ছেলের জন্মদিনে কেক কাটবেন খালেদা

প্রকাশিত: ৬:৫৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৯, ২০১৬

বিএনপির সিনিয়র ভইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫২তম জন্মদিনে কেক কাটবেন তার মা খালেদা জিয়া।

তিনি শনিবার দিনগত রাত ১২টা ১ মিনিটে ৫২ পাউন্ডের কেক কেটে ছেলের জন্মদিন উদযাপন করবেন বলে জানিয়েছেন, চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার।

শামসুদ্দিন দিদার বলেন, দলের সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যানের জন্মদিন উপলক্ষ্যে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো বহু কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

কেন্দ্রীয়ভাবে প্রত্যেক সংগঠন গুলশান কার্যালয়ে পৃথকভাবে কেক কাটবে। সারাদেশে একইভাবে তারেক রহমানের জন্মদিন উদযাপন হবে।

এ বিষয়ে বিএনপির দপ্তর সূত্র জানিয়েছে, তারেক রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে রবিবার দুপুরে রাজধানীর রমনার ইন্সটিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ মিলনায়তনে আলোচনা সভা করবে বিএনপি।

পরদিন সোমবার বাদ আসর নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নীচতলায় বিএনপির উদ্যোগে তার সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়াও রবিবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নীচ তলায় ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব)-এর উদ্যোগে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে গরিব ও দুস্থদের মাঝে বিনামূল্যে ওষুধ বিতরণ ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের দিয়ে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হবে।

তারেকের জন্মদিন উপলক্ষে সারাদেশে জেলা, মহানগর, থানা-উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও অন্যান্য কর্মসূচি পালন করবে।

উল্লেখ্য, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমান। তিনি ১৯৬৫ সালের ২০ নভেম্বর জন্মগ্রহন করেন এবং তার ডাক নাম পিনু।

তারেক রহমান ঢাকার শাহীন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ১৯৯৪ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি বিমানবাহিনীর সাবেক প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল মাহবুব হোসেনের বড় মেয়ে ডা. জোবাইদার সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তারেক।

১৯৯১ সালে বগুড়ার গাবতলী থানা বিএনপির সদস্য পদ লাভের মধ্য দিয়ে রাজনীতিতে আনুষ্ঠানিক প্রবেশ করেন তিনি। ১৯৯৬ সালে জেলা বিএনপির সদস্য হন। ২০০২ সালে তারেক রহমানকে দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব নির্বাচিত করে বিএনপির স্থায়ী কমিটি।

চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে তার বিরুদ্ধে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। গত সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ২০০৭ সালের ৭ মার্চ তারেককে দুর্নীতি মামলায় গ্রেপ্তার করে পুলিশ। উচ্চ আদালত থেকে প্যারোলে জামিন পেয়ে ২০০৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর তিনি চিকিৎসার উদ্দেশে স্বপরিবারে লন্ডনে যান। তারেক রহমান চিকিৎসাধীন অবস্থায় এখনো যুক্তরাজ্যেই অবস্থান করছেন। সঙ্গে আছেন স্ত্রী ডা. জোবাইদা রহমান ও মেয়ে জাইমা রহমান।

  •