সিলেটের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের নিরপত্ত্বা জোরদার এখন সময়ের দাবী : এম এ হক

প্রকাশিত: ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৮, ২০১৬

সন্ত্রাসী বদরুলের শাস্তির দাবীতে জাতীয় মানবাধিকার সোসাইটি মানববন্ধন
সিলেট সরকারী মহিলা কলেজের স্নাতক ২য় বর্ষের মেধাবী ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিস এর উপর বর্বোরোচিত নিষ্ঠুর নৃশংস সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে ও সন্ত্রাসী বদরুলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং সিলেটের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র/ছাত্রীদের নিরাপত্তা জোরদার করার দাবীতে গতকাল ৭ অক্টোবর শুক্রবার বিকেল ৩টায় সিলেট কোর্ট পয়েন্টে জাতীয় মানবাধিকার সোসাইটি সিলেট জেলা শাখার উদ্যোগে এক মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। এতে সিলেটের সকলের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ছাড়াও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।
জাতীয় মানবাধিকার সোসাইটির কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও সিলেট জেলা শাখার সভাপতি এডভোকেট আল আসলাম মুমিনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আলহাজ¦ এম.এ হক। তিনি বলেন, সিলেটবাসী সবসময় সকল বর্বরচিত কর্মকান্ডের নিষ্ঠুরতার বিরুদ্ধে সর্বদা জাগ্রত ও সোচ্চার। সন্ত্রাসীরা মানুষ ও মানবতার উপর যে কোন সময় বর্বরোচিত হামলা চালাতে পারে। এসব কাজ করতে তাদের হৃদয় কাঁপেনা। খাদিজা আক্তার নার্গিসের উপর হামলাকারী বদরুল একটি নরপশু। তাকে দ্রুত বিচার আইনের মাধ্যমে সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদানের জন্য জোর দাবী জানান। সিলেটের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের নিরাপত্ত্বা জোরদার করা এখন সময়ের দাবী।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম। তিনি বলেন, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থির অবনতির কারণে এবং সন্ত্রাসীদের বেপোয়া হওয়ার কারণে দেশে একের পর এক ন্যাক্কারজনক ঘটনার জন্ম হচ্ছে। খাজিদার উপর সন্ত্রাসী হামলাকারী বদরুলের দ্রুত বিচার আইনে শাস্তি প্রদান করতে হবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, এডভোকেট আখতার হোসেন খান, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসানা কয়েছ লোদী, জাতীয় মানবাধিকার সোসাইটির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ড. এম. শহিদুল ইসলাম এডভোকেট। বক্তব্য রাখেন জাতীয় মানবাধিকার সোসাইটি সিলেট জেলার সহ-সভাপতি নিজাম উদ্দিন জায়গীরদার, মুজিবুর রহমান, রেজাউল করিম আলো, সাংবাদিক আফরুজ আহমদ, মুরাদ হোসেন, কাজী মেরাজ, জেহিন আহমদ, ছাব্বির আহমদ, আব্দুল মালেক, সাহেদ আহমদ, কামারুল হাসান, রিয়াদুল হাসান রুহেল, সামছুল ইসলাম টিটু, মিজানুর রহমান মিজান, ময়নুল আহমদ, মাজেদ আহমদ, নির্ঝর রায়, শিপন আহমদ, জাহেদ আহমদ, ইলিয়াস মিয়া, কাচা মিয়া প্রমুখ। আলী আকবর রাজন ও শিহাব উদ্দিন আহমদ পরিচালনা করেন।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট