সংখ্যালঘুদের বিষয়টি ধামাচাপা দিতেই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা : ফখরুল

প্রকাশিত: ৯:৫৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৭, ২০১৬

সংখ্যালঘুদের হামলার বিষয়টি থেকে জনগণের দৃষ্টি ঘোরাতে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি।

বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সরকারের এই সিদ্ধান্তকে ‘নোংরা কৌশল’ হিসাবে আখ্যায়িত করেন।
বিবৃতিতে, সরকারের নির্দেশেই ‘মামলা ও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, ‘এটা শাসকগোষ্ঠীর প্রতিহিংসামূলক রাজনীতির আরেকটি পদক্ষেপ। বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রকে গভীর খাদের মধ্যে নিক্ষেপ করার জন্য বেগম জিয়াকে বিপর্যস্ত করা তাদের জন্য জরুরি হয়ে পড়েছে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বিএনপিকে ধ্বংস এবং বিএনপি চেয়ারপারসনকে বিপর্যস্ত করার জন্য সরকারের সর্বাত্মক অপচেষ্টা ব্যর্থ হওয়াতেই তারা এখন বেপরোয়া ও কাণ্ডজ্ঞানহীন চক্রান্তে লিপ্ত হয়েছে।

কিন্তু শাসকগোষ্ঠী কোনোভাবেই উপলব্ধি করতে পারছে না যে, ব্যাপক জনসমর্থিত একজন নেত্রীকে অবৈধ ক্ষমতার জোরে কখনোই ধ্বংস করা সম্ভব নয়।’

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করে অধিকার পুনঃরুদ্ধারের সংগ্রাম থেকে বিরত রাখা যাবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সম্প্রতি গোবিন্দগঞ্জ, নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির ও বাড়িঘরে যে তাণ্ডব চালানো হয়েছে, তাতে শাসকদলের সুস্পষ্ট জড়িত থাকার ঘটনায় সরকারের বিরুদ্ধে ধিক্কার উঠেছে।

সেটিকে ধামাচাপা দিতেই জনগণের দৃষ্টিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্য খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।’

বিবৃতিতে তিনি আরো বলেন, ‘এদেশে বর্তমানে যেমন মানুষের কথা বলার স্বাধীনতা ও কোনো গণতান্ত্রিক অধিকার নেই, তেমনি দেশের নাগরিকদের ব্যক্তিগত কোনো আচার-অনুষ্ঠান পালনেরও কোনো অধিকার নেই। দেশে যেন একচ্ছত্র আওয়ামী আধিপত্যবাদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।’

বিএনপি মহাসচিব অবিলম্বে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ও মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

  •