আমেজহীন নির্বাচনে স্বতন্ত্র ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের জয়জয়কার

প্রকাশিত: ১:১৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৬

প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হল জেলা পরিষদ নির্বাচন। পার্বত‌্য তিন জেলা বাদে ৬১ জেলায় নির্বাচন হয়েছে। ৬১ জেলার মধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ২১ চেয়ারম্যান। দেখে নেই কোন জেলায় কারা নির্বাচিত হলেন-

কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদ নির্বাচনে আনারস প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মো. জাফর আলী ৬৫০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কাপপিরিচ প্রতীকের পনির উদ্দিন আহমেদ পেয়েছেন ২৭৯ ভোট। জেলার নয় উপজেলায় ১৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১৪ টিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। উচ্চ আদালতের আদেশে ৬নং ওয়ার্ডে ফুলবাড়ী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হয়নি। এ কেন্দ্রে মোট ভোটার ৬৮টি।

নরসিংদী : নরসিংদীর জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী অ্যাডভোকেট আসাদোজ্জামান বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। বুধবার শান্তিপূর্ণ পরিবেশ অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে ৫৮০ ভোট পেয়ে তিনি জয় লাভ করেন। তার নির্বাচনী প্রতীক ছিল আনারস।

সাতক্ষীরা : জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম দলীয় প্রার্থী মুনসুর আহমেদকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান পদে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেছেন। জেলার ১৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ১২টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম ৬৪৮ ভোট পেয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী মুনসুর আহমেদ ১৭৮ ভোট পেয়েছেন। স্থগিতকৃত তিনটি কেন্দ্রে ভোটের সংখ্যা ২০৭। তাই স্থগিতকৃত ভোট কেন্দ্রের ভোট দ্বারা চেয়ারম্যান পদের ফলাফল পরিবর্তন হওয়া সম্ভব নয়।

বরগুনা : বরগুনা-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মো. দেলোর হোসেন নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচনে মোট ১৫ ভোট কেন্দ্র থেকে পাওয়া ফলাফলে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন ঘোড়া প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫৯৫ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ও বরগুনার সোবেক এমপি ও সাবেক জেলা পরিষদ প্রশাসক মো. জাফরুল হাসান ফরহাদ আনারস প্রতীকে পেয়েছেন মাত্র ১৭ ভোট।

ঝিনাইদহ : ঝিনাইদহ জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বাবু কনক কান্তি দাস বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৫৩৭ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হারুন অর রশিদ পেয়েছেন ৩৯২ ভোট। জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, সংরক্ষিত নারী ১৮ এবং সাধারণ সদস্য পদে ৬১ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

মাগুরা : জেলায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী পঙ্কজ কুমার কুণ্ডু। ৯১ ভোটের ব্যবধানে তিনি নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী একই দলের প্রার্থী রানা আমির ওসমানকে পরাজিত করেছেন। বিজয়ী প্রার্থী পঙ্কজ কুমার কুণ্ডু জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি পেয়েছেন ২৭০ ভোট। অন্যদিকে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী প্রার্থী রানা আমির ওসমান পেয়েছেন ১৭৯ ভোট। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সম্পাদক।

মেহেরপুর : মেহেরপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে ১০৭ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী গোলাম রসুল। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মিয়াজান আলী পেয়েছেন ৮৪ ভোট।

সিলেট : সিলেট জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান। আনারস প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ৭৯৬ ভোট। অন্যদিকে, লুৎফুর রহমানের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী এনামুল হক সরদার কাপ-পিরিচ প্রতীক নিয়ে ৫৫৩ ভোট পেয়েছেন।

মৌলভীবাজার : মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মো. আজিজুর রহমান ৩৪২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রার্থী সাবেক স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য এম এম শাহীন পেয়েছেন ২৮৯ ভোট। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা কাজী ইস্তেফাজুল হক আকন্দ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

লালমনিরহাট : লালমনিরহাট জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান বিজয়ী হয়েছেন। মতিয়ার রহমান কাপ পিরিচ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩৭৯ ভোট। তার নিকটতম প্রার্থী ছিলেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নজরুল হক পাটোয়ারী ভোলা। নজরুল হক পাটোয়ারী ভোলা মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৫৫ ভোট।

রংপুর : রংপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী সফিয়া খানম ৭৫২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাসদ (আম্বিয়া-বাদল) সমর্থিত আব্দুর সাত্তার পেয়েছেন ৩১৯ ভোট।

রাজশাহী : বেসরকারিভাবে রাজশাহী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোহাম্মদ আলী সরকার। আনারস প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ৭৪২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আওয়ামী লীগ মনোনীত মাহবুব জামান ভুলু তালগাছ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪১৭ ভোট। ভোট গণনা শেষে বুধবার বিকেলে রাজশাহী জেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বেসরকারি এ ফলাফলের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

চাঁদপুর : চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ওসমান গণি পাটোয়ারী মোবাইল মার্কায় ৭৬৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নূরুল ইসলাম রুহুল ঘোড়া মার্কায় পেয়েছেন ৪১৪ ভোট।

শরীয়তপুর : শরীয়তপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পদ্মাসেতু বাস্তবায়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৫৪৫ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আ. রব মুন্সি পেয়েছেন ৩৫৯ ভোট।

রাজবাড়ী : রাজবাড়ী জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার তালগাছ প্রতীক নিয়ে ৫০৫ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রাজবাড়ী সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি রকিবুল হাসান পিয়াল আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৮৫ ভোট।

গাইবান্ধা : গাইবান্ধা জেলা পরিষদ নির্বাচনের ফলাফল বেসরকারিভাবে ঘোষণা করা হয়েছে। এতে স্বতন্ত্র প্রার্থী আতাউর রহমান আতা (ঘোড়া ) ৩৮৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী অ্যাডভোকেট সৈয়দ শামস উল আলম হীরু (তালগাছ)। আওয়ামী লীগ প্রার্থী ভোট পেয়েছেন ৩৮০টি।

মাদারীপুর : মাদারীপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মো. মিয়াজ উদ্দিন খান ৭৭৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী অ্যাডভোকেট সুজিত চ্যাটার্জি বাপ্পী দ্বিতীয় অবস্থানে থেকে ৪২ ভোট পেয়েছেন।

পাবনা : পাবনা জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি রেজাউল রহিম লাল বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

পিরোজপুর : পিরোজপুরে ৪২৩ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে জয় লাভ করেছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মহিউদ্দিন মহারাজ। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী অধ্যক্ষ মো. শাহ আলম পেয়েছেন ৩০২ ভোট।

নোয়াখালী : নোয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ডা. এবিএম জাফর উল্যা (টেবিল ফ্যান প্রতীক) ৮৬৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ডা. একে এম জাফর উল্যা (চামশা প্রতীক) পেয়েছেন ২৪২ ভোট।

ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহে জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ইউসুফ খান পাঠান (আনারস) বিজয়ী হয়েছেন। সর্বমোট ২ হাজার ৭০ ভোটের মধ্যে ভোট পড়েছে ২ হাজার ৬৫। এর মধ্যে ইউসুফ খান পাঠান পেয়েছেন ১ হাজার ৭৩১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী একেএম ফখরুল আলম বাপ্পি চৌধুরী (চশমা) পেয়েছেন ২৮৮ ভোট এবং অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নুরুল ইসলাম রানা (মোটরসাইকেল) পেয়েছেন ৩৩ ভোট।

মানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম মহীউদ্দীনের কাছে ১০৮ ভোটে পরাজিত হয়েছেন গায়িকা মমতাজ বেগমের দ্বিতীয় স্বামী রমজান আলী। বিজয়ী গোলাম মহীউদ্দীন ‘আনারস’ প্রতীকে পেয়েছেন ৪৬৫ ভোট এবং তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মানিকগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বিদ্রোহী প্রার্থী রমজান আলী ‘মোবাইলফোন’ প্রতীকে পেয়েছেন ৩৫৭ ভোট।

লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মো. শামছুল ইসলাম আনারস প্রতীক নিয়ে ৫৪৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এম আলাউদ্দিন ঘোড়া প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২০৪ ভোট।

জামালপুর : জামালপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ফারুক আহমেদ চৌধুরী বিজয়ী হয়েছেন। ফারুক আহমেদ চৌধুরী (আনারস প্রতীক) পেয়েছেন ৬০২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী এইচ আর জাহিদ আনোয়ার (ঘোড়া প্রতীক) পেয়েছেন ৩৭৬ ভোট।

নড়াইল : নড়াইল জেলা পরিষদ নির্বাচনে বেসরকারি ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস। তিনি চশমা প্রতীক তিনি পেয়েছেন ২৯৪ ভোট তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট সৈয়দ আয়ুব আলী আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৪৩ ভোট।

সুনামগঞ্জ : এ জেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট বিজয়ী হয়েছেন।

হবিগঞ্জ (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : এ জেলায় চেয়ারম্যান পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীতায় আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী ডা. মুশফিক হোসেন চৌধুরী নির্বাচিত হয়েছেন।

বরিশাল : জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. মইদুল ইসলাম ৯৬৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

ঝালকাঠি (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : ঝালকাঠি জেলা পরিষদে সরদার শাহ আলম নির্বাচিত হয়েছেন।

ভোলা (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : ভোলা জেলা পরিষদে আব্দুল মোমিন টুলু বিজয়ী হয়েছেন।

পটুয়াখালী : পটুয়াখালীতে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী খান মোশারফ হোসেন নির্বাচিত হয়েছেন।

ঠাকুরগাঁও (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : ঠাকুরগাঁও জেলা পরিষদ নির্বাচনে সাবেক জেলা পরিষদ প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক কুরাইশী বিজয়ী হয়েছেন।

দিনাজপুর (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : দিনাজপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে আজিজুল ইমাম চৌধুরী নির্বাচিত হয়েছেন।

নীলফামারী : নীলফামারী জেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়নাল আবেদীন ৪৪২ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত। তার নিকটতম আ.লীগ দলীয় প্রার্থী অ্যাডভোকেট মমতাজুল হক পেয়েছেন ৪১১ ভোট।

পঞ্চগড় : পঞ্চগড়ে জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আমানুল্লাহ বাচ্চু টেবিল ফ্যান প্রতীক নিয়ে ১৩৫ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আবু বক্কর ছিদ্দিক পেয়েছেন ১২২ ভোট।

ঢাকা (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : ঢাকায় মো. মাহবুবুর রহমান নির্বাচিত হয়েছেন।

নেত্রকোনা (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : নেত্রকোনা জেলা পরিষদে প্রশান্ত কুমার রায় নির্বাচিত হয়েছেন।

মুন্সীগঞ্জ (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদে মো. মহিউদ্দিন বিজয়ী হয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : কিশোরগঞ্জে মো. জিল্লুর রহমান বিজয়ী হয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জ (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদে মো. আনোয়ার হোসেন নির্বাচিত হয়েছেন।

গাজীপুর (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : গাজীপুর জেলা পরিষদে মো. আখতারুজ্জামান বিজয়ী হয়েছেন।

টাঙ্গাইল (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : টাঙ্গাইলে ফজলুর রহমান খান ফারুক নির্বাচিত হয়েছেন।

ফরিদপুর (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : ফরিদপুরে মো. লোকমান মৃধা বিজয়ী হয়েছেন।

শেরপুর : শেরপুরে জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হুমায়ুন কবীর রুমান চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট চন্দন কুমার পালকে পরাজিত করেছেন তিনি।

গোপালগঞ্জ : গোপালগঞ্জে জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী চৌধুরী এমদাদুল হক বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি আনারস প্রতীকে ৯২৩ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রার্থী অধ্যাপক ডা. মোল্লা ওবায়দুল্লাহ বাকী কাপ পিরিচ প্রতীকে পেয়েছেন ১৫ ভোট।

খুলনা : খুলনা জেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক জেলা পরিষদ প্রশাসক শেখ হারুনুর রশিদ।

যশোর (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : যশোর জেলা পরিষদে শাহ হাদিউজ্জামান নির্বাচিত হয়েছেন।

কুষ্টিয়া (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : কুষ্টিয়া জেলা পরিষদে রবিউল ইসলাম বিজয়ী হয়েছেন।

বাগেরহাট (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : বাগেরহাট জেলা পরিষদে শেখ কামরুজ্জামান টুকু বিজয়ী হয়েছেন।

চুয়াডাঙ্গা : চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শেখ শামসুল আবেদীন খোকন (মোবাইল) প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি ২৬৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

চট্টগ্রাম (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : চট্টগ্রামে এম এ সালাম বিজয়ী হয়েছেন।

ফেনী (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : ফেনীতে আজিজ আহমেদ চৌধুরী নির্বাচিত হয়েছেন।

কক্সবাজার : কক্সবাজারে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য মোস্তাক আহমদ চৌধুরী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

কুমিল্লা : কুমিল্লায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ও সাবেক নৌ-বাহিনীর প্রধান মো. আবু তাহের (চশমা) বিজয়ী হয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আলহাজ শফিকুল আলম (এমএসসি) নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী অ্যাডভোটেক সৈয়দ এ.কে.এম এমদাদুল বারী পেয়েছেন ৫৯৯ ভোট।

জয়পুরহাট (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : জয়পুরহাট জেলা পরিষদে আরিফুর রহমান রকেট বিজয়ী হয়েছেন।

নওগাঁ (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : নওগাঁয় এ কে এম ফজলে রাব্বি নির্বাচিত হয়েছেন।

নাটোর (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : নাটোরে সাজেদুর রহমান খাঁন নির্বাচিত হয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতা) : সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদে আব্দুল লতিফ বিশ্বাস বিজয়ী হয়েছেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা পরিষদে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মইনুদ্দিন মণ্ডল নির্বাচিত হয়েছেন।

  •  

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট