মিয়ানমারে গণহত্যার প্রতিবাদে সিলেটে মিছিল সমাবেশ

প্রকাশিত: ১:৩৯ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০১৬

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মোঃ ফয়জুল করীম বলেছেন, প্রতিটি জাতির মত রোহিঙ্গা মুসলমানদের স্বতন্ত্র পরিচিতি, সাংস্কৃতি ও বৈশিষ্ট জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃত। অথচ রোহিঙ্গা মুসলমানদের হত্যা, নির্যাতনে জাতিসংঘ সহ বিশ^নেতৃবৃন্দের কোন কার্যকর পদক্ষেপ পরিলক্ষিত হচ্ছে না। রোহিঙ্গাদের ঘরবাড়ি ও গ্রামগুলোতে অগ্নিসংযোগ, বেপরোয়া মানুষ হত্যা আর ধর্ষণের মত অমানবিক ঘটনাগুলোকে কফি আনান গণহত্যা বলতেও চাননা। শিশু সন্তানদেরকে মায়ের কোল থেকে কেড়ে নিয়ে আছড়ে মেরে ফেলছে। রোহিঙ্গা সমস্যা রাজনৈতিক ভাবে সমাধান বলে মুখ বন্ধ করে থাকলে হবে না। এর সুষ্ঠু সমাধান করতে হবে। এবং এই হত্যাযজ্ঞ ও নির্মমতা এবং বিশ^ব্যাপী মানবতা ভুলুন্ঠিত হলেও জাতিসংঘের এই অমানবিক আচরণে মুসলিম জাতিসংঘ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। তিনি আরোও বলেন মিয়ানমারে গণহত্যা ও বর্বরতা বন্ধ না হলে পীর সাহেব চরমোনাইয়ের নেতৃত্বে আগামী ১৮ ডিসেম্বর মিয়ানমার অভিমুখে লংমার্চ করে প্রয়োজনে মিয়ানমার গিয়ে মুসলমানদের পাশে দাঁড়াবো।
৯ ডিসেম্বর শুক্রবার বাদ জুম্ময়া সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা মাঠ থেকে মিয়ানমারে মুসলিম গণহত্যা বন্ধে, রোহিঙ্গাদের নগরিকত্ব প্রদান ও পুনর্বাসনের দাবী এবং মিয়ানমার সামরিক জান্তার বিচারে দাবী ও ১৮ ডিসেম্বর মিয়ানমার অভিমুখে লংমার্চ সফলের লক্ষ্যে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সিলেট জেলা ও মহানগরের উদ্যোগে মুফতী মোঃ ফখরুদ্দীন এর সভাপতিত্বে ও ডাঃ রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজের পরিচালনায় বিশাল বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুফতী ফয়জুল করিম উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুস আহমদ, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, কেন্দ্রিয় সদস্য ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন খান। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন সিলেট জেলা সভাপতি নজির আহমদ, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন জেলা সভাপতি আলহাজ¦ ফজলুল হক, ইশা ছাত্র আন্দোলন সিলেট মহানগর সভাপতি মোঃ মাহমুদুল হাসান, ইসলাম যুব আন্দোলনের সদস্য সচিব মোঃ রাশেদুল ইসলাম প্রমুখ সহ সিলেট জেলা ও মহানগর নেতৃবৃন্দ।

ইসলামী ঐক্যজোট
ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী বলেছেন, মিয়ানমারে মুসলিম গণহত্যা ইতিহাসের সকল বর্ববরতাকে হার মানিয়েছে। নিষ্পাপ শিশু হত্যা, মহিলাদের গণধর্ষণ, বাড়িঘরে অগ্নি সংযোগ অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। বিশে^র নির্যাতিত মুসলমানের সাহায্যে আজ কেউ আসছে না। তিনি জাতিসংঘের মাধ্যমে অবিলম্বে গণহত্যা বন্ধ করার আহাবন জানিয়ে বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এবং বৌদ্ধদের সহ সকল দোষীদের আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান।
ইসলামী ঐক্যজোট ও মুসলিম ঐক্য পরিষদের যৌথ উদ্যোগে মিয়ানমারে মুসিলম গণহত্যার ও নির্যতানের প্রতিবাদে ৯ ডিসেম্বর শুক্রবার বাদ জুমআ সিলেটের ঐতিহাসিক সিটি পয়েন্টের বিক্ষোভ সমাবেশ প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
ইসলামী ঐক্যজোট সিলেটের সভাপতি মাওলানা আছলাম রহমানী সভাপতিত্বে ও মুসলিম ঐক্য পরিষদের মহাসচিব মুফতী মুশতাক আহমদ ফুরকানীর পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট-২ আসনের এমপি, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া, জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, মহানগর জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব এডভোকেট আব্দুল হাই কাইয়ুম, যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতা আলহাজ¦ হাফিজ মাছরুর আহমদ, মাওলানা আখতারুজ্জামান, মহানগর ইমাম সমিতির সভাপতি মাওলানা হাবীব আহমদ শিহাব, জেলা সভাপতি মাওলানা এহসান উদ্দিন, মাদানী কাফেলা বাংলাদেশের সভাপতি মাওলানা রুহুল আমীন নগরী, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শায়খুল হাদীস মাওলানা আতাউর রহমান হবিগঞ্জী, মুফতী মুফিজুর রহমান, আল ইসলাহ নেতা অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম খান, হাফিজ আব্দুল হাই মাছুম, মাওলানা খলিলুর রহমান, মাওলানা মাশুক আহমদ সালামী, ডাঃ হবিবুর রহমান, মীম সুফিয়ান, সৈয়দ উবায়দুর রহমান, মাওলানা নূরুজ্জামান, অধ্যক্ষ আফদার খান, হাফিজ আব্দুল করিম দিলদার, আরিফ রব্বানী, মাওলানা আব্দুল মালিক, হাফিজ আব্দুস সালাম, শাখাওত শিকদার, আশরাফ আহমদ, মাওলানা আব্দুস সালাম, মাওলানা আখলাকুর রহমান, রমিজ উদ্দিন, কায়ছান মাহমুদ আকবরী, ময়নুল ইসলাম আল মামুন প্রমুখ।
এমপি ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রী আপনি একজন দ্বীনদার মুসলমান বলে আমরা জানি। অথচ অসহয়া রোহিঙ্গা মসুলমানদের সাহায্যে আপনার কোন উদ্যোগ নেই। আপনার এই আচরনে এদেশের মুসলিম সমাজ মর্মাহত। আমরা মনে করি আপনি উদ্যোগ নিলে জাতিসংঘের মাধ্যমে রোহিঙ্গ মুসলিম হত্যা বন্ধ হবে।
বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে আং সং সুচির কোশপুত্তলিকায় অগ্নি সংযোগ করেন বিক্ষুব্ধ মুসলিম জনতা।

সামাজিক পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা
মায়ানমারের সরকারি বাহিনী কর্তৃক রোহিঙ্গার জনগোষ্ঠিদের গণহত্যা, নির্যাতনের প্রতিবাদে সিলেটে মানববন্ধন করেছে সামাজিক পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা। শুক্রবার জুমার নামাজের পর নগরীর কোর্ট পয়েন্টে এ কর্মসূচী পালন করে তারা। মানববন্ধনে বক্তারা অভিলম্বে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন বন্ধে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ কামনা করেন। পাশাপাশি অং সান সুকির নোবেল পুরষ্কার ফিরিয়ে নেয়ারও দাবি জানান।
সংস্থার সভাপতি নাজিম উদ্দিন সাহানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ।
সংস্থার সিনিয়র সহ-সভাপতি কামাল আহমেদ আম্বিয়ার পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, সিলেট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলীম তুষার, সামাজিক পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার সিনিয়র সহ সভাপতি মো. রুহেল আহমেদ, সহ সভাপতি জিয়া উদ্দিন জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুম আহমদ, সহ সাধারণ সম্পাদক মো. জহির হোসেন, মিনহাজ উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আদনান আহমদ, আনোয়ার উদ্দিন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. মিজানুর রহমান, মো. ফজলুর রহমান, অর্থ সম্পাদক এটিএম রফিকুল আরেফিন, ছাত্র কল্যাণ সম্পাদক নুর আহমদ মুর্শেদ, সহ ছাত্র কল্যাণ সম্পাদক শাহজাহান আহমদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক লোকমান আহমদ, নাট্য ও পাঠাগার সম্পাদক মো. হেমায়েত হোসেন রনি, পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জুয়েল আহমদ, সহ দফতর সম্পাদক এহসান রুবেল খান, সহ পরিকল্পনা সম্পাদক আলামিন হোসেন, সহ সাহিত্য সম্পাদক সুফিয়ান আহমদ, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আতিকুর, সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আজিজুর রহমান, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ রিপন আহমদ, সহ শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ফয়সল আহমদ, অফিস সম্পাদক রিফাতুল ইসলাম প্রমুখ।

ঝালোপাড়া এলাকাবাসী
মায়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে যেভাবে হত্যাযজ্ঞ ও বর্বরতা চলছে তা আইয়ামে জাহেলিয়াতের যুগকে হার মানাবে। বর্তমানে রোহিঙ্গা মুসলিমদের নির্যাতন হত্যা করা হচ্ছে তাতে বিশ্বের সকল মুসলিমদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। বক্তারা মিয়ানমারে অবিলম্বে মুসলমানদের ওপর নির্যাতন বন্ধের দাবি জানিয়ে কঠোর হুঁশিয়ারী দিন। পাশাপাশি বাংলাদেশ সরকারের কাছে সীমান্ত খুলে দিয়ে নির্যাতিত রোহিঙ্গা মুসলমানদের আশ্রয় দেয়ার আহবান জানান। ঝালোপাড়া (চাঁদনীঘাট) এলাকাবাসী আয়োজিত মায়ানমারের (বার্মা) সরকার কতৃর্ক মুসলিম গণহত্যা ও নিষ্টুর নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচীতে বক্তারা এ কথা বলেন।
শুক্রবার বাদ জুম্মা ঝালোপাড়া মসজিদের পাশে মানববন্ধন কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন ঝালোপাড়া পঞ্চায়েত কমিটির সহ সভাপতি মুহিবুর রহমান মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম জুনেদ, হাজ্বী আব্বাস উদ্দিন জালালী, ঝালোপাড়া মসজিদ কমিটির পক্ষ থেকে হাজ্বী আব্দুল মালেক, জালালাবদ সূর্য মূখী যুব সংঘের সভাপতি মো: মামুন হোসেন, উপদেষ্ঠা কমিটির পক্ষ থেকে সাখাওয়াত হেসেন রাজু, ঝালোপাড়া মসজিদের ইমাম মাওলানা জাকির হোসেন, বিশিষ্ট মুরব্বী শাহিন আহমদ, কয়সর রশিদ, আমিরুল ইসলাম, জিয়াউল ইসলাম, ঝালোপাড়া সাধারণ সম্পাদক শেখ সাদি কমল, সহ সাধারণ সম্পাদক জহির রায়হান খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক তারেক আহমদ, খায়রুল আলম, মাওলানা ওমর উদ্দিন রানা প্রমুখ। এছাড়াও মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন ঝালোপাড়া পঞ্চায়েত কমিটি, মসজিদ কমিটি, জালালাবদ সূর্য মূখী যুব সংঘ সহ ঝালোপাড়া এলাকার সর্বস্তরের নেতৃবৃন্দ।

মুয়াজ্জিন কল্যাণ সমিতি
মুয়াজ্জিন কল্যাণ সমিতি সিলেটের উদ্যোগে মিয়ানমারের রাখাইন অঙ্গরাজ্যের রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর অমানবিক নির্যাতন, নির্মম হত্যা, ঘরবাড়ি জ¦ালিয়ে দেয়ার প্রতিবাদে ও গণহত্যা বন্ধের দাবীতে ৯ ডিসেম্বর শুক্রবার বাদ জুম্মা নগরীর ঐতিহাসিক কোর্ট পয়েন্টে এক বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।
মুয়াজ্জিন কল্যাণ সমিতি সিলেটের সভাপতি মাওলানা সাইদুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মাওলানা জাহেদ আহমদের পরিচালনায় মানববন্ধনের বক্তব্য রাখেন মাওলানা রফিকুল ইসলাম জাকারিয়া, মাওলানা কবি মিম সুফিয়ান, হাফিজ আব্দুল্লাহ, মাওলানা উসমান, হাফিজ কামাল, হাফিজ ইয়াহইয়াহ, মাদানী কাফেলা বাংলাদেশের সভাপতি মাওলানা রুহুল আমীন নগরী ও সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী সহ নগরীর বিভিন্ন মসজিদের মুসলিগণ উপস্থিত ছিলেন।
মানববন্ধনে বক্তাগণ বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী নিরীহ রোহিঙ্গা মুসলিমদের নির্বিচারে হত্যা করছে। অথচ বিশে^র মানবাধিকার সংস্থা সহ জাতিসংঘ নিরব দর্শকের ভ‚মিকা পালন করছে। যা সত্যিই দুঃখজনক। বক্তারা অবিলম্বে এই গণহত্যা বন্ধের জোর দাবী জানান এবং বাংলাদেশ সীমান্তে আশ্রয়ের জন্য আগত রোহঙ্গিা মুসলিমের আশ্রয় প্রদানের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান। শেষে রোহিঙ্গা নিহত মুসলমানদের রূহের মাগফেরাত ও নির্যাতিতদের সুস্থতা কামনা করে দোয়া পরিচালনা করেন মুফতী বেলাল হুসাইন।

কুচাই এলাকাবাসী
মিয়ানমারে মুসলমান রোহিঙ্গাদের গণহত্যা, ধর্ষণ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার কুচাই ইউনিয়নের কুচাই বাজারে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। শুক্রবার বাদ জুমআ মিছিলটি ইউনিয়নের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে বাজারে মানববন্ধনে মিলিত হয়।
এতে বক্তারা বলেন, মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর ইতিহাসের নির্মমতম নির্যাতন ও বর্বরোচিত গণহত্যা চলছে। সে দেশের সরকার, সেনাবাহিনী ও বৌদ্ধ সন্ত্রাসীরা হত্যা, লুণ্ঠন ও বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করছে। শিশুদের নির্যাতন করে হত্যা করছে। হাজার হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে জঙ্গলে আশ্রয় নিয়েছেন। প্রাণ হাতে নিয়ে পালাচ্ছে শিশু, নারী ও বৃদ্ধারা। কিন্তু আশ্রয় মিলছে না কোথাও। রোহিঙ্গা মুসলমানদের পাশে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ সরকার। বক্তারা বলেন, আমরা সংবাদ মাধ্যমে দেখেছি অনেক নির্যাতিত মুসলমানকে আমাদের দেশে আশ্রয় দেওয়া হচ্ছে। আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই। একই সাথে জাতিসংঘের বিশ্ববিবেক নীরব না থেকে মুসলাম রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াবে বলে আমরা আশাবাদী।
জেলা পরিষদ নির্বাচনে ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী গুলজার আহমদের সভাপতিত্বে ও ছাত্রনেতা তালহা আহমদ ও জামিল আহমদ তালুকদারের পরিচালনায় মিছিল পরবর্তী মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট সমাজসেবী হাসান মাহমুদ মসরু, মুরুব্বি আব্দুর রউফ দারা, কমর উদ্দিন জালাল, মাহমুদ হাসান শাহীন, যুবসমাজের পক্ষে বক্তব্য রাখেন, নুরুল আলম সুকন, রাসেল আহমদ, আজির উদ্দিন, কাহের আহমদ, ছাত্র নেতা আকবর আলী, হুসেন আহমদ, বাবর আহমদ, নাঈম আহমদ, সাইদুর রহমান, ইব্রাহিম খলিল, সামাদ আহমদ, তারেক আহমদ, জাবেদ আহমদ, একরামুল সাব্বির, শাকিল, জাবেদ, বুলবুল, রুহুল আমিন, সমর আহমদ, সুজন, নিয়াজ প্রমুখ।
মানববন্ধন শেষে কুচাই জামেয়া মসজিদের ইমাম ও খতিব আব্দুর রহিম মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলামদের অধিকার প্রতিষ্ঠা ও হত্যাকারীদের বিচার চেয়ে বিশেষ মোনাজাত করেন।

ঝেরঝেরীপাড়া মাদ্রাসা
মায়ানমারের রোহিঙ্গাদের নির্যাতন ও গণহত্যার প্রতিবাদে ঝেরঝেরীপাড়া জামেয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া দারুল হাদিস (টাইটেল) মাদ্রাসা এবং স্থানীয় এলাকাবাসীর ব্যানারে নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার বাদ জুমা ঝেরঝেরিপাড়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গণ থেকে মিছিল বের করে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সিটি পয়েন্টে এসে সমাবেশে মিলিত হয়।
সমাবেশে বক্তারা মায়ানমারের মুসলিম রোহিঙ্গাদের সাহায্যে এগিয়ে আসতে বিশ্ব মুসলিম নেতৃবৃন্দের প্রতি আহবান জানান। পাশাপাশি সে দেশের নেত্রী অংসান সুচির শান্তিতে নোবেল পদক ফিরিয়ে নেওয়ারও দাবি জানান।
মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহমুদ সোয়াইবের সভাপতিত্বে ও শিক্ষা সচিব হারুনুর রশীদ আল আজাদের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, মুশফিকুস সামাদ চৌধুরী, মাওলানা আশরাফ খাঁন, মাওলানা জামাল উদ্দিন, মাহফুজ আহমদ চৌধুরী জয় প্রমুখ।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট