সংকট উত্তরণে একমাত্র পথ ‘মধ্যবর্তী নির্বাচন’ : অলি

প্রকাশিত: ১:০৬ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৬

এলডিপি সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী কর্নেল (অবঃ) ডঃ অলি আহমেদ বীরবিক্রম বলেছেন, বর্তমান সরকার একদলীয় নির্বাচনের মাধ্যমে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে পদদলীত করেছে। প্রতিনিয়ত মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলে মুখে ফেনা তুললেও একদলীয় নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্রের কপালে কালিমা লেপন করেছে।

তিনি বলেন, দেশে আজ সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক সকল ক্ষেত্রে অরাজক পরিস্থিততি বিরাজ করছে। স্বাধীনতা পর এত ভয়াবহ সংকটে জাতি কখনো নিপতিত হয়নি। বর্তমান সংকট থেকে উত্তরণের একমাত্র পথ হচ্ছে এশটি নিরপেক্ষ মধ্যবর্তী জাতীয় নির্বাচন।

শুক্রবার বিকালে পূর্বপান্থস্থ দলীয় মিলনায়তনে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি ঢাকা মহানগর উত্তর আয়োজিত সভায় তিনি এ সব কথা বলেন।

দলের উত্তর আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার ইকবাল হোসেন তারূকদারের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন- বিএনপির স্থাযী কমিটির সদস্য বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, কল্যাণ পার্টি চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অবঃ) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীক, এনডিপি চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা, এলডিপি মহাসচিব ডঃ রেদোয়ান আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, গণতান্ত্রিক যুব দল সভাপতি তজিজউদ্দি টিটু ও গণতান্ত্রিক ছাত্র দল সভাপতি মাহবুবুর রহমান প্রমুখ।

অলি আহমেদ বলেন, সরকারের গণবিরোধী অবস্থান ক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী করার অপরাজনীতি বাংলাদেশের জন্য অভিশাপ বয়ে আনছে। এ অবস্থা থেকে দ্রুত উত্তরণে সকল দলের অংশগ্রহণে অবাধ-সুষ্ঠু-নিরপেক্ষ মধ্যবর্তী নির্বাচনের কোনো বিকল্প নাই।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, আজ দেশে শুধু রাজনৈতিক সংকট নয়, দেশের অস্তিত্ব সংকট পরিলক্ষিত হচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলে সরকার শুধু ভারতের ঋণ পরিশোধে ব্যস্ত। গত ৪৫ বছর শুধু আমারা দিয়েই যাচ্ছি। প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসাবে তারা শুধু নিয়েই যাচ্ছে। আমার নৈতিক পাওনাও দিচ্ছে না।

তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে আমাদের সহযোগিতার কারণে ভারতকে আর কত দিতে হবে? আর কত দিলে তাদের ঋণ শোধ হবে। যে স্বাধীনতা আমাদের কথা ভলতে দেয় না, মেরুদন্ড সোজা করে দাড়াতে দেয় না, সেই স্বাধীতা আগামী প্রজন্মের জন্য অহংকারের নাও হতে পারে।

শফিউল আলম প্রধান বলেছেন, রক্ত দিয়ে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এ গণতন্ত্রের প্রশ্নে কোনো আপস চলবে না। বহুদলীয় গণতন্ত্রের জন্যেই স্বাধীনতার সংগ্রাম। সুতরাং স্বাধীনতা আর মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জনগণের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় সংগ্রামের কোনো বিকল্প নাই।

মেজর জেনারেল (অবঃ) সৈয়দ মুহাম্দ ইবরাহিম বলেছেন, অপশক্তির মদদে ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে অধিষ্ঠিত সরকারের কাছে জাতি গণতন্ত্র আর আইনের শাসন প্রত্যাশা করে না। গণজাগরণ অথবা গণঅভ্যূত্থানের মাধ্যমেই চলমান অচল অবস্থা থেকে দেশকে মুক্তি দেয়ার কোনো বিকল্প পথ খোলা নাই।

প্রতিনিধি সভায় ইঞ্জিনিয়ার মো. ইকবাল হোসেন তালুকদারকে আহবায়ক, রেজাউল উল্লা লাবু, মো. আবদুস সাত্তার, সাইফুল ইসলাম পাভেলকে যুগ্ম আহবায়ক ও খাজা আতিকুর রহমান মনিকে সদস্য সচিব করে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি ঢাকা মহানগর উত্তরের আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

  •