গায়ে রক্ত কাঁধে লাশ নিয়ে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

প্রকাশিত: ৮:১৫ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৬, ২০১৭

গায়ে রক্ত কাঁধে লাশ নিয়ে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

শরীরে রক্ত আর কাঁধে লাশ নিয়েই ৪৭তম মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করছেন বাংলাদেশের মানুষ। রক্তের বন্যা আর জীবনের বিয়োগে সিলেটবাসীর জন্য তা আরেকটু বেশি দুঃখ কস্ট ও হতাশার হয়ে দাড়িয়েছে।

গত ৬০ ঘন্টার বেশি সময় থেকে সারাদেশের মানুষ আতঙ্ক, শংকা আর উদ্বেগ উৎকন্ঠা নিয়ে অপেক্ষায় কখন দক্ষিণ সুরমার শিববাড়িস্থ ‘আতিয়া মহল’ জয় করবে সেনা কমান্ডোরা!

সেখানকার সর্বশেষ খবর হচ্ছে বিকেল ৩ টা এখনো অভিযান চলছে।এর আগে সকাল ১০টা ৭ মিনিটের দিকে বিস্ফোরন ও গুলাগুলির শব্দ শোনা গেছে। এরপর থেকে সবকিছু নিস্তব্ধ।

সেনাকমান্ডোদের প্রাথমিক সাফল্য, সেখানে আটকে পড়া ২৯টি ফ্ল্যাটের প্রায় ৮০ জন বাসিন্দাকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করতে তারা সক্ষম হয়েছেন। বাকী কাজটুকু শেষ করতেও যে তারা সফল হবেন সে ব্যাপারে দেশের মানুষ অত্যান্ত আশাবাদী।

‘আতিয়া মহলের’ অদুরে শনিবার সন্ধ্যার বোমা হামলায় পুলিশসহ ৬ জন নিহতের ঘটনায় জাতি গভীরভাবে শোকাহত।

তবে এই শোকের মধ্যেই রবিবার ভোর থেকে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে জনতার ঢল নেমেছে। বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীসহ নারীপুরুষ শিশু বৃদ্ধ সকলেই জঙ্গিবাদ মুক্ত একটি অসাম্প্রদায়িক শান্তির বাংলাদেশ গড়ার দৃপ্ত শপথ নিয়ে একাত্তরের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন।

এদিকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর দুর্দান্ত কমান্ডোদের সরাসরি অভিযান শুরু হয়েছে শনিবার সকাল ৮টায়।

প্রায় ২৯ ঘন্টা ধরে তাদের প্রতিরোধ করে টিকে আছে জঙ্গিরা! সাধারণ মানুষের মনে অসংখ্য প্রশ্ন,এত শক্তি সঞ্চয় তারা করলো কিভাবে?

মনে হচ্ছে, ‘আতিয়া মহলে’ তারা গত ৩ মাস থেকে বিশাল শক্তি সঞ্চয় করেছে। হয়ত তারা সিলেটে বড় ধরনের কোনো ‘অপারেশন’ এর প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

তবে তার আগেই তাদের অস্তিত্ব প্রকাশ হয়েছে এবং তাদের নির্মুলে ‘সোয়াত’ ‘সেনা কমান্ডো’ ও র‌্যাব-পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

সেনাবাহিনী সর্বশক্তি নিয়োগের মাধ্যমে এই অপশক্তিকে নির্মূল করে জাতির জীবনে শান্তি ও স্বস্তি ফিরিয়ে আনবে, এ প্রত্যাশা বাংলার ১৬ কোটি মানুষের।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট