পুলিশের সোর্স রুবেলের বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত: ৫:৪৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০১৬

সিলেটে পুলিশের সোর্স রুবেলের অপপ্রচার  এবং মিথ্যাচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন নগরীর ঘাসিটুলাবাসী।

এলাকাবাসীর পক্ষে শুক্রবার (১৪অক্টোবর) এক সংবাদ সম্মেলনে এর নিন্দা জানিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন প্রবীণ মুরব্বি ও সাবেক ইউপি মেম্বার মোস্তফা কামালসহ কয়েকজন।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয় গত ১১অক্টোবর রুবেল সংবাদ সম্মেলন করে এলাকার শান্তিকামী ও নিরপরাধ মানুষের বিরুদ্ধে নানা আপত্তিকর কুৎসা রটিয়েছে। সম্মেলনে বলা হয়, রুবেল আহমদ সিলেট নগরীর স্থায়ী কোন বাসিন্দা নয়। সে নেত্রকোনার কদমশ্রী এলাকার বাসিন্দা । সিলেটে মা-বোন নিয়ে ভাসমান অবস্থায় থেকে নিজেকে নগরীর ঘাসিটুলার বাসিন্দা বলে মিথ্যা দাবি করে সমাজে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করছে। বিভিন্ন এলাকাকায় ঘনঘন বাসা বদল করে জনহয়রানেিত লিপ্ত রয়েছে। পুলিশের সোর্স পরিচয়ে ভয়-ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমে চাঁদাবাজি ও চাঁদা আদায় তার একমাত্র নেশা ও পেশা। পাশাপাশি মাদকদ্রব্য পাচার ও কেনা-বেচাসহ নারীদেহের ব্যবসার সাথেও সে জড়িত।

কিছুদিন আগে রুবেল তার বিভিন্ন অপকর্মের মামলায় গ্রেফতার হয়ে জেরে যায়, পরে হাইকোর্টের জামিনে বের হয়ে আসে। এর পর থেকে সে আরো বেপরোয়া হয়ে  উঠেছে।

গতবছরের ২৮অক্টোবর রুবেল সাদাপোষাকী দু’জন লোক নিয়ে ডিবি পরিচয় দিয়ে এলাকার সাবেক ইউপি মেম্বার মোস্তফা কামালের কাছে মাসিক ২০হাজার টাকা এবং একই বছরের ৫ডিসেম্বর ঘাসিটুলার স্থায়ী বাসিন্দা রকিব মিয়ার কাছে মোটা অংকের চাঁদা দাবি । চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় সে রকিব মিয়াকে মারপিট করে। এঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। রুবেল নিজে পতিতা ব্যবসা করে অন্যের বিরুদ্ধে নারীদেহ ব্যবসার অপবাদ দিয়ে তা সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করে। পুলিশের সোর্স পরিচয়দানকারী রুবেলের জনহয়রানী ও চাঁদাবাজি থেকে এলাকাবাসী মুক্তি চান।

সংবাদ সম্মেলনে রুবেলের বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক আইনে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আইনশৃংখলা রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত বিভিন্ন সংস্থাসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাবেক ইউপি মেম্বার আব্দুল মতিন, ঘাসিটুলার সিরাজুল ইসলাম, আব্দুর রকিব, মঈন উদ্দিন, আরমান মিয়া, শফিক মিয়া এবং কলাপাড়ার আবুল কালাম আজাদ প্রমূখ।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট