বদরুলের ফাঁসির দাবিতে মহিলা কলেজ শিক্ষাথীদের বিক্ষোভ

প্রকাশিত: ৪:১৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৫, ২০১৬

সিলেট সরকারী মহিলা কলেজের স্নাতক (পাস) দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী খাদিজা আক্তার নার্গিসকে হত্যার উদ্দেশ্যে নৃসংসভাবে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় দায়ি ছাত্রলীগ নেতা বদরুলের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করেছে তার সহপাঠিরা।
বুধবার সকাল ১০টায় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে মিছিল বের করে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় কলেজ ক্যাম্পাসের সামনের সড়কে এসে অবস্থান নেয়।
এসময় তাদের হাতে বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি সম্বলিত বিভিন্ন ধরনের প্লাকার্ড শোভা পাচ্ছিল। আর তাদের কণ্ঠে ‘ফাঁসি’ ‘ফাঁসি’ শ্লোগানে মুখর হয়ে উঠে পুরো এলাকা। বিভিন্ন শ্রেণীর সাধারণ মানুষকেও তাদের বিক্ষোভে একাত্ম হতে দেখা যায়।
এসময় তাদের অবরোধের কারণে চৌহাট্টা-জিন্দাবাজার সড়কে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘ ঘন্টাব্যাপী সড়কে অবস্থানের পর কলেজের শিক্ষকদের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে আন্দোলনরত খাদিজার সহপাঠিরা রাস্তা ছেড়ে দিয়ে ক্যাম্পাসের ভেতরে চলে যায়।
এদিকে, একই দাবিতে জেলা প্রসাশক বরাবর স্মারকলিপিও দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।
সিলেট সরকারী মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী ও এই আন্দোলনের আহবায়ক ফজিলাতুন্নেসা বলেন, আমরা নিরাপত্তাহীনতা বোধ করছি। আমাদের মা বাবা আমাদেরকে স্কুল কলেজে পাঠান আসলেই কি সেখানে আমরা নিরাপদ। কোপানোর সংস্কৃতি আজ কলেজে ডুকে গেছে। আর কত খাদিজা মরলে আমরা নিরাপত্তা পাব।
আগামীকাল বৃহস্পতিবার সিলেটের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ সফল করার জন্য তিনি আহবান জানান।
সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম বলেন, প্রকাশ্যে দিবালোকে একটা ক্যাম্পাসে এই ধরনের হামলা বর্বরতম। এমন ঘটনা মেনে নেয়া যায় না। হামলাকারীর দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই আমরা।
গত সোমবার বিকেলে এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে শাবি ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল আলম এমসি কলেজের পুকুর পাড়ে খাদিজাকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে। বর্তমানে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে। মঙ্গলবার বিকেলে অপারেশনের পর চিকিৎসকরা তাকে ৭২ ঘন্টার অবজারভেশনে রেখে গেছেন।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট