সিলেটে ছাত্রলীগ নেতা পিযুষ সহ ১০ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত: ২:৩২ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০১৬

সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কায়সার আহমদ সুমন এর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় থানায় মামলা নেয়নি পুলিশ। নানা অজুহাতে মামলা গ্রহনে অপারগতা প্রকাশ করায় আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
নগরীর স্টেডিয়াম মার্কেটস্থ ডি নোভা ফার্মেসীতে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা পিযুষ কান্তি সহ ১০ জনকে আসামী করে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। রবিবার সিলেটের চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত-এ মামলাটি দায়ের করেন ফার্মেসীর অন্যতম স্বত্তাধিকারী সাইদুল হক চৌধুরী। আদালত মামলাটি এজাহার হিসেবে আমলে নিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতাকে নির্দেশ দেন।
এদিকে ছাত্রলীগ নেতার দায়েরকৃত মামলায় আটককৃত ছাত্রদল নেতা প্রিন্স আহমদ খানের বিরুদ্ধে পুলিশের পক্ষ থেকে ৭ দিনের রিমান্ড চাওয়া হলে আদালত রিমান্ড নামঞ্জুর করেন।
এজাহার সুত্রে জানা যায়, কতিপয় ছাত্রলীগ নেতার দাবীকৃত চাঁদা না দেয়ায় গত বুধবার নগরীর স্টেডিয়াম মার্কেট এলাকায় অবস্থিত ছাত্রদল নেতা কায়সার আহমদ সুমনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা পিযুষ কান্তির নেতৃত্বাধীন গ্রæপ। এসময় সন্ত্রাসীরা ফার্মেসীতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর, লুটপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের পিটিয়ে আহত করে। এই ঘটনায় ফার্মেসী কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে কোতয়ালী মডেল থানায় মামলা করতে গেলে পুুলিশ মামলা নিতে অপারগতা প্রকাশ করে।
উল্টো হামলা কারী ছাত্রলীগ নেতা সজল দাস অনিকের দায়েরকৃত মামলায় ছাত্রদল নেতা প্রিন্স আহমদ খানকে আটক করা হয়। রবিবার পুলিশ প্রিন্সের বিরুদ্ধে আদালতে ৭ দিনের রিমান্ড চাইলে, রিমান্ড না মঞ্জুর করা হয়।
কোতোয়ালী মডেল থানা ফার্মেসী কর্তৃপক্ষের মামলা গ্রহন না করায় অবশেষে আদালতে মামলা দায়ের করেন ফার্মেসীর অন্যতম স্বত্তাধিকারী সাইদুল হক চৌধুরী। সাবেক ছাত্রলীগ নেতা পিযুষ কান্তি দে (৩৮), ছাত্রলীগ নেতা সজল দাস অনিক (২৩) ও ময়নুল ইসলাম (২৪) সহ ১০ নেতার নাম উল্লেখ করে মামলাটি দায়ের করা হয়। রবিবার চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত সিলেট মামলাটি আমলে নিয়ে কোতয়ালী মডেল থানা কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন।
আদালতে বাদী পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন সিনিয়র আইনজীবি এডভোকেট ফয়জুর রহমান জাহেদ, এডভোকেট আতিকুর রহমান সাবু, এডভোকেট জোহরা জেসমিন, এডভোকেট আল আসলাম মুমিন, এডভোকেট খালেদ জুবায়ের, এডভোকেট ইসরাফিল আলী, এডভোকেট মামুুন আহমদ রিপন, এডভোকেট ওবায়দুর রহমান ফাহমী ও এডভোকেট মুমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট