মেয়েরাই এগিয়ে : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ৪:১৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৬

পরীক্ষায় অংশগ্রহণ ও পাসের ক্ষেত্রে লক্ষণীয়ভাবে মেয়েদের সংখ্যা বেড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, পরীক্ষায় মেয়েদের অংশগ্রহণ ও পাসের ক্ষেত্রে লক্ষণীয়ভাবে মেয়েদের সংখ্যা বাড়ার কারণে তাদেরকে অভিনন্দন জানাই। তবে ছেলেদের পিছিয়ে পড়ছে কেনো সে বিষয়ে নজর দিতে হবে।

বৃহস্পতিবার সকালে গণভবনে প্রাথমিক সমাপনী ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা এবং সমমানের পরীক্ষার ফলের অনুলিপি নেওয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

দেশে জেন্ডার সমতা আনতে হবে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে জেন্ডার সমতা তো উল্টো হয়ে যাচ্ছে। এখানে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে মেয়েরাই বেশি আবার পাসের ক্ষেত্রেও মেয়েরা এগিয়ে।

তিনি বলেন, প্রতিটি শিক্ষক, অভিভাবক, মসজিদের ইমাম এবং যারা ধর্মীয় শিক্ষা দিয়ে থাকেন, তাদের প্রত্যেকের কাছে অনুরোধ ছোট-ছোট শিশুদের মনে ঢোকাতে হবে আমরা শান্তি চাই, উন্নতি চাই। নিজের জীবনকে সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে হবে।

পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণির বৃত্তি পরীক্ষার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগে বেছে বেছে কয়েকজন ছাত্র-ছাত্রীকে আলাদাভাবে পড়ানো হতো। কিছু বেছে নিয়ে পড়ানোর চেয়ে সব ছেলেমেয়ে পরীক্ষা দেবে এটা ভালো। এতে করে সবাই সুযোগ পাবে। কারণ যাদের বাদ দেওয়া হয় তাদের মধ্যেও কেউ ভালো থাকতে পারে।

প্রাথমিক সমাপনী ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট এবং সমমানের পরীক্ষাগুলো হওয়ার পক্ষে নিজের অবস্থান ও যুক্তি তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ পরীক্ষাগুলো হওয়া উচিত, সেটা আবার বলা দরকার। অনেক অভিভাবক এ ব্যাপারে অনীহা প্রকাশ করেছিলেন। কী কারণে সেটা আমার বোধগম্য নয়।

প্রতিযোগিতামূলক সময়ে টিকে থাকতে নিজেদের সেভাবে গড়ে তুলতে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষিত জাতি পারে দেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করতে।

স্বাধীন জাতি হিসেবে আমাদের সারাবিশ্বে মাথা উঁচু করে চলতে হবে। নিজেদের মর্যাদা নিজেদের তৈরি করতে হবে।

অভিভাবক ও শিক্ষকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা অত্যন্ত মেধাবী। একটু যত্ম নিলে তারা অনেক ভালো কিছু করবে। এরাই আমাদের ভবিষ্যৎ।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট