চিঠিটি তার কাছে পৌঁছেছে। ফলে দুই বছর তিন মাস পর রবিবার থেকে আরিফুল হক চৌধুরী সিসিকের দায়িত্ব নিচ্ছেন বলে তার ঘনিষ্ঠজন সূত্রে জানা গেছে।

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলার সম্পূরক অভিযোগপত্রে নাম আসার পর আরিফকে মেয়র পদ থেকে ২০১৪ সালে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছিল।

২০১৪ সালের ৭ জানুয়ারি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ এক আদেশে সিসিক মেয়র আরিফকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে। এই আদেশের বিরুদ্ধে মেয়র আরিফ রিট পিটিশন দায়ের করলে শুনানি শেষে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ স্থগিত করেন হাইকোর্ট।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জের বৈদ্যের বাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় দুর্বৃত্তদের গ্রেনেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া। ওই হত্যাকাণ্ডের প্রায় ১০ বছর পর তৃতীয় সম্পূরক চার্জশিটে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিসিক মেয়র আরিফুর হক চৌধুরীকে আসামি করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর কিবরিয়া হত্যা মামলার চার্জশিট আদালতে গৃহীত হলে ২৮ ডিসেম্বর আদালতে আত্মসমর্পণ করেন তিনি। আদালত মেয়র আরিফুলের জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

কারাগারে থাকা অবস্থায় ২০০৪ সালের ২১ জুন সুনামগঞ্জে সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের জনসভায় বোমা হামলার ঘটনার দীর্ঘ প্রায় ১২ বছর পর মেয়র আরিফকে শ্যোন এরেস্ট দেখানো হয়।

২০১৭ সালের ৪ জানুয়ারি দীর্ঘ কারাভোগের পর সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান আরিফুল হক চৌধুরী। এরপর তিনি মেয়র পদ ফিরে পেতে আইনি লড়াই চালিয়ে আসছিলেন।

এদিকে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে রবিবার দায়িত্ব নেবেন বিএনপি নেতা মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। উচ্চ আদালতের নির্দেশে বুলবুলকে মেয়র পদে ফেরাতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

এরপরই মঙ্গলবার উপ-সচিব মাহমুদুল হাসান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে ভারপ্রাপ্ত মেয়র ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার চিঠি পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন রাসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. শরিফ উদ্দিন।

বুলবুল জানান, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের তিন সদস্যের বেঞ্চ তাকে স্বপদে ফেরাতে আদেশ দেন। ফলে মেয়র হিসেবে তার দায়িত্ব পেতে কোনো বাধা নেই। রবিবার তিনি দায়িত্ব নেবেন। এ সংক্রান্ত চিঠি মন্ত্রণালয় থেকে ইতিমধ্যে সিটি করপোরেশনে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে ৭ মে সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে মেয়দ পদ থেকে বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। ২০১৬ সালের ১০ মার্চ হাই কোর্ট থেকে তার বরখাস্ত আদেশ অবৈধ ঘোষণা করা হয়।

  •