ছাতকে শিক্ষকদ্বয়ের প্রহারে ছাত্র গুরুতর আহত

প্রকাশিত: ২:১২ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৬

সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার ভাতগাঁও ইউ/পির ঝিগলী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ৮ম শ্রেণীর ছাত্র শিক্ষকদ্বয়ের প্রহারে গুরুতর আহত অবস্থায় গতকাল ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৫ নং ওয়ার্ডে ১০ নং বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ঝিগলী গ্রামের মৌওলানা আব্দুর রশিদের পুত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৮ম শ্রেণীর ছাত্র মাহফুজ আহমদ বেলা ১২ টায় অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ক্লাসের বারান্দায় বের হলে বাংলা বিভাগের সহকারী শিক্ষক রুহুল আমিন মাহফুজ আহমদ বের হওয়ার কারণ জিজ্ঞাস করেন। সে বাথ রুমে যাবে বলে উত্তর দেয়। রুহুল আমিন তাকে কিছু বুঝার আগেই কিল ঘুষি মারতে থাকেন এবং অফিস সহকারী ফুল চান বাবুকে জালিবেত নিয়ে আসার জন্য রুহুল আমিন বলেন। উভয় শিক্ষকই মাহফুজ আহমদ পিঠাতে থাকেন। তার আর্ত চিৎকারে প্রধান শিক্ষক সহ অন্যান্য এগিয়ে এসে আহত অবস্থায় তাকে প্রধান শিক্ষকের রুমে নেন। তাকে কোন চিকিৎসার উদ্যোগ না নিয়ে প্রধান মাহফুজ আহমদ কে তার রুমে আটক রাখেন বলে মাহফুজ আহমদের পিতা মৌওলানা আব্দুর রশিদ ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন। এদিকে বিদ্যালয়ের প্রধান মোঃ সিরাজুল ইসলামের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি ছাত্র প্রহারের ঘটনা স্বীকার করলেও আটকের ঘটনা সঠিক নয় বলে তিনি দাবী করেন। অভিযুক্ত শিক্ষকদ্বয়ের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি দাবী করেন। এ ব্যাপারে মাহফুজ আহমদ এর পিতা-আইনগত ব্যস্থার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট