বৃষ্টি মাথায় নিয়ে ঈদের নামাজ আদায় করলো মুসল্লীরা

প্রকাশিত: ৫:০৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৬

বৃষ্টির মধ‌্যে ঈদুল আজহা উদযাপন করছেন সিলেটবাসী। সকাল থেকে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হলেও শাহী ঈদগাহ ময়দানে ঈদের জামাত সুষ্ঠুভাবে শেষ হয়েছে।  মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর)  সকাল ৮টায় সিলেট শাহী ঈদগাহে পবিত্র ঈদ-উল-আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃষ্টির কারণে অনেকে ঈদের নামাজ নিকটস্ত মসজিদেই আদায় করেছেন।
আল্লাহর একান্ত সন্তুষ্টি লাভের জন্য ত্যাগের মহিমায় উজ্জীবিত মুসলিমরা সকাল থেকেই ঈদগাহে এসেছেন ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করতে। কিন্তু বৃষ্টির কারণে এ বছর ঈদগাহে মুসল্লিদের উপস্থিতি ছিলো তুলনামূলক কম। তবুও অনেকে বৃষ্টি উপক্ষো করে ছুটে এসেছেন ঈদগাহে। বৃষ্টির মধ্যে ভিজে আদায় করেছেন ঈদের নামাজ। নামাজ শেষে দেশ ও মুসলিম উম্মার শান্তি কামনা করে করেছেন মোনাজাত।
শাহী ঈদগাহ ময়দানে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সিলেট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল বাছিত রুম্মানসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতারা।
সতের দশকে নির্মিত সিলেটের শাহী ঈদগাহ উঁচু টিলার উপর অবস্থিত। ২২টি কারুকার্য খচিত সিঁড়ি মাড়িয়ে উপরে উঠলে দেখা মেলে ১৫টি গম্বুজ সম্বলিত শাহী ঈদগাহ মাঠ। ছোট-বড় ১০টি গেইট সংশ্লিষ্ট শাহী ঈদগাহে একইসাথে নামাজ আদায় করতে পারেন লক্ষাধিক মানুষ। সিলেটের বৃহত্তম ঈদ জামাতও অনুষ্ঠিত হয় এই ঈদগাহে। তাছাড়া এই ঈদগাহ মাঠেই প্রতিবছর ঈদের জামাতে মিলনমেলা বসে সিলেটের শীর্ষস্থানীয় রাজনীতিবিদদের। সবমিলিয়ে সিলেটের মানুষের কাছে ঈদের জামাত আদায়ের জন্য আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু এই শাহী ঈদগাহ ময়দান।
এছাড়া দরগাহে হযরত শাহজালাল (রহ.) জামে মসজিদে ঈদের জামাত হয় সকাল ৮টায়। প্রধান এ দুটি স্থান ছাড়াও নগরীর একাধিক ঈদগাহ, মাদরাসা মাঠ ও মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
এর মধ্যে সিলেট কালেক্টরেট জামে মসজিদ, ধোপাদিঘিরপারস্থ সিলেট সিটি কর্পোরেশন জামে মসজিদ, কাজিটুলা জামে মসজিদ, শেখঘাট শেখ ছানা উল্লাহ জামে মসজিদ, কালিঘাটস্থ নবাবী জামে মসজিদ ওয়াকফ এস্টেট, মাছিমপুরস্থ শেখ মৌলভী ওয়াকফ এস্টেট জামে মসজিদ, টিলাগড় শাহ মাদানী ঈদগাহ, পাঠানটুলা নবাবী শাহী ঈদগাহ এবং পশ্চিম পীরমহল্লা জামে মসজিদে সকাল ৮টায় ঈদুল আযহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এছাড়া বেশ কয়েকটি স্থানে একাধিক ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে নগরীর বন্দরবাজারস্থ হাজী কুদরত উল­াহ জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায়, সকাল সাড়ে ৮টায় এবং সকাল সাড়ে ৯টায় সর্বমোট তিনটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
জামেয়া মদিনাতুল উলূম দারুস সালাম খাসদবীর মাদরাসা মাঠে সকাল সাড়ে ৭টায় প্রথম এবং সকাল ৮টায় দ্বিতীয় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
এদিকে এবার ঈদগাহকে ঘিরে মহানগর পুলিশ প্রশাসন নিয়েছিলো কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পুলিশ সদস্যদের সাথে সাথে তৎপর ছিলো গোয়েন্দারাও। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে- নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সাধারণ মুসল্লীদের সাথে মিশে গিয়ে কাজ করছেন গোয়েন্দারা।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট