ওসমানী মেডিকেল কলেজে বিশ্ব এইডস দিবস উদযাপন

প্রকাশিত: ২:১০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২, ২০১৬

১লা ডিসেম্বর বিশ্ব এইডস দিবস উপলক্ষে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পিএমটিসিটি প্রকল্পের উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়েছে। দিনের শুরুতে ইউনিসেফ এর সহায়তায় সিওমেক হাসপাতালে বাস্তবায়িত ‘মা হতে শিশুর শরীরে এইচআইভি ও জন্মগত সিফিলিস প্রতিরোধ কার্যক্রম (পিএমটিসিটি) ও আশার আলো সোসাইটি, সিলেট এর আয়োজনে হাসপাতালে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালীর আয়োজন করা হয়। র‌্যালীতে অংশ গ্রহনকারীগন নিজেদের হাতে বিভিন্ন বার্তা লিখে এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ” আসুন ঐক্যের হাত তুলি, এইচআইভি প্রতিরোধ করি” এর প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করেন। সিওমেক হাসপাতালের পরিচালকের নেতৃত্বে র‌্যালীটি হাসপাতালের প্রশাসনিক বøক থেকে শুরু হয়ে রিকাবী বাজার হয়ে পূনরায় হাসপাতাল চত্বরে এসে শেষ হয়। হাসপাতালের বিভিন্ন বিভাগের অধ্যাপক ও শিক্ষক মন্ডলী সহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা কর্মচারীগন র‌্যালীতে অংশ গ্রহন করেন।

র‌্যালী শেষে হাসপাতালের সেমিনার রূমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পিএমটিসিটি’র প্রকল্প ব্যবস্থাপক মোঃ মোতাহের হোসনের সঞ্চালনায় সভায় সভাপতিত্ব করেন হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ আব্দুস ছবুর মিঞা। সভার শুরুতে গাইনী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাঃ ইশরাত জাহান করিম ও শিশু স্বাস্থ্য বিভাগেররেজিস্ট্রার ডাঃ মোঃ জাকির হোসেন নিজ নিজ বিভাগের পক্ষে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

সভার শুরুতেই বিশ্ব এইডস দিবস ও এইডস সংক্রমন প্রতিরোধে স্বাস্থ্য সেবাদানকারীদের ভূমিকা নিয়ে বক্তব্য রাখেন কমিউনিটি মেডিসিন বিভিাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডাঃ শিব্বির আহমেদ পর্যায় ক্রমে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ডাঃ মোঃ মনোজ্জির আলী, অধ্যাপক ডাঃ এএফএম নাজমুল ইসলাম, অধ্যাপক নুরুল আলম, অধ্যাপক আবু ইউসুফ ভূইয়া, অধ্যাপক জাহানারা বেগম, ডাঃ কল্লোল বিজয় কর, ডাঃ দিলিপ কুমার ভৌমিক প্রমুখ।
সভায় আলোচকগন সিলেট অঞ্চলে এইডস এর বিস্তারে ঝুঁকিপূর্ণতা এবং তা প্রতিরোধে করনীয় ও সিওমেক হাসপাতাল কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগ্যের উপর আলোকপাত করেন। এইচআইভি সংক্রমনের অন্যতম ঝুঁকি প্রবন এলাকা হিসেবে সিলেট অঞ্চলে এব্যপারে জনসচেতনতা বৃদ্ধির উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়।
পাশাপাশি সরকাররে সংক্রমণ প্রতিরোধ নির্দেশনা মোতাবেক ব্যবস্থা নিয়ে এইচআইভি আক্রান্তদের সেবাদান করলে সেবাদানকারীদের সংক্রমণের ঝুঁকি অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব বলে বক্তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।

অধ্যাপক ডাঃ মোঃ শিব্বির আহমেদ বলেন, চিকিৎসক হিসেবে এইচআইভি আক্রান্তদের সেবা প্রদানে অবশ্যই সেবা প্রদানকারীগন প্রতিশ্রæতিবদ্ধ। কোন রোগী যদি চিকিৎসা বঞ্চিত হয়ে ফেরত যায় তার দায়ভার সেবা প্রদানকারীরা কোন অবস্থাতেই এড়াতে পারবেন না। আর এধরনের ঘটনা ঘটলে সেবাদানকারীদেরই সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়বে।
সভায় অন্যনন্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিওমেক হাসপাতাল এর বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক সহ অন্যান্য চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ।

উল্লেখ্য যে, পিএমটিসিটি প্রকল্পের মাধ্যমে সিওেমেক এ আগত সকল গর্ভবতী মাদের বিনামূল্যে এইচআইভি পরীক্ষা করা হয় এবং গর্ভবতী মা হতে শিশুর মধ্যে এইচআইভি সংক্রমন প্রতিরোধে বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহন করা ও আক্রান্ত মাদের ডেলিভারীসহ অন্যান্য চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট