বিজিবি-বিএসএফ সুসম্পর্কে সীমান্তে নিহতের ঘটনা কমেছে

প্রকাশিত: ৪:০৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৬

বিজিবি ও ভারতের বিএসএফের মধ্যে ভালো সম্পর্ক তৈরি হওয়ায় সীমান্তে নিহত হওয়ার ঘটনা কমে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার সকালে বিজিবি সদর দপ্তরে বিজিবি সদস্যদের জন্য সীমান্ত ব্যাংক লিমিটেডের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান। অনুষ্ঠানের শুরুতেই ব্যাংকের কার্যক্রম উদ্বোধন ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী।

বিজিবি’র প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) ওপর অর্পিত দায়িত্ব বাহিনীটি সব সময়ই যথাযথভাবে পালন করেছে। যে সময় যে দায়িত্বই দেয়া হয়েছে, এ বাহিনী তার ওপর অর্পিত সব দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেছে। আমরা অগ্নিসন্ত্রাস থেকে যে দেশের মানুষকে বাঁচাতে পেরেছি, সে ক্ষেত্রেও আমাদের এ বাহিনী ভূমিকা রেখেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, বিজিবির প্রতিটি সদস্যের জন্য আজ আনন্দের দিন। সামনে পবিত্র ঈদুল আজহা। আজ সীমান্ত ব্যাংক উদ্বোধন করলাম। এটা তাদের জন্য ঈদের শুভেচ্ছা।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধে আমাদের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর অসাধারণ ভূমিকা রয়েছে। ঠিক যে মুহূর্তে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর হামলা চালিয়েছিল পাকিস্তানি হানাদাররা। ঠিক সেই মুহূর্তে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণায় আমাদের সীমান্তরক্ষীরা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। মুক্তিযুদ্ধে আমাদের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর অসংখ্য যোদ্ধা শহীদ হয়েছেন।

২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে তৎকালীন বিডিআর বিদ্রোহে নিহতদের স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে এক বেদনাদায়ক ঘটনায় আমাদের এ বাহিনীর অনেক কর্মকর্তা শহীদ হয়েছেন। আজকের দিনে তাদের আমি স্মরণ করছি।

তিনি বিজিবিকে শক্তিশালী ও গতিশীল করতে সরকারের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে বলেন, আমরা বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ আইন ২০১০ পাস করেছি। এতে এ বাহিনী আরো শক্তিশালী হয়েছে, গতিশীল হয়েছে।

বিজিবিতে নারী সদস্যের অন্তর্ভূক্তির কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নারীরা কোনো ক্ষেত্রে এখন পিছিয়ে নেই। আমাদের বিজিবিতেও এখন অসংখ্য নারী সদস্য রয়েছেন।

প্রতিটি বাহিনীকেই যুগোপযোগী ও শক্তিশালী করতে তার সরকারের নেয়া পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, খুব শিগগিরই নৌ বাহিনী এবং বিমান বাহিনীর জন্য একটি যৌথ ব্যাংক চালু করা হবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. মোজাম্মেল হক খান, বিজিবির মহাপরিচালক ও সীমান্ত ব্যাংকের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ, সীমান্ত ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোখলেসুর রহমান।

  •