গোটা দেশ আজ বিপদে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হোন : ফখরুল

প্রকাশিত: ১২:৪৯ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১২, ২০১৬

অবৈধ সরকারের অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে
সরকারি হামলা-মামলা, অত্যাচার-নির্যাতনের পরও বিএনপি সঠিক জায়গায় আছে বলে দাবি করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। একই সঙ্গে তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকতে নতুন প্রজন্মের কাছে ক্ষমতাসীনরা ‘বিকৃত ইতিহাস’ তুলে ধরছে। তবে আমরা সঠিক জায়গায় আছি। কেননা, আমাদের অভিভাবক হিসেবে আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান আছেন বিদেশে, মাথার ওপরে আছেন মহান আল্লাহ। আর আমাদের অনুপ্রেরণা মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। সুতরাং আমাদের ভয় পাওয়ার কিছু নেই। গতকাল শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল। জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে এ সভা হয়। : সম্প্রতি একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত বেগম খালেদা জিয়ার সাক্ষাৎকারের প্রসঙ্গ টেনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ওই সাক্ষাৎকারে বেগম খালেদা জিয়া সত্য কথা বলেছেন। দেশবাসী প্রায় সবাই এটাকে অ্যাপ্রিসিয়েট করেছেন। তারা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন একটা ভাল সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। অথচ আওয়ামী লীগ থেকে বলা হলো, তিনি মিথ্যাচার করেছেন। আসলে প্রতি মুহূর্তে আপনারা (ক্ষমতাসীনরা) মিথ্যাচার করছেন। জাতিকে পিছিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। একদলীয় শাসন ব্যবস্থাকে পাকাপোক্ত করার জন্য সবকিছু দখল করে ফেলেছেন। মিডিয়াকেও দখল করে মিথ্যা কথা প্রচার করছেন। কারণ ক্ষমতা এখনো আপনাদের হাতে আছে। আওয়ামী লীগ জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে দাবি করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ এখন দেউলিয়া রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে। কিছু নেই তাদের। সেজন্য তাদেরকে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর নির্ভর করতে হয়। জনগণের ওপর তারা নির্ভর করতে পারে না। এজন্য তারা ভোটের রায়কে জোর করে কেড়ে নেয়। মানুষকে ভোট দিতে দেয় না। : মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা আমাদের জাতিসত্তা নিয়ে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে চাই। সেজন্য আমরা সত্য কথাগুলো আমাদের প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে চাই। কিন্ত এরা (আওয়ামী লীগ) কী করছে, অত্যন্ত সচেতনভাবে পরবর্তী প্রজন্মকে একটা মিথ্যা ধারণা দিচ্ছে, ভুল ধারণা দিচ্ছে, বিকৃত ইতিহাস তুলে ধরছে। তিনি বলেন,  সেই ইতিহাসে লাভটা কি হবে? লাভটা হবে তাদের যে, তারা দীর্ঘদিন ক্ষমতায় টিকে থাকার সুযোগ করে নিতে চাচ্ছে। ক্ষতিটা হবে কার- এই জাতির, এই জাতি নিজস্ব স্বকীয়তা হারিয়ে ফেলবে, তার নিজস্ব যে গৌরব, সেই গৌরবগাঁথা হারিয়ে ফেলবে। জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে সরকারের অনুমতি না দেয়ার প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ওরা (আওয়ামী লীগ সরকার) ৭ নভেম্বরকে ভয় পায় বলে আমাদের সমাবেশ করতে দেয় না। মানুষ যদি এক সাথে হয় সেজন্য তারা ভয় পায়।  ভয় পায় বলে তারা নির্বাচন দেয় না, ভয় পায় বলে তারা সংবিধান থেকে গণভোটের ব্যবস্থা তুলে নিয়েছে, ভয় পায় বলে তারা জনগণ থেকে দূরে  থাকে। আওয়ামী লীগ এতোই দেউলিয়া রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে যে, তারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর এখন তাদের নির্ভর করতে হচ্ছে। : বিএনপির দর্শন তুলে ধরে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদী দর্শনের ওপর ভিত্তি করে বিএনপি প্রতিষ্ঠিত, যার প্রতীক হচ্ছেন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান, যার প্রতীক হচ্ছেন আমাদের দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, যার প্রতীক হচ্ছেন এখন আমাদের তারেক রহমান। বিএনপির এই নেতা বলেন, আমরা তাঁদেরকে কোনো ব্যক্তি বা কারো স্ত্রী, ছেলে মনে করি না। আমরা মনে করি, তারা বাংলাদেশে ১৬ কোটি মানুষের যে রাজনৈতিক চিন্তা, যে রাজনৈতিক দর্শন বিশ্বাস করে, সেই দর্শনের প্রতীক। তাদেরকে সামনে নিয়ে আমরা এগিয়ে চলেছি। তারা সেই পতাকা ধরে আছেন, যে পতাকা হচ্ছে স্বাধীনতার পতাকা,  শৃঙ্খলের পতাকা নয়, দেশের মানুষের এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পতাকা, পেছনে যাওয়ার পতাকা নয়। ক্ষমতাসীনরা সারাক্ষণ অতীতচারিতা করে জনগণের কাছে মিথ্যাচার করছে বলেও অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল। : তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর প্রতি ইংগিত করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমি একটা প্রশ্ন করতে চাই, সেই সময়ে আপনারা জাসদ গঠন করলেন কেন? আওয়ামী লীগে ছিলেন, আওয়ামী লীগের বড় বড় নেতা ছিলেন আপনারা। আ স ম আবদুর রব চার খলিফার একজন, শাহজাহান সিরাজ চার খলিফার একজন ছিলেন। সিরাজুল আলম খান সাহেব, জলিল সাহেব তারা কেন জাসদ তৈরি করলেন? তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হয়েছিল এদেশের আশা-আকাক্সক্ষা পূরণ করার জন্য, তারা ব্যর্থ হয়েছিল দেশ পরিচালনা করার জন্য, তাদের দুর্নীতি, তাদের স্বজনপ্রীতি এমন একটা পর্যায় গিয়েছিল লোকেরা তাদের (আওয়ামী লীগ) কাছ থেকে বেরিয়ে চলে এসেছিলেন। : দেশে চরম দুঃশাসন-জুলুম চলছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে আমরা খুব বিপদে আছি। শুধু বিএনপি নয়, গোটা দেশ ও জাতি আজকে বিপদে আছে। এ বিপদ থেকে উদ্ধার পেতে হলে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। মানুষকে সঙ্গে নিয়ে সরকারের অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। এ সময় মহিলা দলের নেত্রীদের সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করার মধ্য দিয়ে বিপ্লব ঘটিয়ে দেশে জনগণের শাসন ফিরিয়ে আনার আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব। মহিলাদলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে ঘরে ঘরে গিয়ে ‘অন্যায় ও দুঃশাসন’ এর বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তোলার আহবানও জানান মির্জা ফখরুল। : জাতীয়তাবাদী মহিলাদলের সভানেত্রী আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খানের পরিচালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, মহিলাদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, সিনিয়র সহসভাপতি নুরজাহান ইয়াসমীন, কেন্দ্রীয় নেতা রাজিয়া আলীম, পিয়ারা মোস্তফা প্রমুখ।
  •  

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট